মিসরের জাদুঘরে এবার ফারাও রাজার নৌকা

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
আন্তর্জাতিক ডেস্ক আন্তর্জাতিক ডেস্ক
প্রকাশিত: ০৮:৪২ পিএম, ০৮ আগস্ট ২০২১
ছবি : সংগৃহীত

খুফু ছিলেন প্রাচীন মিসরের এক ফারাও। তিনি ২৫৮৯ থেকে ২৫৬৬ খ্রিস্টপূর্ব পর্যন্ত রাজত্ব করেন। চতুর্থ রাজবংশের তিনি ছিলেন দ্বিতীয় ফারাও। তাকে গিজার পিরামিডের নির্মাতা হিসেবেও মনে করা হয়। এবার ফারাও রাজা খুফুর অব্যবহৃত ও চার হাজার ছয়শ বছরের প্রাচীন একটি নৌকার ঠাঁই হলো মিসরের জাদুঘরে।

দেশটির পুরার্কীর্তি মন্ত্রণালয় শনিবার এ তথ্য নিশ্চিত করে। খবর এএফপির।

মিসরে প্রত্নতাত্ত্বিক নিদর্শন হিসেবে আবিষ্কৃত এটি হলো সবচেয়ে প্রাচীন ও বৃহত্তম কাঠের নৌকা। এটি লম্বায় ১৩৮ ফুট বা ৪২ মিটার, ওজন ২০ টন।

mishor2

১৯৫৪ সালে প্রথম আবিষ্কার হয় ‘সোলার বোট’। গ্রেট পিরামিডের দক্ষিণ প্রান্ত থেকে খুঁজে পাওয়া নৌকাটি কয়েক দশক ধরে গিজার মালভূমি এলাকায় একটি জাদুঘরে রাখা ছিল।

নীলনদের পশ্চিম তীরে মিসরের দ্বিতীয় বড় শহরটি হলো গিজা। গিজায় থাকা তিনটি পিরামিডের মধ্যে সবচেয়ে বড়টি, গ্রেট পিরামিড বা পিরামিড অব চেওপসেতে আছে সম্রাট খুফুর সমাধিও।

গ্র্যান্ড ইজিপশিয়ান মিউজিয়ামের কর্মকর্তা আতিফ মুফতাহ জানান, বিশাল নৌকাটি স্থানান্তরের উদ্দেশ্যে তৈরি ধাতব একটি বাক্সে নৌকাটিকে আস্ত ঢোকানো হয়। বেলজিয়াম থেকে আনা বিশেষ যানটি মাত্র সাড়ে সাত কিলোমিটার দূরে নতুন জাদুঘরে পৌঁছাতে সময় লাগে প্রায় ১০ ঘণ্টা। পুরো প্রক্রিয়া সম্পন্ন করতে সময় লেগেছে প্রায় ৪৮ ঘণ্টা।

mishor2

প্রাচীন মিসরে রাজ পরিবারের সদস্যদের সমাধিক্ষেত্রে থাকতো এসব নৌকা। মৃত্যুর পরের জীবনে তারা এসব নৌকায় চড়ে ঘুরবেন এমন বিশ্বাসও ছিল প্রাচীন মিসরীয়দের।

এর আগে চলতি বছর এপ্রিলে জাঁকজমকপূর্ণ আয়োজনে নতুন জাদুঘরে স্থানান্তর করা হয় দ্বিতীয় রামেসিস ও রানী হাৎশেপসুৎসহ ফারাও রাজবংশের ২২ সদস্যের মমি। মিসরে এসব মমিকে বিবেচনা করা হয় জাতীয় সম্পদ হিসেবে।

এসএনআর/এমএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]