অস্ট্রেলিয়াকে ক্ষেপাতে চীনা টুইট ছড়ানো হয়েছে পরিকল্পিতভাবে

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
আন্তর্জাতিক ডেস্ক আন্তর্জাতিক ডেস্ক
প্রকাশিত: ০৯:০৫ এএম, ০৫ ডিসেম্বর ২০২০

সম্প্রতি চীনের এক উচ্চপদস্থ সরকারি কর্মকর্তার টুইট নিয়ে চরম ক্ষেপেছে অস্ট্রেলিয়া। এর জন্য চীন সরকারকে ক্ষমা চাওয়ার দাবি জানিয়েছে তারা। তবে সেসবে খুব একটা কর্ণপাত করছে না চীন। বরং বিতর্কিত সেই টুইটের পক্ষেই নিজেদের অবস্থান ধরে রেখেছে তারা। যে টুইট নিয়ে এত বিরোধ, বিশেষজ্ঞরা বলছেন, সেই টুইট ছড়িয়ে দেয়া হয়েছে একঝাঁক ভুয়া অ্যাকাউন্ট থেকে।

জানা যায়, গত সোমবার বিতর্কিত সেই টু্ইট করেছিলেন চীনা পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র ঝাও লিজিয়ান। এতে দেখা যায়, এক অস্ট্রেলীয় সেনা এক আফগান শিশুর গলায় রক্তমাখা ছুরি ধরে রেখেছেন।

এ নিয়ে তীব্র প্রতিক্রিয়া জানায় অস্ট্রেলিয়া। অস্ট্রেলীয় প্রধানমন্ত্রী স্কট মরিসন চীন সরকারকে এ বিষয়ে আনুষ্ঠানিক ক্ষমা চাইতে বলেন এবং টুইটার কর্তৃপক্ষকে টুইটটি মুছে ফেলতে অনুরোধ করেন। তবে তার সেই আহ্বানে সাড়া দেয়নি কোনও পক্ষই। চীনও ক্ষমা চায়নি, টুইটারও টুইট সরায়নি।

সায়াব্রা নামে একটি ইসরায়েলি সাইবার নিরাপত্তা প্রতিষ্ঠান বলছে, খুব সম্ভবত সুপরিকল্পিতভাবে ঝাওয়ের সেই টুইটের প্রচারণা চালানো হয়েছে।

সায়াব্রা বলেছে, তারা দেখতে পেয়েছে, চীনা কর্মকর্তার টুইটের সঙ্গে জড়িত ৫৭ দশমিক ৫ শতাংশ অ্যাকাউন্টই ভুয়া। ভুল সেই তথ্য ছড়িয়ে দিতে সুপরিকল্পিত প্রচারণা চালানো হয়েছে, এমন প্রমাণ পাওয়া গেছে বলেও দাবি করা হয়েছে।

তবে এ প্রচারণার সঙ্গে কারা জড়িত সে বিষয়ে কিছু জানায়নি ইসরায়েলি প্রতিষ্ঠানটি।

সায়াব্রা জানিয়েছে, তারা ১ হাজার ৩৪৪টি প্রোফাইল বিশ্লেষণ করে দেখেছে এগুলোর সিংহভাগই গত নভেম্বরে খোলা এবং ঝাওয়ের টুইট রিটুইট করতে মাত্র একবারই ব্যবহৃত হয়েছে।

তবে সায়াব্রার এই বিবৃতিকে অযৌক্তিক বলে মন্তব্য করেছে চীন। শুক্রবার রাতে চীনা পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় বলেছে, এটা ভুল তথ্য ছড়ানোর একটি সাধারণ উদাহরণ। টুইট ব্যবস্থাপনায় টুইটারের নিজস্ব নীতি রয়েছে।

এদিকে, অস্ট্রেলিয়ার কুইন্সল্যান্ড ইউনিভার্সিটি অব টেকনোলজির বিশেষজ্ঞ টিম গ্রাহাম জানিয়েছেন, তিনি ঝাওয়ের টুইটে ১০ হাজার রিপ্লাই বিশ্লেষণ করেছেন। এতে দেখা গেছে, চীনা অ্যাকাউন্টই বেশি সক্রিয়।

টিম জানান, ৮ শতাংশ রিপ্লাই ছিল এমন অ্যাকাউন্ট থেকে, যেগুলো ওইদিন অথবা ২৪ ঘণ্টা আগে খোলা হয়েছে।

ভুয়া ওইসব অ্যাকাউন্ট থেকে আফগান শিশু ছাড়া শুধু হংকং নিয়ে টুইট করা হয়েছে বলেও জানান এ বিশেষজ্ঞ।

টিম বলেন, এগুলো যদি যথেষ্ট পরিমাণে থাকে, তাহলে ধরে নেয়া যায়, সেটি বিশেষ প্রচারণার জন্য তৈরি হয়েছে।

অস্ট্রেলীয় এ বিশেষজ্ঞ আরও জানান, গত জুন থেকে অন্তত ৩৭ হাজার চীনা অ্যাকাউন্ট অস্ট্রেলিয়াকে টার্গেট করছে। সেগুলোর মধ্যে কিছু অ্যাকাউন্ট থেকেও ঝাও লিজিয়ানের টুইট রিটুইট বা রিপ্লাই দেয়া হয়েছে।

সূত্র: রয়টার্স
কেএএ/

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]