ইসরায়েলই ফখরিজাদেহকে হত্যা করেছে : ইরান

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
আন্তর্জাতিক ডেস্ক আন্তর্জাতিক ডেস্ক
প্রকাশিত: ০৪:৫২ পিএম, ২৮ নভেম্বর ২০২০

দেশের শীর্ষ পরমাণু বিজ্ঞানী ও পশ্চিমা দেশগুলোর মতে, তেহরানের গোপন সামরিক পারমাণবিক কর্মসূচির স্থপতি মহসীন ফখরিজাদেহকে হত্যার জন্য ইসরায়েলকে দায়ী করেছেন ইরানের প্রেসিডেন্ট হাসান রুহানি।

শুক্রবার তেহরানের অদূরে এক শহরে আইআরজিসির বিগ্রেডিয়ার জেনারেল ও ইরানের প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের গবেষণা প্রধান ফখরিজাদেহের গাড়িতে আততায়ীরা বোমা নিক্ষেপ ও গুলি করলে তিনি প্রাণ হারান।

ইরানের সর্বোচ্চ ধর্মীয় নেতা আয়াতুল্লাহ খামেনির প্রতিরক্ষা উপদেষ্টা এই খুনের বদলা নেয়ার হুমকি দেয়ার পর শনিবার দেশটির প্রেসিডেন্ট হাসান রুহানি বললেন, ফখরিজাদেহকে ইসরায়েলের ঘাতকরাই হত্যা করেছে।

দেশটির রাষ্ট্রায়ত্ত টিভির এক প্রতিবেদন অনুযায়ী হাসান রুহানি বলেন, ‘আরও এক বার, বৈশ্বিক ঔদ্ধত্যের শয়তানি চক্র ও ভাড়াটে দখলদার ইহুদিবাদী সরকারের হাত একজন ইরানি সন্তানের রক্তে রঞ্জিত হলো।’

ইরায়েলকে উদ্দেশ্য করে তিনি বলেন, ‘শহীদ ফখরিজাদেহের গুপ্তহত্যা আমাদের শত্রুদের হতাশা ও ঘৃণার গভীরতা তুলে ধরেছে। তার আত্মত্যাগ আমাদের অর্জনের (পারমাণবিক কর্মসূচি) গতিরোধ করতে পারবে না।’

ইতোমধ্যে ইরানের ধর্মীয় ও সামরিক নেতারা শীর্ষ এই পরমাণু বিজ্ঞানীকে হত্যার বদলা নেয়ার হুমকি দিয়েছেন। শুক্রবারের ওই হামলার পর হাসপাতালে নেয়া হলেও তার আগে প্রাণ হারান ফখরেজাদেহ।

পশ্চিমাদের অভিযোগ ইরানের ইউরেনিয়াম সমৃদ্ধকরণ কর্মসূচির আড়ালে পারমাণবিক অস্ত্র তৈরির উপায় নির্ধারণে অগ্রণী ভূমিকা পালন করতেন ফখরিজাদেহ। তবে ইরান বরাবরই এ অভিযোগ অস্বীকার করেছে।

ফখরিজাদেহ মহাসড়কে আততায়ীদের হাতে প্রাণ হারানোর পর সর্বোচ্চ ধর্মীয় নেতা আয়াতুল্লাহ খামেনির সামরিক উপদেষ্টা হোসেইন দেহাগান বজ্রপাতের মতো অপরাধীদের আঘাত করার হুমকি দিয়েছেন।

এর আগে এই হামলার জন্য ইসরায়েলকে দোষারোপ করে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়কে ‘রাষ্ট্রীয় সন্ত্রাসবাদী এই কাজের নিন্দা’ করার আহ্বান জানান ইরানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী মোহাম্মদ জাভেদ জারিফ।

এসএ/এমকেএইচ

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]