মৃত্যুদণ্ড কার্যকরের শীর্ষে মধ্যপ্রাচ্যের দেশগুলো

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
আন্তর্জাতিক ডেস্ক আন্তর্জাতিক ডেস্ক
প্রকাশিত: ১০:৫৭ এএম, ২১ এপ্রিল ২০২১

বিশ্বে মৃত্যুদণ্ড কার্যকরের শীর্ষে রয়েছে মধ্যপ্রাচ্যের দেশগুলো। ২০২০ সালে মৃত্যুদণ্ড কার্যকরে শীর্ষ পাঁচটি দেশের মধ্যে চারটিই মধ্যপ্রাচ্যের। মানবাধিকার সংস্থা অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনালের মৃত্যুদণ্ড বিষয়ক বার্ষিক প্রতিবেদনে এ তথ্য উঠে এসেছে। খবর বিবিসির।

২০২০ এ প্রতিবেদনে বলা হয়, গত বছর বিশ্বে মোট ৪৮৩টি মৃত্যুদণ্ড কার্যকরের ঘটনা ঘটেছে। এর মধ্যে ৮৮ শতাংশই কার্যকর হয়েছে শুধুমাত্র ইরান, মিসর, ইরাক ও সৌদি আরবে।

এতে বলা হয়, করোনাভাইরাস মহামারির চ্যালেঞ্জ সত্ত্বেও এই দেশগুলো মানুষকে মৃত্যুদণ্ড দেয়ার ‘নির্মম ও শীতল’ কার্যক্রম পরিচালনা করে আসছে।

এই সংখ্যাটি গত এক দশকের মধ্যে সবচেয়ে কম এবং এতে চীনকে অন্তর্ভুক্ত করা হয়নি। ধারণা করা হয়, চীনে প্রতিবছর হাজার হাজার মৃত্যুদণ্ড কার্যকরের ঘটনা ঘটে। তবে মৃত্যুদণ্ড কার্যকরের প্রকৃত সংখ্যা জানা অসম্ভব কারণ এটিকে রাষ্ট্রীয় গোপনীয় তথ্য হিসেবে জনসম্মুখে প্রকাশ করা হয় না।

২০১৯ সালে মধ্যপ্রাচ্য ও উত্তর আফ্রিকায় মোট মৃত্যুদণ্ড কার্যকর হয়েছিল ৫৭৯টি। ২০২০ সালে তা কমে ৪৩৭ তে নেমে এসেছে।

এর মধ্যে সৌদি আরবে গত বছর মৃত্যুদণ্ড কার্যকরের ঘটনা ৮৫ শতাংশ কমেছে। মোট ২৭টি মৃত্যুদণ্ড কার্যকর হয়েছে। এছাড়া ইরাকে কমেছে ৫০ শতাংশ- মোট ৪৫টি।

তবে মিসরে উলটো চিত্র দেখা গেছে। দেশটিতে গত বছর মৃত্যুদণ্ড কার্যকরের হার বেড়েছে তিনশ শতাংশ। ২০২০ সালে ১০৭ জনের মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করে দেশটি। এর ফলে বিশ্বে সবচেয়ে বেশি মৃত্যুদণ্ড কার্যকরের তালিকায় তৃতীয় অবস্থানে রয়েছে মিসর।

ইরানে গত বছর ২৪৬টি মৃত্যুদণ্ড কার্যকরের ঘটনা ঘটেছে। মৃত্যুদণ্ড কার্যকরের তালিকায় দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছে দেশটি। চীনের পরেই এর অবস্থান।
আমনেস্টি জানায়, ইরানের প্রশাসন সরকারের বিরোধীতাকারী, বিক্ষোভকারী ও ক্ষুদ্র জাতিসত্তার সদস্যদের দমন করতে ‘রাজনৈতিক অস্ত্র হিসেবে’ মৃত্যুদণ্ডের বিধানের ব্যবহার বৃদ্ধি করেছে।

দেশটিতে তিনটি মৃত্যদণ্ড কার্যকরের ঘটনা ঘটেছে যেখানে দণ্ডপ্রাপ্তদের বয়স ১৮ বছরের কম ছিল। এটি আন্তর্জাতিক মানবাধিকার আইনের লঙ্ঘন।

কাতার ২০ বছরের মধ্যে গত বছর প্রথম একটি মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করায় দেশটি ‘আশংকাজনকভাবে পিছিয়েছে’ বলে উল্লেখ করেছে অ্যামনেস্টি।

সৌদি আরবে মাদক সংক্রান্ত অপরাধে মৃত্যুদণ্ড স্থগিত করায় মৃত্যুদণ্ড কার্যকরের ঘটনা হ্রাস পেছে। তবে অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল বলছে, জি২০ দেশগুলোর প্রেসিডেন্ট হিসেবে সমালোচনা এড়াতেও দেশটির সরকার মৃত্যুদণ্ডের সংখ্যা কমিয়েছে।

এমকে/এএসএম

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]