বোমা হামলায় আহত মালদ্বীপের সাবেক প্রেসিডেন্টের অবস্থা সঙ্কটাপন্ন

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
আন্তর্জাতিক ডেস্ক আন্তর্জাতিক ডেস্ক
প্রকাশিত: ০৭:৫৬ পিএম, ০৭ মে ২০২১

বোমা হামলায় আহত মালদ্বীপের সাবেক প্রেসিডেন্ট ও সংসদের বর্তমান স্পিকার মোহাম্মাদ নাশিদের অবস্থা সঙ্কটাপন্ন পর্যায়ে রয়েছে। বেশ কয়েকটি অস্ত্রপচারের পর তিনি সংকটাপন্ন অবস্থায় রয়েছেন বলে জানিয়েছেন চিকিৎসকরা।

৫৩ বছর বয়সী নাশিদ বৃহস্পতিবার রাজধানী মালের বাড়ি থেকে বের হয়ে তার গাড়িতে প্রবেশের সময় পাশে থাকা একটি মোটরবাইকে লাগানো বোমা বিস্ফোরিত হয়। মালের অধিবাসীরা জানান, বোমার শব্দ পুরো শহর জুড়ে শোনা গেছে।

বোমায় নাশিদের দেহে কয়েক জায়গায় আঘাত লাগে। তাকে এডিকে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার পর কয়েকটি ‘সফল’ অস্ত্রপচার করা হয়। শুক্রবার বিকেলে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ জানায়, নাশিদ ‘একটি সফল, চূড়ান্ত সঙ্কটাপন্ন, জীবন রক্ষাকারী প্রক্রিয়ার মধ্য দিয়ে গেছেন’।

টুইটারে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ জানায়, ‘গত ১৬ ঘন্টা ধরে আমরা তার মাথা, বুক, পাকস্থলি ও অঙ্গে অস্ত্রপচার করেছি। তিনি ইন্টেনসিভ কেয়ারে গুরুতর পরিস্থিতিতে রয়েছেন।’

এর আগে নাশিদের ভাই নাজিম সাত্তার শুক্রবার টুইট করেন, ‘তারা অস্ত্রপচার সম্পন্ন করেছেন এবং সুস্থ হতে এখন দীর্ঘ পথ বাকি।’

ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী এস জয়শঙ্কর নাশিদের বিষয়ে গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করে বলেছেন, তাকে ‘কখনো ভয় দেখানো যাবে না’।

মামুন আবদুল গাইয়ুমের ৩০ বছরের শাসনের পর মোহাম্মাদ নাশিদ ২০০৮ সালে মালদ্বীপে প্রথম গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়ায় প্রেসিডেন্ট হিসেবে নির্বাচিত হন।

২০১২ সালে অভ্যুত্থানের মাধ্যমে নাশিদ ক্ষমতাচ্যুত হন। এর পরের বছর বিতর্কিত নির্বাচনে গাইয়ুমের সৎ ভাই আবদুল্লা ইয়ামিনের কাছে তিনি পরাজিত হন।

২০১৫ সালে নাশিদকে সন্ত্রাসবাদের অভিযোগে ১৩ বছরের কারাদণ্ড দেয় মালদ্বীপের আদালত। এই রায় রাজনৈতিক উদ্দেশ্যপ্রণোদিত ভাবে দেয়া হয়েছে এমন অভিযোগে বিশ্বব্যাপী সমালোচনা তৈরি হয়। এর এক বছর পর লন্ডনে চিকিৎসা নিতে তিনি জেল থেকে ছাড়া পান। ২০১৬ সাল থেকে তিনি লন্ডনে আশ্রয়প্রার্থী হিসেবে থাকেৎ। ২০১৮ সালে নাশিদের মনোনিত প্রার্থী সোলিহ প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে জয়লাভ করার পর তিনি মালদ্বীপে ফিরে আসেন।

২০১৯ সালে নাশিদ সংসদীয় নির্বাচনে অংশ নিয়ে স্পিকার হিসেবে নির্বাচিত হন। এটি মালদ্বিপের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ক্ষমতাধর পদ।

এমকে/জেআইএম

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]