পূজায় দিনভর অন্ধকারে ত্রিপুরার দুই জেলা

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
আন্তর্জাতিক ডেস্ক আন্তর্জাতিক ডেস্ক
প্রকাশিত: ০৯:৩৩ পিএম, ১৩ অক্টোবর ২০২১

ত্রিপুরা সংবাদদাতা

ভারতের ত্রিপুরায় সাবস্টেশনে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় দিনভর বিদ্যুৎহীন ছিল রাজ্যের দুই জেলা। ভোরে প্রবল ঝড় ও বজ্রপাতের কারণে রাজধানী আগরতলা থেকে প্রায় ৫০ কিলোমিটার দূরে বনদোয়ারে এ ঘটনা ঘটে। এতে পুড়ে ছাই হয়ে যায় সাবস্টেশনে থাকা মূল ট্রান্সফর্মারটি। সঙ্গে সঙ্গেই অন্ধকারে চলে যায় গোটা গোমতী জেলাসহ দক্ষিণ ত্রিপুরা জেলা।

এরপর দিনব্যাপী ট্রান্সফর্মারটি মেরামতের কাজে হাত লাগিয়েও কিছুই করতে পারেননি বিদ্যুৎ দপ্তরের কর্মকর্তারা। পরে সন্ধ্যা ৫টার দিকে ত্রিপুরা স্টেট ইলেকট্রিসিটি করপোরেশনের উচ্চপদস্থ কর্মকর্তারা ছুটে যান ঘটনাস্থলে। যদিও প্রাথমিকভাবে ঘণ্টাদুয়েক যাবৎ ব্যর্থ প্রচেষ্টা চালিয়ে যান তারাও।

বিদ্যুৎ দপ্তর সূত্রে খবর, রাতের মধ্যেই ট্রান্সফর্মারটি মেরামত করে পুনরুদ্ধার করা সম্ভব হয়েছে। তারা জানান, গোমতী জেলার উদয়পুরের কাছে বনদোয়ার এলাকায় এদিন ১৩২ কেভি সাবস্টেশনে অগ্নিকাণ্ড ঘটে। এতে পুরোপুরিভাবেই ভস্মীভূত হয়ে যায় ট্রান্সফর্মারটি। বিশেষ করে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় একটি ৫ এমভিএ ৩৩/১১ কেভি ট্রান্সফর্মার সম্পূর্ণভাবেই ক্ষতিগ্রস্ত হয়। একই সঙ্গে একটি ১৩২/৩৩ (২৫) এমভিএ ট্রান্সফর্মারও বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়। পাঁচটি ক্যাবল ও ছয়টি ট্রান্সফর্মারও ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে বলে দপ্তর সূত্রে জানানো হয়েছে।

এ অবস্থায় সন্ধ্যার পর দুটি জেলাতেই শারদোৎসবের আনন্দ মাটি হয়ে যায়। বিদ্যুৎ বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ে বেশিরভাগ মণ্ডপ। অনেক ক্ষেত্রে পূজার উদ্যোক্তাদের পক্ষ থেকে জেনারেটরের মাধ্যমে বিদ্যুৎ সংযোগের ব্যবস্থা করা হয়।

এ ঘটনার পর বিদ্যুৎ বিভাগের সচিব কিরণ গিত্তে বলেন, সাবস্টেশনের রক্ষণাবেক্ষণে কোনো গাফিলতি ছিল না। এক্ষেত্রে দপ্তরের কোনো কর্মকর্তার গাফিলতি ছিল কি না এ বিষয়ে বিস্তারিত তদন্ত করা হবে।

একই সঙ্গে এ ঘটনার তদন্তের পর কোনো গাফিলতি লক্ষ্য করা গেলে তাদের বিরুদ্ধে কঠোর শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে বলে তিনি জানান।

বিএ/এএসএম

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]