সামরিক শাসন জারি করে ক্ষমতায় থাকার প্রস্তাব ছিল ট্রাম্পের কাছে!

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
আন্তর্জাতিক ডেস্ক আন্তর্জাতিক ডেস্ক
প্রকাশিত: ০৮:৪৩ পিএম, ১৭ জানুয়ারি ২০২১

ক্ষমতা হাতছাড়া হয়েই গেল ডোনাল্ড ট্রাম্পের। গুনে গুনে আর মাত্র তিনটা দিন হোয়াইট হাউসে থাকতে পারবেন তিনি। তবে ভক্তরা ট্রাম্পকে প্রেসিডেন্ট পদে রাখতে কতটা আগ্রাসী, তার নমুনা দেখা গেছে গত ৬ ডিসেম্বর ক্যাপিটলের হামলায়। নির্বাচনে হারলেও প্রয়োজনে সামরিক শাসন জারি করে তাকে ক্ষমতায় দেখতে চান উগ্র সমর্থকেরা। সম্প্রতি ওয়াশিংটন পোস্টের এক ফটোগ্রাফারের ক্যামেরায় ধরা পড়া ছবিতে অন্তত তেমনটাই মনে হচ্ছে।

আগামী ২০ জানুয়ারি অভিষেক হচ্ছে বাইডেনের, এদিনই বিদায় নেবেন ট্রাম্প। এর মাত্র পাঁচদিন আগে, অর্থাৎ গত শুক্রবার হোয়াইট হাউসে বিদায়ী প্রেসিডেন্টের সঙ্গে দেখা করতে গিয়েছিলেন মাইকেল লিন্ডেল নামে এক ব্যবসায়ী।

ওয়েস্ট উইংয়ের দিকে তার হেঁটে যাওয়ার দৃশ্য ধরা পড়ে ওয়াশিংটন পোস্টের স্টাফ ফটোগ্রাফার জ্যাবিন বটসফোর্ডের ক্যামেরায়। ছবিতে লিন্ডেলের হাতে ধরা কাগজপত্রে যেসব কথাবার্তা লেখা, মূলত তা দেখেই আঁতকে উঠেছেন অনেকে।

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে অনেকেই মন্তব্য করেছেন, ট্রাম্পভক্ত লিন্ডেলের কাগজপত্র পড়ে মনে হচ্ছে, তিনি যুক্তরাষ্ট্রে সামরিক শাসন জারির প্রস্তাব দিচ্ছেন।

jagonews24

কে এই লিন্ডেল?
মাইকেল লিন্ডেল পেশায় ব্যবসায়ী। তিনি যুক্তরাষ্ট্রের ‘মাই পিলো’ নামে একটি প্রতিষ্ঠানের প্রধান নির্বাহী। এটি মূলত বিছানা-বালিশ বিক্রি করে থাকে।

লিন্ডেল বরাবরই ট্রাম্পের কট্টর সমর্থক। গত শুক্রবারও তিনি ফেসবুকে স্ট্যাটাস দিয়েছেন, ‘সবাই বিশ্বাস রাখুন! আমরা আরও চার বছর ডোনাল্ড ট্রাম্পকে প্রেসিডেন্ট হিসেবে পাব।’

কী লেখা ছিল কাগজে?
ওয়াশিংটন পোস্টের ফটোগ্রাফারের তোলা ছবিতে লিন্ডেলের হাতে ধরা কাগজে কয়েকটি বাক্যের অর্ধেকটা স্পষ্ট পড়া যাচ্ছে। এর মধ্যেই লেখা ‘মার্শাল ল ইফ নেসেসারি’, অর্থাৎ ‘প্রয়োজনে সামরিক শাসন’।

আরেক জায়গায় লেখা ‘মুভ ক্যাশ প্যাটেল টু সিআইএ অ্যাকটিং’, অর্থাৎ ক্যাশ প্যাটেলকে হয়তো সিআইএ’র ভারপ্রাপ্ত প্রধান করার কথা বলা হচ্ছে।

jagonews24

ক্যাশ প্যাটেলও ট্রাম্পের এক বিশ্বস্ত কর্মকর্তা, যাকে নির্বাচনের পর যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ে বদলি করা হয়। সেখানে তিনি বাইডেন টিমের কাছে ক্ষমতা হস্তান্তরের কাজে বাধা সৃষ্টি করেন বলে অভিযোগ রয়েছে।

সিএনএনের হোয়াইট হাউস সংবাদাদতা জিম অ্যাকোস্টা জানিয়েছেন, তিনি মাইকেল লিন্ডেলের সঙ্গে কথা বলেছেন। লিন্ডেল নিশ্চিত করেছেন যে, প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের সঙ্গে তার সাক্ষাৎ হয়েছে এবং ওই কাগজপত্রগুলো ট্রাম্প তার স্টাফদের কাছে জমা দিতে বলেছেন। তবে ওই কাগজে ‘মার্শাল ল’ লেখা থাকার দাবি অস্বীকার করেছেন এ ব্যবসায়ী।

অবশ্য এর আগেও ট্রাম্প নির্বাচনে হারলে সামরিক শাসন জারি করে ক্ষমতায় থাকার প্রস্তাব দিয়েছিলেন বেশ কিছু সমর্থক। এদের মধ্যে ট্রাম্পের অত্যন্ত ঘনিষ্ঠ রাজনৈতিক পরামর্শক ও লবিস্ট রজার স্টোনের নাম উল্লেখযোগ্য।

সূত্র: বিবিসি বাংলা

কেএএ/জেআইএম

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]