প্যানডোরা পেপারস: অভিযুক্ত বিশ্ব নেতাদের প্রতিক্রিয়া

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
আন্তর্জাতিক ডেস্ক আন্তর্জাতিক ডেস্ক
প্রকাশিত: ০৯:৪১ পিএম, ০৪ অক্টোবর ২০২১

রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন ও জর্ডানের বাদশাহসহ বিশ্বের ৩৫ রাষ্ট্রনেতা, তিন শতাধিক সরকারি কর্মকর্তা, সেনাবাহিনীর শীর্ষ কর্মকর্তা, শতাধিক ধনকুবেরের গোপন সম্পদ ও লেনদেনের তথ্য ফাঁস করে দিয়েছে ‘প্যানডোরা পেপারস’। এর মাধ্যমে গ্রিক উপকথায় বিশ্বের প্রথম মানবী প্যানডোরার বাক্সের মতোই বেরিয়ে আসতে শুরু করেছে বিশ্বের প্রভাবশালীদের গোপন সম্পদের তথ্য।

তবে অনেক বিশ্ব নেতাই তাদের বিরুদ্ধে ওঠা অভিযোগ অস্বীকার করেছেন। কোনো কোনো নেতা আবার এটাকে অপরাধ বলতে নারাজ। সব ভিত্তিহীন বলেও উড়িয়ে দিয়েছেন অনেকে। রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট এবং জর্ডানের বাদশাহ বিবৃতি জারি করে বলেছেন তারা কোনো ভুল করেননি।

জর্ডানের রাজপ্রাসাদ থেকে বলা হয়েছে, বাদশাহ আবদুল্লাহর বিদেশে যে সম্পদ রয়েছে তা অস্বাভাবিক কিছু নয়। সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমগুলোতেও ফাঁস হওয়া তথ্যের কড়া সমালোচনা চলছে জর্ডানে। ফাঁস হওয়া নথিতে দেখা গেছে, জর্ডানের বাদশাহর গোপনে যুক্তরাজ্য, যুক্তরাষ্ট্রসহ কয়েকটি দেশে ১০ কোটি ডলারের সম্পদ রয়েছে।

ক্রেমলিনের মুখপাত্র দিমিত্রি পেসকভ প্রেসিডেন্ট পুতিনের বিরুদ্ধে ওঠা অভিযোগকে ভিত্তিহীন ও অসম্পূর্ণ বলে উড়িয়ে দেন। বলা হয় এ ফাঁস হওয়া তথ্যর কোনো বিশ্বাসযোগ্যতা নেই। তিনি সাংবাদিকদের বলেন, আমরা সেখানে পুতিনের অভ্যন্তরীণ কোনো লুকানো সম্পদ দেখিনি।

এর আগে প্যানডোরা পেপারসে ফাঁস হয়, মোনাকোয় পুতিনের বান্ধবীর একটি বিলাসবহুল ফ্ল্যাট রয়েছে। ২০০৩ সালের সেপ্টেম্বরে একটি গোপন লেনদেনের মাধ্যমে ওই ফ্ল্যাট কেনা হয়।

প্যানডোরা পেপারসে নাম আসা চেক প্রজাতন্ত্রের প্রধানমন্ত্রী আন্দরেজ বাবিস নিজের বিরুদ্ধে আনা সব অভিযোগ অস্বীকার করে টুইট বার্তায় বলেছেন, আসন্ন নির্বাচনে প্রভাব সৃষ্টি করতেই এসব সামনে আনা হচ্ছে। তিনি বলেন, আমি ভুল অথবা অবৈধ কোনো কাজের সঙ্গে জড়িত নই। তবে ফাঁস হওয়া নথিতে তার বিরুদ্ধে ফ্রান্সে দুইটি বাড়ি কেনার অভিযোগ আনা হয়েছে।

প্যানডোরা পেপারসে নাম আসা চিলির প্রেসিডেন্ট সেবাস্তিয়ান পিয়েরাও নিজের বিরুদ্ধে আনা অভিযোগ অস্বীকার করেছেন। তার অফিস থেকে এক বিবৃতিতে এ তথ্য জানানো হয়। তিনি একজন সম্পদশালী ব্যবসায়ী, যার বিরুদ্ধে শৈশবের এক বন্ধুর কাছে পরিবেশগতভাবে সংবেদনশীল এলাকায় একটি তামা এবং লোহার খনি বিক্রির অভিযোগ রয়েছে।

অন্যদিকে প্যানডোরা পেপারসে নাম আসা নাগরিকদের বিষয়ে তদন্তের প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান। ফাঁস হওয়া নথিতে ইমরান খানের মন্ত্রিসভার সদস্যসহ শত শত পাকিস্তানি নাগরিকের নাম উঠে এসেছে যারা অফশোর কোম্পানির মাধ্যমে গোপনে বিপুল সম্পদের মালিক হয়েছেন। কোনো ধরনের অপরাধ প্রমাণিত হলে ব্যবস্থা নেওয়ারও কথা বলেছেন তিনি।

এমএসএম/এএসএম

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]