সাবেক উপদেষ্টা ব্যাননকেও ক্ষমা করলেন ট্রাম্প

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
আন্তর্জাতিক ডেস্ক আন্তর্জাতিক ডেস্ক
প্রকাশিত: ০১:০১ পিএম, ২০ জানুয়ারি ২০২১

দায়িত্ব ছাড়ার কয়েক ঘণ্টা আগেই নিজের সাবেক উপদেষ্টা স্টিভ ব্যাননকে ক্ষমা করে দিলেন বিদায়ী মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। তার বিরুদ্ধে জালিয়াতির অভিযোগ আনা হয়েছিল। যুক্তরাষ্ট্রের পরবর্তী প্রেসিডেন্ট হিসেবে জো বাইডেনের ক্ষমতা গ্রহণের কয়েক ঘণ্টা আগেই ব্যাননকে ক্ষমা করে দেয়ার ঘোষণা দেন ট্রাম্প।

যুক্তরাষ্ট্র-মেক্সিকো সীমান্তে দেয়াল নির্মাণের তহবিল জোগাড়ের জন্য এক প্রচারণা চালিয়ে লোকজনের কাছ থেকে অবৈধভাবে অর্থ হাতিয়ে নেয়ার অভিযোগে ট্রাম্পের এই সাবেক উপদেষ্টার বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়। কিন্তু এবার সেই অপরাধ থেকে পার পেয়ে গেলেন তিনি।

দায়িত্ব হস্তান্তরের শেষ কয়েক ঘণ্টায় ট্রাম্প আরও প্রায় একশ মানুষকে ক্ষমা করে দেবেন। ইতোমধ্যেই ক্ষমা পাওয়া লোকজনের তালিকা প্রস্তুত হয়েছে। সাজা কমানো, দায়মুক্তিসহ বিভিন্ন বিষয় এতে অন্তর্ভূক্ত রয়েছে। তবে ট্রাম্পের সর্বশেষ সাধারণ ক্ষমার তালিকায় কাদের কাদের নাম থাকছে সেই পূর্ণ তালিকা এখনও প্রকাশ করা হয়নি। প্রেসিডেন্ট হিসেবে কর্মদিবসের শেষেই ক্ষমা করে দেয়া লোকজনের নাম ঘোষণা করতে পারেন ট্রাম্প।

র্যাপার লিল ওয়াইনি, কোডাক ব্ল্যাক এবং ডেট্রয়েটের সাবেক মেয়র কোয়ামি কিলপ্যাট্রিককেও ক্ষমা করে দিয়েছেন ট্রাম্প। ২০১৬ সালে প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের সময় ট্রাম্পের ঘনিষ্ঠ উপদেষ্টা হিসেবে কাজ করেছেন ব্যানন। গত বছরের আগস্টে তার বিরুদ্ধে জালিয়াতির অভিযোগ আনা হয়।

গত আগস্টে ওই মামলায় ব্যাননকে গ্রেফতার করার পর তার বিরুদ্ধে ম্যানহাটনের আদালতে অভিযোগ গঠন করা হয়। প্রসিকিউটররা জানিয়েছেন, মেক্সিকো সীমান্তে দেয়াল নির্মাণের জন্য ‘উই বিল্ড দ্য ওয়াল’ নামের একটি প্রচারণায় ২ কোটি ৫০ লাখ ডলার সংগ্রহ করা হয়। ব্যানন বিভিন্ন ব্যক্তির কাছ থেকে ১০ লাখ ডলারেরও বেশি অর্থ গ্রহণ করেছিলেন। এর মধ্যে বেশিরভাগই তিনি ব্যক্তিগত কাজে ব্যবহার করেন। এছাড়াও তিনি তার বিরুদ্ধে আনা সব অভিযোগও অস্বীকার করেছেন।

হোয়াইট হাউসের পক্ষ থেকে এক বিবৃতিতে বলা হয়েছে, ব্যানন রক্ষণশীল আন্দোলনের একজন গুরুত্বপূর্ণ নেতা ছিলেন এবং তিনি তার রাজনৈতিক বুদ্ধিমত্তার জন্য বেশ পরিচিত। বেশ কিছু বিষয় বিবেচনা করে বিদায়ী প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প তাকে ক্ষমা করেছেন বলে ওই বিবৃতিতে উল্লেখ করা হয়েছে।

ক্ষমতা ছাড়ার আগে বিদায়ী প্রেসিডেন্টের লোকজনকে ক্ষমা করে দেয়ার ঘটনা নতুন নয়। এর আগের প্রায় সব মার্কিন প্রেসিডেন্টই ক্ষমতা ছাড়ার আগে লোকজনকে ক্ষমা করে দিয়েছেন। তবে ট্রাম্পের ক্ষমার বিষয়টি নিয়ে আলোচনা হচ্ছে কারণ তার ক্ষমার তালিকায় থাকা বেশ কয়েকজনকে নিয়েই বিতর্ক রয়েছে।

টিটিএন/এমকেএইচ

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]