ইরাকের দক্ষিণাঞ্চল: তেলের প্রাচুর্যেও কাটে না অভাব

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
আন্তর্জাতিক ডেস্ক আন্তর্জাতিক ডেস্ক
প্রকাশিত: ০৯:২৯ পিএম, ০৫ নভেম্বর ২০২১

ইরাকের দক্ষিণাঞ্চলীয় প্রদেশ বসারা তেলসহ প্রাকৃতিক সম্পদে পরিপূর্ণ। কিন্তু এ সম্পদের সামান্য অংশই সেখানকার মানুষের হাতে যায়। ঐতিহাসিক এই এলাকার বাসিন্দাদের দৈনিক প্রয়োজন মেটাতেই হিমশিম খেতে হয়। তাদের আয়ের পরিমাণ খুবই সামান্য। তেলের মতো প্রাকৃতিক সম্পদের প্রাচুর্য থাকলেও তাদের জীবনে আসেনি তেমন কোনো পরিবর্তন বা উন্নয়নের ছোঁয়া।

শুক্রবার (৫ নভেম্বর) আরব নিউজের এক প্রতিবেদনে উঠে আসে অঞ্চলটির মানুষের দুর্দশার গল্প।

বসরা শহরে বসবাসকারী ১৭ বছর বয়সী সাজাদ বলছিল, বর্তমান বা ভবিষ্যৎ বলে তার জীবনে কিছু নেই। অন্যান্য কিশোর-যুবকদের মতোই জরাগ্রস্ত এ শহরে সে কেবল বেঁচে আছে।

বসরা প্রদেশে ইরাকের প্রায় ৭০ শতাংশ অপরিশোধিত তেল উৎপাদন হয়। সৌদি আরবের পর মধ্যপ্রাচ্যের দ্বিতীয় বৃহত্তম তেল রপ্তানিকারক দেশ ইরাক। তেলসমৃদ্ধ হওয়া সত্ত্বেও প্রদেশটি নানান সমস্যায় জর্জরিত। ২০০৩ সালে যুক্তরাষ্ট্রের হামলার পরপরই মূলত মধ্যপ্রাচ্যের এ দেশটির অর্থনৈতিক কাঠামো ভেঙে পড়ে। বছরের পর বছর ধরে চলা যুদ্ধে ধ্বংস হয়ে যায় দেশটির সার্বিক ব্যবস্থা। সেই থেকেই দেশটি পুনরায় ঘুরে দাঁড়ানো জন্য চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে।

এক্ষেত্রে সরকারি সঠিক কোনো পরিসংখ্যান না থাকলেও ইরাকি অর্থনীতিবিদ বারিকের অনুমান, বেকারত্বে ভুগছে বসরার মোট জনগোষ্ঠীর ২০-২৫ শতাংশ। এই বেকারদের আবার ৩০ শতাংশ তরুণ বা যুবক।

আর বিশ্বব্যাংকের পরিসংখ্যান অনুযায়ী, ইরাকে ১৩ দশমিক ৭ শতাংশ বেকারত্বে ভুগছে।

অবশ্য ২০২৩ সালে গালফ ফুটবল কাপ ইরাকের বসরায় অনুষ্ঠিত হবে। ওই আয়োজনকে ঘিরে এখানে কিছু বিনিয়োগ হচ্ছে। নির্মাণ করা হচ্ছে স্টেডিয়াম। কিন্তু এসবও জনগণের ভাগ্যের চাকা ফেরাতে পারছে না বলে স্বীকার করছেন সরকারের সংশ্লিষ্টরা।

বসরার ডেপুটি গভর্নর দোরগাম আল-আজওয়াদি বলছিলেন, বিদ্যমান পরিস্থিতিতে জনগণ ক্ষুব্ধ। তিনি বসরার জনগণের বঞ্চনার পেছনে কেন্দ্রীয় সরকারের বাজেটের অসম বণ্টনকে দায়ী করেন।

২০২১ সালে ইরাকের বাজেটের আকার প্রায় ১৩০ ট্রিলিয়ন দিনারের উল্লেখ করে আল-আজওয়াদি বলেন, বসরার জন্য বাজেট ধরা হয় এক ট্রিলিয়নেরও কম, যা মোট বাজেটের শূন্য দশমিক ৭ শতাংশ। অথচ বাজেটের ১০৮ ট্রিলিয়নই সংস্থান হয় বসরা থেকে।

এমএসএম/এইচএ/এএসএম

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]