আইএসের হামলায় মোজাম্বিকে হতাহত বহু, হোটেলে আটকা বিদেশিসহ ১৮০ জন

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
আন্তর্জাতিক ডেস্ক আন্তর্জাতিক ডেস্ক
প্রকাশিত: ০১:৩৩ পিএম, ২৭ মার্চ ২০২১

পূর্ব আফ্রিকার দেশ মোজাম্বিকের উত্তরাঞ্চলীয় একটি শহরে আইএস সংশ্লিষ্ট সংগঠনের হামলার পর তিনদিন ধরে হোটেল আটকা রয়েছেন বিদেশি কর্মীসহ অন্তত ১৮০ জন বেসামরিক নাগরিক। ইতোমধ্যেই তাদের খাবার ফুরিয়ে গেছে, আর সশস্ত্র হামলাকারীরাও ধীরে ধীরে হোটেলের দিকে এগিয়ে আসছে। সরকারি নিরাপত্তা বাহিনী হেলিকপ্টার দিয়ে আটকেপড়া নাগরিকদের উদ্ধারের চেষ্টা করলেও তা এখনও সম্ভবপর হয়নি। খবর এএফপির।

জানা যায়, গত বুধবার বিকেলে আচমকা দেশটির কাবো ডেলগাদো প্রদেশের পালমা শহরে হামলা চালায় বন্দুকধারী সন্ত্রাসীরা। এতে প্রাণ বাঁচাতে ভীতসন্ত্রস্ত বাসিন্দারা আশপাশের জঙ্গলে পালিয়ে যেতে বাধ্য হন। এসময় একটি এলএনজি (তরলীকৃত প্রাকৃতিক গ্যাস) কারখানা এবং স্থানীয় সরকারের কর্মকর্তারা আমারুলা পালমা হোটেলে আশ্রয় নেন।

শুক্রবার রাতে উদ্ধার হওয়া এলএনজি কারখানার এক কর্মী ফোনে জানান, হামলায় প্রায় গোটা শহরই ধ্বংস হয়ে গেছে। অনেকে মারা গেছেন।

তিনি বলেন, স্থানীয়রা ঝোপঝাড়ে পালিয়ে যান আর এলএনজি কারখানার কর্মীরা হোটেল আমারুলায় আশ্রয় নেয়। তাদের মধ্যে বিদেশিরাও রয়েছেন। তারা উদ্ধারের আশায় রয়েছেন।

হিউম্যান রাইটস ওয়াচ জানিয়েছে, হামলাকারীরা স্থানীয়ভাবে আল-শাবাব নামে পরিচিত একটি সংগঠনের সদস্য। তবে একই নামের সোমালি সংগঠনটির সঙ্গে তাদের কোনও যোগসূত্র রয়েছে বলে জানা যায়নি।

jagonews24

শুক্রবার এক বিবৃতিতে হিউম্যান রাইটস ওয়াচ জানিয়েছে, আল-শাবাব সদস্যরা মানুষ ও ভবনগুলোর দিকে এলোপাতাড়ি গুলি চালালে অনেকে মারা গেছেন। রাস্তায় মরদেহ পড়ে থাকতে দেখা গেছে বলে জানিয়েছে তারা।

দক্ষিণ আফ্রিকার সংবাদমাধ্যম নিউজ২৪ জানিয়েছে, ওই হামলায় একজন দক্ষিণ আফ্রিকান নাগরিকও নিহত হয়েছেন।

মোজাম্বিক সরকার হামলার সত্যতা নিশ্চিত করে জানিয়েছে, সেনারা হামলাকারীদের উচ্ছেদে পাল্টা আক্রমণ শুরু করেছে।

হামলার শিকার এলাকাটিতে ফরাসি তেল কোম্পানি টোটালের ২০ বিলিয়ন ডলারের প্রকল্প রয়েছে, যা আফ্রিকার ভেতর বৃহত্তম। এছাড়া এক্সনমোবিলসহ আরও অন্তত ছয়টি আন্তর্জাতিক প্রতিষ্ঠানের কার্যক্রম রয়েছে সেখানে।

কেএএ/এএসএম

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]