জম্মু-কাশ্মীর ও লাদাখকে আলাদা দেশ দেখিয়ে বিতর্কে টুইটার

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
আন্তর্জাতিক ডেস্ক আন্তর্জাতিক ডেস্ক
প্রকাশিত: ০৫:৩৪ পিএম, ২৮ জুন ২০২১

সম্প্রতি নতুন ডিজিটাল আইনসহ নানা ইস্যুতে ভারত সরকার ও টুইটারের মধ্যে বিরোধ চলছে। সেই বিরোধে ঘি ঢেলেছে মাইক্রোব্লগিং সাইট টুইটার। এবার প্রতিষ্ঠানিটি জম্মু-কাশ্মীর ও লাদাখকে দেখিয়েছে ভারত থেকে আলাদা করে। অর্থাৎ আলাদা দেশ হিসাবে। টুইটারের 'টুইপ লাইফ' বিভাগে ভারতের যে মানচিত্র আপলোড করা রয়েছে সেখানে জম্মু-কাশ্মীর এবং লাদাখকে দেখানো হচ্ছে ভারতের মানচিত্রের বাইরে। এ নিয়ে ভারতজুড়ে শুরু হয়েছে নতুন বিতর্ক।

শুরুতে ভারতীয় এক ব্যক্তি দাবি করেন, টুইটারে ভারতের যে ম্যাপ দেখাচ্ছে, তাতে জম্মু-কাশ্মীর এবং লাদাখ অন্তর্ভুক্ত নেই। তার অভিযোগ টুইটারের নিজস্ব ওয়েবসাইটে জম্মু -কাশ্মীর এবং লাদাখকে দুটি পৃথক দেশ হিসাবে দেখাচ্ছে। পরে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে তা নিয়ে শুরু হয় নানা সমালোচনা।

টুইটারের এমন আচরণে নড়েচড়ে বসেছে ভারত সরকার। ভারতীয় গণমাধ্যমগুলো বলছে, এর বিরুদ্ধে পদক্ষেপ নেয়া হবে বলে জানিয়েছে মোদি প্রশাসন।

নতুন ডিজিটাল আইন নিয়ে এমনিতেই বেশ কিছুদিন ধরে টুইটারের সঙ্গে বিরোধ চলছে ভারতের। নতুন এ আইনে ইন্টারনেটে প্রকাশিত যাবতীয় লেখা, ভিডিও এবং পোস্টের উৎস সরকারকে জানানোর নির্দেশ রয়েছে। কিন্তু টুইটারের দাবি, এই আইন সংবিধানে উল্লেখিত বাক স্বাধীনতার পরিপন্থী।

এর আগেও একবার লাদাখকে ভারতের বাইরে দেখিয়েছিল টুইটার। পরে অবশ্য সেই ভুল শুধরে নিয়েছিল মাইক্রোব্লগিং সাইটটি। কিন্তু ফের একই কাজে প্রশ্নের মুখে পড়েছে টুইটার।

আগে কোনো টুইটার ব্যবহারকারীর পোস্টের জন্য প্রতিষ্ঠানিটেকে দায়ী করে মামলা করা যেতো না ভারতে। কিন্তু গত ১৬ জুন ভারতে এমন আইনি সুরক্ষা হারিয়েছে টুইটার। এছাড়া সম্প্রতি টুইটার ব্যবহার করে ভারতে সাম্প্রদায়িক ইন্ধন যোগানোর অভিযোগ উঠেছে। এমন অভিযোগে মামলাও হয়েছে বেশ কয়েকটি।

এদিকে ভারতের নতুন ডিজিটাল আইন নিয়ে দেশটির সরকারের সাথে বিরোধরোধে সংস্থাটি একজন শীর্ষ কর্মকর্তা নিয়োগ দিয়েছিল। সম্প্রতি তিনিও সরে দাঁড়িয়েছেন তার পদ থেকে।

 

এএমকে/এএসএম

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]