আরও প্রায় ২৩ হাজার কোটি টাকা দান করলেন ম্যাকেঞ্জি স্কট

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
আন্তর্জাতিক ডেস্ক আন্তর্জাতিক ডেস্ক
প্রকাশিত: ০৪:১৫ পিএম, ১৬ জুন ২০২১

বিলিয়নিয়ার ম্যাকেঞ্জি স্কট মঙ্গলবার জানিয়েছেন, তিনি আরও ২৭০ কোটি ডলার অনুদান দিয়েছেন (বাংলাদেশি মুদ্রায় ২২ হাজার ৮৮৫ কোটি)। প্রায় ৩০০টি সংস্থায় এ অর্থ অনুদান দিয়েছেন তিনি। ম্যাকেঞ্জি বলেছেন, ঐতিহাসিকভাবে এই সংস্থাগুলোকে উপেক্ষা করা হয়েছে এবং এরা আগে অনুদান পায়নি। খবর রয়টার্সের।

অ্যামাজনের প্রতিষ্ঠাতা জেফ বেজোসের সঙ্গে ২০১৯ সালে ছাড়াছাড়ি হয়ে যাওয়ার পর এ পর্যন্ত তিনটি ধাপে ৮০০ কোটি ডলারেরও বেশি (বাংলাদেশি মুদ্রায় ৬ হাজার ৭৮০ কোটি টাকার বেশি) অর্থ দান করেছেন ম্যাকেঞ্জি। এসব অনুদানের খবর প্রতিবারই হঠাৎ করে প্রকাশ করা হয়েছে।

গত বছর করোনা মহামারির সময় তিনি বিনামূল্যে খাদ্য প্রদানকারী সংস্থা ও জরুরি ত্রাণ তহবিলে ৪০০ কোটি ডলারের বেশি অর্থ দান করেছেন। এর এক মাস আগে বর্ণ সমতা, এলজিবিটিকিউ অধিকার ও জলবায়ু পরিবর্তনরোধে ১৭০ কোটি ডলার দান করেন।

গত মার্চে সিয়াটলের বিজ্ঞান শিক্ষক ড্যান জেওয়েটকে বিয়ে করেন ম্যাকেঞ্জি। জেফ বেজোসের সঙ্গে তালাকের অংশ হিসেবে তিনি আমাজনের ৪ শতাংশ মালিকানা পান। এরপর তিনি ঘোষণা করেন, সম্পদের অধিকাংশই তিনি দান করে দেবেন। ম্যাকেঞ্জির বর্তমান সম্পদ ৬ হাজার কোটি ডলার। বর্তমানে বিশ্বের বিশতম ধনী ব্যক্তি তিনি।

মিডিয়াম নামক ওয়েবসাইটের ব্লগ পোস্টে ম্যাকেঞ্জি লিখেছেন, এসব অনুদানে নিজেকে ও ড্যানকে আলোচনার কেন্দ্রবিন্দুতে না রেখে কীভাবে অনুদান পাওয়া সংস্থাগুলোকে আলোচনায় আনা যায় তা নিয়ে তাকে বেশ ভাবতে হয়েছে।

ম্যাকেঞ্জি বলেন, ‘আমি, ড্যান এবং গবেষক, প্রশাসক ও উপদেষ্টারা মিলে অর্থ অনুদানের উদ্যোগ নিয়েছিল যা পরিবর্তন আনার উদ্দেশ্যে তৈরি করা হয়েছিল।’

তিনি আরও বলেন, ‘এই প্রচেষ্টার অংশ হিসেবে, আমরা একটি নম্র বিশ্বাস দ্বারা পরিচালিত হয়েছি যে বিপুল পরিমাণ সম্পদ যদি অল্প কিছু মানুষের হাতে কেন্দ্রীভূত না থাকে তাহলে ভালো হয়।’

যেসব প্রতিষ্ঠানে তিনি অনুদান দিয়েছেন তার মধ্যে রয়েছে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান যেমন ক্যালিফোর্নিয়ার স্কুল, টেক্সাস স্টেট ইউনিভার্সিটি ও কমিউনিটি কলেজ, রয়েছে আর্ট সেন্টার যেমন অ্যাপোলো থিয়েটার। এছাড়া বর্ণ ও লিঙ্গ সমতা প্রতিষ্ঠার জন্য কাজ করা বিভিন্ন সংগঠন।

এমকে/জিকেএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]