আফগান হেরোইনের মজুত হঠাৎ ভারতমুখী

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
আন্তর্জাতিক ডেস্ক আন্তর্জাতিক ডেস্ক
প্রকাশিত: ০৫:৪৮ পিএম, ২২ সেপ্টেম্বর ২০২১
ছবি: সংগৃহীত

তালেবানের পুনরুত্থানে বদলে গেছে পরিস্থিতি। আফগানিস্তান থেকে মাদকের বিপুল মজুত সরিয়ে নিতে মরিয়া হয়ে উঠেছে চোরাকারবারিরা। এক্ষেত্রে তাদের অন্যতম প্রধান গন্তব্য হয়ে উঠেছে ভারত। সম্প্রতি গুজরাট উপকূলে অবৈধ হেরোইনের বড় দুটি চালান জব্দের পর এমন সতর্কবার্তা দিয়েছে ভারতীয় গোয়েন্দা ও মাদক নিয়ন্ত্রণ কর্তৃপক্ষগুলো।

টাইমস অব ইন্ডিয়ার খবর অনুসারে, ভারতের মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ ব্যুরো (এনসিবি), রাজস্ব গোয়েন্দা অধিদপ্তর (ডিআরআই) ও গুজরাট সন্ত্রাসবিরোধী স্কোয়াডের (এটিএস) কর্মকর্তারা নিশ্চিত করেছেন, আফগানিস্তানে উৎপাদিত হেরোইন ভারতে ঢোকানোর চেষ্টা চলছে। এক্ষেত্রে চোরাকারবারিরা ইরানের সমুদ্রপথ ব্যবহার করছে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

ভারতীয় কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, তালেবানের হাতে হেরোইনের মজুদ বাজেয়াপ্ত হওয়ার আশঙ্কা করছে মাদক কারবারিরা। এতে আর্থিক ক্ষতির পাশাপাশি তাদের ভয় রয়েছে যে, আফগানিস্তানের নতুন শাসকদের হাতে ধরা পড়লে সরাসরি মৃত্যুদণ্ডও হতে পারে। এসব কারণ ভারতে মাদকের প্রবেশ বেড়ে গেছে।

jagonews24

সংস্থাগুলোর সূত্রের বরাতে টাইমস অব ইন্ডিয়া জানিয়েছে, ভারতীয় জলসীমায় হেরোইনের আরও বড় বড় চালান প্রবেশের ঝুঁকি উড়িয়ে দেওয়া যায় না।

এনসিবির এক জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তা বলেছেন, সম্প্রতি মুন্দ্রা বন্দরে তিন হাজার কেজি হেরোইন পেয়েছে ডিআরআই। সেগুলো আফগানিস্তান থেকে পাচার হয়ে এসেছে। ওরা আফিমের সবচেয়ে বড় উৎপাদক। দেশটিতে আফিম থেকে হেরোইন তৈরির ল্যাব রয়েছে।

তিনি বলেন, মাদক কারবারিরা আগে কখনোই এত বড় চালান ছাড়েনি। সাম্প্রতিক কাজে বোঝা যাচ্ছে, তারা হেরোইনের মজুত সরাতে কতটা মরিয়া। তালেবান যেন তাদের শাস্তি না দেয় বা অবৈধ মাদক জব্দ না করে সেজন্যই মাদক কারবারিরা এমন করছে বলে মনে করছেন ভারতীয় এ কর্মকর্তা।

জাতিসংঘের হিসাবে, ২০১৯ সালে আফগানিস্তানে আফিম চাষে যুক্ত ছিলেন অন্তত ১২ হাজার মানুষ। ধারণা করা হয়, তালেবানের বার্ষিক আয়ের ৬০ শতাংশই আসে আফিম ব্যবসা থেকে।

কেএএ/জিকেএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]