‘ভারতের বহু রাজ্যে জমিরক্ষা আইন রয়েছে, কাশ্মীর চাইলেই দেশবিরোধী’

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
আন্তর্জাতিক ডেস্ক আন্তর্জাতিক ডেস্ক
প্রকাশিত: ০১:০৩ পিএম, ৩০ অক্টোবর ২০২০

ভারতের অনেক রাজ্যের হাতেই জমির মালিকানা রক্ষার ক্ষমতা রয়েছে, তাহলে জম্মু-কাশ্মীর সেই অধিকার চাইলে দেশবিরোধী কেন বলা হচ্ছে- এ নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন রাজ্যের মর্যাদা হারানো অঞ্চলটির সাবেক মুখ্যমন্ত্রী ওমর আব্দুল্লাহ।

বৃহস্পতিবার শ্রীনগরে আয়োজিত একটি অনুষ্ঠানে ন্যাশনাল কনফারেন্সের (এনসি) এ নেতা বলেন, হিমাচল প্রদেশ, সিকিম, মেঘালয়, নাগাল্যান্ড—এমন অনেক রাজ্য ও কেন্দ্রশাসিত এলাকা রয়েছে, যেখানে বাইরের কেউ জমি কিনতে পারে না। কিন্তু ওই অধিকার আমরা চাইলেই তা হয়ে ওঠে দেশবিরোধী। এটা কেন?

এ নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করে ওমর আব্দুল্লাহ বলেন, অন্য রাজ্যের অধিকার নিয়ে কখনোই প্রশ্ন ওঠে না। যত প্রশ্নের মুখে আমরাই।

তিনি বলেন, দিল্লিওয়ালারা (কেন্দ্রীয় সরকার) কী চান? আমরা সক্রিয় রাজনীতি ছেড়ে দেই? আমরা আমাদের জমি ও সংস্কৃতির জন্য লড়ছি, আত্মপরিচয়ের জন্য লড়ছি।

জম্মু-কাশ্মীরের সাবেক মুখ্যমন্ত্রী বলেন, শান্তিপূর্ণ ও গণতান্ত্রিক পদ্ধতিতে সাংবিধানিক অধিকারের স্বীকৃতি চাওয়া অন্যায় নয়। তারপরও এখানে কোনও মিছিল-সমাবেশ করতে দেওয়া হয় না। কোনও দাবিই করা যায় না।

kashmir-2.jpg

তিনি বলেন, গত বছর লোকসভা নির্বাচনের পরে ভেবেছিলাম, জম্মু-কাশ্মীরে বিধানসভা নির্বাচন হবে। কিন্তু সেটা হয়নি। বরং ক্ষমতার বলে জোরপূর্বক আমাদের গণতান্ত্রিক অধিকার দাবিয়ে রাখা হয়েছে।

কাশ্মীর রক্ষায় আরও আগে এনসি-পিডিপি (পিপলস ডেমোক্র্যাটিক পার্টি) জোট হওয়া দরকার ছিল মন্তব্য করে এ নেতা বলেন, কেন্দ্র আমাদের দুর্বল করতে, আমাদের মধ্যে ভাঙন ধরাতে সব ধরনের কূটকৌশল অবলম্বন করছে।

ওমর আরও বলেন, কাশ্মীরে যা হচ্ছে তা ক্ষমতার লড়াই নয়। এটি অধিকার রক্ষার লড়াই। এই মুহূর্তে যা পরিস্থিতি তাতে আমরা যদি ক্ষমতার পেছনে দৌড়াই, তাহলে মানুষ কখনও ক্ষমা করবে না।

২০১৯ সালের ৫ আগস্ট কঠোর বিধিনিষেধের মধ্যে ভারতশাসিত কাশ্মীরের বিশেষ সাংবিধানিক মর্যাদা বাতিল করে মোদি সরকার। জম্মু ও কাশ্মীর রাজ্য বিলুপ্ত করে লাদাখ এবং জম্মু-কাশ্মীর নামে দু’টি পৃথক কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলে রূপান্তরিত করা হয়।

এরপর দীর্ঘদিন লকডাউন করে উপত্যকায় সবধরনের রাজনৈতিক কার্যকলাপ বন্ধ রাখা হয়। কোনও সুনির্দিষ্ট অভিযোগ ছাড়াই আটক করা হয় স্থানীয় শীর্ষ নেতাদের। বন্ধ হয়ে যায় শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, ব্যবসা-বাণিজ্য, পর্যটন—সবকিছুই। পরে ধীরে ধীরে বিধিনিষেধ শিথিল করলেও এখনও আগের অবস্থায় ফেরেনি ভূস্বর্গ-খ্যাত কাশ্মীর।

সূত্র: দ্য ওয়াল

কেএএ/এমএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]