ভারতে বৌভাতের অনুষ্ঠানে যাওয়ার পথে ট্রাকচাপায় পিষ্ট ১৪ জন

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
আন্তর্জাতিক ডেস্ক আন্তর্জাতিক ডেস্ক
প্রকাশিত: ০৯:০৬ এএম, ২০ জানুয়ারি ২০২১

ভারতে বৌভাতের অনুষ্ঠানে যাওয়ার পথে পাথরবোঝাই ট্রাকের নিচে চাপা পড়ে ১৪ জন নিহত হয়েছেন। মঙ্গলবার (১৯ জানুয়ারি) রাতে পশ্চিমবঙ্গের জলপাইগুড়ি জেলার ধূপগুড়িতে ঘটনাটি ঘটেছে। নিহতদের মধ্যে নারী-পুরুষ ছাড়াও তিন শিশু রয়েছে। খবর আনন্দবাজার পত্রিকা।

পুলিশ জানিয়েছে, মঙ্গলবার রাত নয়টার দিকে তিনটি গাড়িতে করে ধূপগুড়ির ময়নাতলি এলাকায় বৌভাতের অনুষ্ঠানে যাচ্ছিলেন কনেপক্ষের আত্মীয়রা। রাস্তা ফাঁকা থাকায় উল্টো দিকের লেন ধরেই গাড়িগুলো যাচ্ছিল। সে সময় সঠিক লেন ধরে বিপরীত দিক থেকে ১০ চাকার একটি পাথরবোঝাই ট্রাক ময়নাগুড়ির দিকে যাচ্ছিল।

জলঢাকা সেতুর কাছে কনেযাত্রীদের একটি গাড়ির সঙ্গে মুখোমুখি ধাক্কা লাগে ওই ট্রাকের। এতে সেটি নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে রোড ডিভাইডারে উঠে কাত হয়ে যায়। সে সময় পাশ কাটিয়ে কনেযাত্রীদের বাকি দুটি গাড়ি যাওয়ার চেষ্টা করতেই ট্রাকটি গাড়ি দুটির উপর উল্টে যায়। যাত্রীসহ ট্রাকের নিচে চাপা পড়ে যায় গাড়ি দুটি। এতে ঘটনাস্থলেই তিন শিশুসহ ১২ জনের মৃত্যু হয়। হাসপাতালের নেয়ার পথে আরও দুজনের মৃত্যু হয় বলে জানিয়েছে পুলিশ।

খবর পেয়েই দুর্ঘটনার ১০ মিনিটের মধ্যে ঘটনাস্থলে পৌঁছায় ধূপগুড়ি থানার পুলিশ। উদ্ধারকাজের জন্য নিয়ে আসা হয় বেশ কয়েকটি ক্রেন। দ্রুত উদ্ধারকাজের জন্য আরও পুলিশ আসে। স্থানীয়রাও উদ্ধারকাজে সহায়তা করেন। ক্রেন দিয়ে ট্রাকটিকে তোলার পর পাথর সরিয়ে আহতদের উদ্ধার করা হয়। আহতদের প্রথমে ধূপগুড়ি হাসপাতালে এবং পরে জলপাইগুড়ি হাসাপাতালে স্থানান্তরিত করা হয়।

প্রত্যক্ষদর্শীদের দাবি, ট্রাকটির সামনে একটি লরি ছিল। যেটা খুব আস্তে যাচ্ছিল। লরিটিকে ওভারটেক করার চেষ্টা করেন ট্রাকচালক। সে সময়েই উল্টো লেন ধরে আসা কনেযাত্রীর একটি গাড়ির সঙ্গে মুখোমুখি ধাক্কা লাগে সেটির।

জলপাইগুড়ির পুলিশ সুপার প্রদীপ কুমার যাদব বলেন, দুর্ঘটনায় এখনো পর্যন্ত ১৪ জনের মৃত্যু হয়েছে। তবে সবার পরিচয় এখনো জানা যায়নি। পুলিশ খোঁজখবর নিচ্ছে। ট্রাকচালককে গ্রেফতার করা হয়েছে।

দুর্ঘটনার জেরে এশিয়ান হাইওয়ে ৪৮-এ দীর্ঘক্ষণ গাড়ি চলাচল বন্ধ ছিল। রাত নয়টা থেকে রাত একটা পর্যন্ত উদ্ধার কাজ চলে। রাত দুটার পর রাস্তা স্বাভাবিক হয় বলে জানিয়েছে পুলিশ।

এমআরআর/এমকেএইচ

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]