চীনের হেনান প্রদেশে ‘হাজার বছরের সর্বোচ্চ বৃষ্টিপাত’, মৃত ২৫

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
আন্তর্জাতিক ডেস্ক আন্তর্জাতিক ডেস্ক
প্রকাশিত: ০৬:৫০ পিএম, ২১ জুলাই ২০২১
ছবি : সংগৃহীত

চীনের মধ্যাঞ্চলীয় হেনান প্রদেশে বন্যায় কমপক্ষে ২৫ জন মারা গেছেন। এদের মধ্যে অন্তত এক ডজনের মৃত্যু হয়েছে একটি সাবওয়ে রেলের মধ্যে আটকাপড়ে। বন্যার কবল থেকে জীবনরক্ষায় হেনানের রাজধানী ঝেংঝু থেকে প্রায় এক লাখ মানুষকে নিরাপদ আশ্রয়ে সরিয়ে নেয়া হয়েছে। স্থানীয় আবহাওয়াবিদরা বলছেন, গত কয়েকদিনে এ অঞ্চলে যে পরিমাণ বৃষ্টিপাত হয়েছে, তা গত এক হাজার বছরেও দেখা যায়নি।

বার্তা সংস্থা রয়টার্স জানিয়েছে, গত শনিবার থেকে মঙ্গলবার পর্যন্ত ঝেংঝুতে ৬১৭ দশমিক ১ মিলিমিটার (২৪ দশমিক ৩ ইঞ্চি) বৃষ্টিপাত হয়েছে, যা সেখানকার বার্ষিক গড় বৃষ্টিপাতের প্রায় সমান (৬৪০ দশমিক ৮ মিলিমিটার বা ২৫ দশমিক ২ ইঞ্চি)। স্থানীয় আবহাওয়াবিদরা বলছেন, গত তিনদিনে এ অঞ্চলে যে পরিমাণ বৃষ্টিপাত হয়েছে, তা শুধু ‘হাজার বছরে একবারই’ দেখা যায়।

মুষলধারে বৃষ্টির প্রভাবে সৃষ্ট বন্যার কারণে ঝেংঝুর রেল ও সড়ক যোগাযোগ বিঘ্নিত হচ্ছে। বাঁধ ও জলাধারগুলোতে পানির উচ্চতা ফুলেফেঁপে উঠেছে। দুর্যোগ মোকাবিলায় প্রদেশজুড়ে কয়েক হাজার সেনা মোতায়েন করা হয়েছে।

China-2.jpg

নগর কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, তারা ইতোমধ্যে বন্যার কবলে পড়া সাবওয়ে থেকে পাঁচ শতাধিক যাত্রীকে বের করে এনেছে। এর আগে, একটি সাবওয়ে ট্রেনের ভেতর যাত্রীরা বুকপানিতে দাঁড়ানো এবং একটি স্টেশন পুলে পরিণত হওয়ার ছবি সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ে।

উদ্ধার হওয়া এক যাত্রী সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে লিখেছেন, পানি আমার বুক পর্যন্ত পৌঁছে গিয়েছিল। আমি খুবই ভয় পেয়েছিলাম। তবে সবচেয়ে বড় ভয়ের কারণ পানি নয়, বগিতে বাতাস সরবরাহ কমে যাওয়া ছিল।

স্থানীয় এক বাসিন্দা জানান, প্রবল বৃষ্টিতে বাস চলাচল বন্ধ করে দেয়া হয়েছিল। এ কারণেই অনেক লোক সাবওয়েতে ওঠেন, আর ট্রাজেডি ঘটে।

China-2.jpg

বুধবার সংবাদ সম্মেলনে এক কর্মকর্তা জানিয়েছেন, প্রবল বৃষ্টিপাতের প্রভাবে গত কয়েকদিনে এ অঞ্চলে অন্তত ২৫ জন মারা গেছেন। নিখোঁজ রয়েছেন আরও সাতজন।

আবহওয়ার পূর্বাভাস বলছে, বন্যায় আক্রান্ত হেনান প্রদেশে আগামী তিনদিনে আরও বৃষ্টিপাত হতে পারে।

অনুসন্ধান ও উদ্ধার তৎপরতায় সহযোগিতার জন্য সেখানে পিপলস লিবারেশন আর্মির অন্তত ৫ হাজার ৭০০ সেনা ও কর্মকর্তাকে পাঠানো হয়েছে বলে জানা গেছে।

কেএএ/এমএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]