নাভালনি মারা গেলে রাশিয়াকে পরিণতি ভোগ করতে হবে : যুক্তরাষ্ট্র

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
আন্তর্জাতিক ডেস্ক আন্তর্জাতিক ডেস্ক
প্রকাশিত: ১২:০৬ পিএম, ১৯ এপ্রিল ২০২১

রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের সমালোচক ও প্রধান বিরোধী দলের নেতা আলেক্সেই নাভালনি কারাগারে মারা গেলে রাশিয়াকে এর পরিণতি ভোগ করতে হবে বলে সতর্ক করে দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। খবর বিবিসির।

যুক্তরাজ্য, ফ্রান্স, জার্মানি ও ইউরোপীয় ইউনয়নও তার চিকিৎসার ব্যাপারে উদ্বেগ প্রকাশ করেছে।

নাভালনির চিকিৎসকরা বলেছেন, কোমরের ব্যথা ও পা অবশ হয়ে যাওয়ার চিকিৎসা না করালে নাভালনি আগামী কয়েক দিনের মধ্যে মারা যেতে পারেন।

এদিকে, যুক্তরাজ্যে নিযুক্ত রাশিয়ার রাষ্ট্রদূত বলেছেন, নাভালনি মনোযোগ আকর্ষণ করতে চাইছেন এবং তাকে কারাগারে মারা যেতে দেয়া হবে না।

ভ্লাদিমির পুতিনের একজন কড়া সমালোচক, ৪৪ বছর বয়সী নাভালনিকে আত্মসাতের একটি পুরানো মামলায় ফেব্রুয়ারিতে বন্দি করা হয়। নাভালনি দাবি করেছেন, এই মামলা রাজনৈতিক উদ্দেশ্যপ্রণোদিত।

নিজের মেডিক্যাল টিমের সঙ্গে সাক্ষাৎ করতে না দেয়ায় তিনি গত ৩১ মার্চ থেকে অনশন শুরু করেছেন। তার চিকিৎসকরা বলেছেন, সর্বশেষ রক্ত পরীক্ষায় দেখা গেছে তার কিডনি অকার্যকর হয়ে যেতে পারে এবং যে কোনো মুহূর্তে তার হৃদস্পন্দন বন্ধ হয়ে যেতে পারে।

রোববার বেশ কয়েকটি দেশ রাশিয়ার কারাগারে নাভালনির চিকিৎসার জন্য আন্তর্জাতিক আন্দোলনে যোগ দিয়েছে। মস্কো থেকে একশ কিলোমিটার পূর্বে পোকরভ শহরের কারাগারে বন্দি আছেন তিনি।

যুক্তরাষ্ট্রের জাতীয় নিরাপত্তা বিষয়ক উপদেষ্টা জেইক সালিভ্যান সিএনএনকে বলেছেন, ‘জনাব নাভালনি মারা গেলে পরিণতি আসবে এবং রাশিয়ার কাছে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় জবাবদিহি দাবি করবে।’

এদিকে মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন বলেছেন, ‘তার (নাভালনির) চিকিৎসা পুরোপুরি অসমীচীন ও পুরোপুরি অনুপযুক্ত।’

ইউরোপীয় ইউনিয়নের (ইইউ) নেতারা সোমবার নাভালনির বিষয়ে আলোচনায় বসবেন বলে আশা করা হচ্ছে। ইইউর শীর্ষ কূটনীতিক জোসেপ বোরেল বলেছেন, নাভালনির অবস্থা নিয়ে ইইউ গভীরভাবে উদ্বিগ্ন এবং তার মেডিক্যাল টিমকে অনুমতি দেয়ার জন্য ইইউ কারা কর্তৃপক্ষের প্রতি আহ্বান জানিয়েছে।

যুক্তরাজ্যের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক বিবৃতিতে বলা হয়েছে, ‘স্বাধীনভাবে চিকিৎসা সেবা নিতে নাভালনিকে অনতিবিলম্বে সুযোগ দিতে হবে। রাজনৈতিক উদ্দেশ্যপ্রণোদিত কারাদণ্ড থেকে তাকে দ্রত মুক্তি দেয়ার জন্য আমরা আবারও আহ্বান জানাচ্ছি।’

যুক্তরাষ্ট্রের ক্যালিফোর্নিয়ায় পড়াশোনা করছেন নাভালনির ২০ বছর বয়সী মেয়ে দারিয়া নাভালনায়া। তিনি টুইটারে লিখেছেন, ‘আমার বাবাকে দেখার জন্য চিকিৎসককে অনুমতি দিন।’

রাশিয়ায় নাভালনির সমর্থকরা বুধবার দেশব্যাপী বিক্ষোভের আয়োজন করতে যাচ্ছে। তারা বলেছেন, ‘এমন পরিস্থিতি আসে যখন আপনাকে দ্রুত পদক্ষেপ নিতে হবে, অন্যথায় অপূরণীয় ক্ষতি হয়ে যাবে।’

এমকে/জিকেএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]