ফরাসি রাষ্ট্রদূতকে বহিষ্কার করলো বেলারুশ

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
আন্তর্জাতিক ডেস্ক আন্তর্জাতিক ডেস্ক
প্রকাশিত: ০৪:১৯ পিএম, ১৮ অক্টোবর ২০২১

ফরাসি রাষ্ট্রদূতকে বেলারুশ থেকে বহিষ্কার করা হয়েছে। জানা গেছে, এরই মধ্যে বেলারুশ ছেড়েছেন রাষ্ট্রদূত নিকোলাস ডি বাউলাইন ডি ল্যাকোস্টে। তবে কেন তাকে বহিস্কার করা হয়েছে সে বিষয়ে স্পষ্টভাবে এখনো কিছু জানা যায়নি। সোমবার (১৮ অক্টোবর) কাতারভিত্তিক সংবাদমাধ্যম আল-জাজিরার এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়।

বেলারুশের বিভিন্ন সংবাদমাধ্যম বলছে, মিনস্ক এরই মধ্যে প্যারিস থেকে তাদের রাষ্ট্রদূত ইগর ফেসেঙ্কোকে ডেকে পাঠিয়েছে। সম্প্রতি নিজের কাজের গুরুত্বপূর্ণ নথি প্রেসিডেন্ট লুকাশেঙ্কোকে না দেখিয়ে তিনি পররাষ্ট্রমন্ত্রীকে দেখিয়েছিলেন বলে তাকে বহিষ্কার করা হয়েছে বলে ধারণা করা হচ্ছে। এছাড়ারও বেলারুশের একটি নিষিদ্ধ এনজিও কর্মকর্তাদের সঙ্গে তিনি বৈঠক করেছেন বলেও অভিযোগ রয়েছে। এ কারণেই বেলারুশের প্রেসিডেন্টে তার ওপর ক্ষুব্ধ ছিলেন।

ফ্রান্সের দূতাবাসের মুখপাত্র বলেন, রাষ্ট্রদূত নিকোলাস ডি ল্যাকোস্টে এরই মধ্যে বেলারুশ ত্যাগ করেছেন। তিনি দূতাবাসের অন্যান্য স্টাফদের বিদায় জানিয়েছেন। এ সময় তিনি বেলারুশের সাধারণ মানুষের উদ্দেশে একটি ভিডিও রেকর্ড করেছেন যা আগামীকাল দূতাবাসের ওয়েব সাইটে প্রকাশ করা হবে।

লুকাশেঙ্কো ষষ্ঠবারের মতো বেলারুশের প্রেসিডেন্ট হিসেবে দায়িত্ব নিয়েছেন গত বছরের আগস্টে। বিতর্কিত নির্বাচনের মাধ্যমে তিনি দায়িত্বগ্রহণ করেছেন বলে অভিযোগ রয়েছে। ফলে অন্যান্য ইউরোপিয়ান দেশগুলোর মতো ফ্রান্স এখন পর্যন্ত তাকে প্রেসিডেন্ট হিসেবে স্বীকৃতি দেয়নি। লুকাশেঙ্কো এসব বিষয়কে শুরু থেকেই ভালোভাবে দেখছেন না। যুক্তরাষ্ট্র, জাতিসংঘ এবং ইউরোপীয় ইউনিয়ন তার বিরুদ্ধে একাধিক নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে।

বেলারুশেও একের পর এক নেতা তার বিরুদ্ধে কার্যত বিদ্রোহ করছেন। লুকাশেঙ্কো এগুলো খুব শক্ত হাতে দমন করছেন। প্রায় সব বিরোধী নেতাকে জেলে ঢুকিয়েছেন তিনি। তাকে যেসব দেশ স্বীকৃতি দেয়নি, তাদের বিরুদ্ধে লুকাশেঙ্কোর অভিযোগ, তার বিরুদ্ধে বিদ্রোহে প্ররোচনা দিচ্ছে তারা।

এমএসএম/টিটিএন/এএসএম

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]