ট্রাম্পের অভিশংসন হলো, এরপর কী?

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
আন্তর্জাতিক ডেস্ক আন্তর্জাতিক ডেস্ক
প্রকাশিত: ০৮:২০ পিএম, ১৪ জানুয়ারি ২০২১

যুক্তরাষ্ট্রের ইতিহাসে প্রথম প্রেসিডেন্ট হিসেবে দুবার অভিশংসনের লজ্জায় পড়েছেন ডোনাল্ড ট্রাম্প। গত সপ্তাহে পার্লামেন্ট ভবনে সহিংসতায় উসকানি দেয়ার অভিযোগে তাকে দ্বিতীয়বারের মতো অভিশংসিত করেছে দেশটির প্রতিনিধি পরিষদ।

২০১৯ সালেও অভিশংসনের মুখে পড়েছিলেন ট্রাম্প। সেবার রিপাবলিকানশাসিত সিনেট পক্ষে থাকায় ক্ষমতা ছাড়তে হয়নি তাকে। কিন্তু এবার কী হবে? হোয়াইট হাউসে তিনি আছেনই আর ছয়দিন। এর মধ্যে কী তাকে ক্ষমতা ছাড়া করা সম্ভব? নাকি দীর্ঘস্থায়ী কোনও ক্ষতির মুখে পড়বেন ডোনাল্ড ট্রাম্প?

যুক্তরাষ্ট্রের সংবিধান অনুসারে, প্রতিনিধি পরিষদে প্রেসিডেন্টের অভিশংসনের পর কংগ্রেসের উচ্চকক্ষ সিনেটেও এ বিষয়ে শুনানি হবে। ট্রাম্পের দ্বিতীয় অভিশংসনেও তার ব্যতিক্রম হচ্ছে না।

তবে সিনেটের এই শুনানি ট্রাম্প হোয়াইট হাউসে থাকাকালীন আর হচ্ছে না। অর্থাৎ আগামী ২০ জানুয়ারি ক্ষমতা ছাড়ার পরে তার বিরুদ্ধে শুনানি অনুষ্ঠিত হবে।

jagonews24

সিনেটের রিপাবলিকান নেতা মিচ ম্যাককনেল বলেন, এত অল্প সময়ের মধ্যে সিনেটের সব নিয়ম-কানুন মেনে প্রেসিডেন্টের বিচার করার কোনও সুযোগ নেই।

শুনানিতে ডোনাল্ড ট্রাম্পকে দোষী সাব্যস্ত করতে দুই-তৃতীয়াংশ সংখ্যাগরিষ্ঠতা দরকার। অর্থাৎ ১০০ সদস্যের সিনেট সমানভাবে ভাগ করলেও অন্তত ১৭ জন রিপাবলিকান সিনেটরকে নিজ দলীয় প্রেসিডেন্টের বিরুদ্ধে ভোট দিতে হবে।

গত মঙ্গলবার নিউইয়র্ক টাইমস দাবি করেছে, অন্তত ২০ জন রিপাবলিকান নেতা সিনেটে ট্রাম্পের বিপক্ষে ভোট দেয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। প্রতিনিধি পরিষদেও ট্রাম্পের বিরুদ্ধে তার দলের ১০ সদস্য ভোট দিয়েছেন।

jagonews24

সিনেটের শুনানিতে ডোনাল্ড ট্রাম্প দোষী সাব্যস্ত হলে সিনেটররা তাকে আগামীতে নির্বাচনে দাঁড়ানোর অযোগ্য ঘোষণার বিষয়ে আরেকটি ভোট আহ্বান করতে পারেন। গত নভেম্বরের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে হারলেও ২০২৪ সালের নির্বাচনে আবারও দাঁড়ানোর পরিকল্পনা রয়েছে এ ধনকুবের রাজনীতিবিদের।

এর আগে বুধবার ডেমোক্র্যাট নিয়ন্ত্রিত প্রতিনিধি পরিষদে কয়েক ঘণ্টার বিতর্ক শেষে ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়। এতে ২৩২-১৯৭ ভোটে ট্রাম্পকে অভিশংসিত করা হয়। তার বিরুদ্ধে গত ৬ জানুয়ারি হোয়াইট হাউসের বাইরে একটি সমাবেশের ভাষণে ক্যাপিটল ভবনে হামলায় উসকানি দেয়ার অভিযোগ আনা হয়।

দ্বিতীয়বার অভিশংসনের লজ্জার পরে ট্রাম্প একটি ভিডিওবার্তা দিয়েছেন। এতে তিনি সমর্থকদের শান্ত থাকার আহ্বান জানিয়েছেন, যদিও অভিশংসিত হওয়ার বিষয়ে ওই ভিডিওতে একটি কথাও নেই। ভিডিওতে ট্রাম্প বলেন, ‘এদেশে সহিংসতা ও ধ্বংসযজ্ঞের কোনো স্থান নেই। আমার সত্যিকার সমর্থক কখনোই কোনও রাজনৈতিক সহিংসতা সমর্থন করবে না।’

সূত্র: বিবিসি

কেএএ/জেআইএম

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]