হংকংয়ে বিতর্কিত নিরাপত্তা আইনে এক ব্যক্তির ৯ বছর কারাদণ্ড

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
আন্তর্জাতিক ডেস্ক আন্তর্জাতিক ডেস্ক
প্রকাশিত: ০৪:১০ পিএম, ৩০ জুলাই ২০২১
ছবি: সংগৃহীত

হংকংয়ের বিতর্কিত জাতীয় নিরাপত্তা আইনে প্রথমবারের মতো অভিযুক্ত এক ব্যক্তিকে ৯ বছরের কারাদণ্ড দিয়েছে দেশটির আদালত। শুক্রবার এ রায় ঘোষণা করা হয় বলে বিবিসির খবরে জানানো হয়েছে। সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড ও বিচ্ছিন্নতাবাদ উস্কে দেয়ার দায়ে তং ইং কিতকে এ সাজা দেয়া হলো।

সড়কে টহলরত একদল পুলিশ কর্মকর্তার ওপর মোটরবাইক তুলে দেয়ার অভিযোগে গত বছরের জুলাই মাসে ২৪ বছর বয়সী তং ইং কিতকে আটক করা হয়। সেসময় তার কাছে থাকা কালো রংয়ের পতাকায় ‘হংকংকে স্বাধীন করাই আমাদের সময়ের বিপ্লব’ এমন একটি স্লোগান লেখা ছিল।

২০২০ সালে চীন বিতর্কিত জাতীয় নিরাপত্তা আইন পাস করার পর থেকে একশো জনের বেশি মানুষকে আটক করা হয়েছে। এ রায় চীন নিয়ন্ত্রিত শহরটিতে গণতন্ত্রপন্থিদের আন্দোলনে বড় ধরনের প্রভাব ফেলবে বলে ধারণা করা হচ্ছে। তবে শহরে স্থিতিশীলতা আনতেই আইনটি প্রয়োজনীয় হয়ে পড়েছিল এমন দাবি করে আসছে চীন। এই আইনে অপরাধের সর্বোচ্চ শাস্তি যাবজ্জীবন কারাদণ্ডের বিধান রাখা হয়েছে।

সমালোচকরা বলছেন, এই রায়ের মধ্য দিয়ে হংকংয়ের স্বায়ত্তশাসনের পথ রোধ করার চেষ্টা এবং এই আইনের আওতায় সাজা দেয়ার কাজটিও সহজ হয়ে গেল।

অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনালের এশিয়া-প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলের পরিচালক ইয়ামিনি মিশ্র বলেন, তংকে সাজা দেয়ার ঘটনায় এটি বোঝা যায় যে, কথিত সন্ত্রাস দমন নয় বরং এই আইনকে অস্ত্র হিসেবে ব্যবহার করা হবে মত প্রকাশের ক্ষেত্রে।

হংকং চীনের আধা স্বায়ত্তশাসিত অঞ্চল। এই অঞ্চলটি যুক্তরাজ্যের একটি উপনিবেশ ছিল এক সময়। ১৯৯৭ সালে চুক্তির মাধ্যমে হংকংকে চীনের হাতে তুলে দেয়া হয়। সেই চুক্তিতে হংকংয়ের স্বায়ত্তশাসন নিশ্চিত করার কথা বলা হয়। হংকং এক দেশ, দুই নীতির মাধ্যমে পরিচালিত হয়ে আসছে। চুক্তি অনুসারে হংকংয়ে আলাদা বিচার বিভাগ, আইনসভা ও নিরাপত্তা বাহিনী রয়েছে।

এসএনআর/জেআইএম

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]