মিয়ানমারে নিরাপত্তা বাহিনীর অভিযানে ১১ বিক্ষোভকারী নিহত

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
আন্তর্জাতিক ডেস্ক আন্তর্জাতিক ডেস্ক
প্রকাশিত: ০৩:১০ পিএম, ০৮ এপ্রিল ২০২১

মিয়ানমারের বৃহস্পতিবার নিরাপত্তা বাহিনী ১১ জন অভ্যুত্থানবিরোধী বিক্ষোভকারীকে গুলি করে হত্যা করেছে। খবর রয়টার্সের।

উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলের তেইজ শহরে নিরাপত্তা বাহিনী ছয় ট্রাকভর্তি সেনা সদস্য নিয়ে অভিযান শুরু করে। তখন বিক্ষোভকারীরা শিকারি বন্দুক, ছুরি ও পেট্রোল বোমা নিয়ে নিরাপত্তা বাহিনীর বিরুদ্ধে পাল্টা প্রতিরোধ গড়ে তোলার চেষ্টা করে। এসময় সেনাসদস্যদের আরও পাঁচটি ট্রাক ঘটনাস্থলে এসে হাজির হয়। বৃহস্পতিবার সকাল পর্যন্ত সংঘর্ষ চলে। দুই পক্ষের মধ্যে গোলাগুলিতে অন্তত ১১ জন বিক্ষোভকারী নিহত ও আরও ২০ জন আহত হন। সংঘর্ষে কোনো সেনা সদস্যের হতাহত হওয়ার খবর পাওয়া যায়নি।

বৃহস্পতিবার জুতায় ফুল দিয়ে নিহতদের স্মরণের মাধ্যমে জান্তা সরকারের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ জানিয়েছেন বিক্ষোভকারীরা। এদিকে এদিক পাইং তাখন নামে এক জনপ্রিয় মডেল ও অভিনেতাকে আটক করেছে নিরাপত্তা বাহিনী।

পাইং তাখনের বোন থি থি লুইন রয়টার্সকে বলেন, নিরাপত্তা বাহিনী ভোর ৪:৩০ মিনিটের দিকে ইয়াঙ্গুনে তাদের পৈত্রিক বাড়ি থেকে তার ভাইকে আটক করে নিয়ে যায়। সেই বাড়িতে অসুস্থ অবস্থায় বেশ কিছুদিন ধরে ছিলেন পাইং।

তিনি আরও বলেন, নিরাপত্তা বাহিনী আটটি ট্রাক নিয়ে হাজির হয় যাতে ৫০ জন সেনাসদস্য ছিল। পাইংকে কোথায় নিয়ে যাওয়া হয়েছে তা জানা যায়নি। পাইং তাখন ম্যালেরিয়া ও হৃদরোগের সমস্যায় ভুগছিলেন বলে জানান তার বোন।

মঙ্গলবার মিয়ানমারের সবচেয়ে জনপ্রিয় কমেডিয়ান জারগানাকে আটক করা হয়। এ সপ্তাহে শতাধিক ব্যক্তির ওপর গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেছে প্রশাসন। এদের মধ্যে অভিনেতা, শিল্পী, সঙ্গীতশিল্পীসহ অনেকে রয়েছেন।

বুধবার অভ্যুত্থানবিরোধী বিক্ষোভে গুলি চালিয়ে অন্তত ১৫ জনকে হত্যা করেছে নিরাপত্তা বাহিনী। আহত হয়েছেন আরও অনেকে।

অভ্যুত্থানবিরোধী বিক্ষোভ শুরু হওয়ার পর থেকে মিয়ানমারে নিরাপত্তা বাহিনীর গুলিতে এ পর্যন্ত প্রায় ছয়শো বিক্ষোভকারী নিহত হয়েছেন। এছাড়া আটক রয়েছেন ২ হাজার ৮৪৭ জন।

এদিকে, বুধবার ব্রিটেনে অবস্থিত মিয়ানমারের দূতাবাস সেনাবাহিনী নিয়ন্ত্রণে নিয়েছে। রাষ্ট্রদূত কিয়াও জর মিন জানিয়েছেন, দূতাবাসে তাকে প্রবেশ করতে দেয়া হচ্ছে না।

তিনি বলেন, মিয়ানমারের সামরিক অ্যাটাশে দূতাবাসের কর্মীদের ভবন ছাড়তে নির্দেশ দিয়েছেন এবং তিনি আর ব্রিটেনে মিয়ানমারের প্রতিনিধি নয় বলে তাকে জানানো হয়েছে।

এমকে/জেআইএম

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]