কৃষকদের চাপে রাসায়নিক সার নিষেধাজ্ঞা থেকে পিছু হটলো শ্রীলঙ্কা

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
আন্তর্জাতিক ডেস্ক আন্তর্জাতিক ডেস্ক
প্রকাশিত: ০৬:২৪ পিএম, ২৪ নভেম্বর ২০২১
ফাইল ছবি

কৃষকদের আন্দোলন এবং খাদ্যপণ্যের দামে ঊর্ধ্বগতি ঠেকাতে অবশেষে রাসায়নিক সার ব্যবহার নিষিদ্ধের সিদ্ধান্ত থেকে সরে আসলো শ্রীলঙ্কা। বুধবার (২৩ নভেম্বর) রাসায়নিক সার ব্যবহার ও আমদানিতে নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার করে নিয়েছে লঙ্কান সরকার। খবর রয়টার্সের।

বিশ্বের প্রথম দেশ হিসেবে শতভাগ জৈব সার ব্যবহারকারী হয়ে উঠতে গত এপ্রিলে রাসায়নিক সার আমদানি ও ব্যবহারে নিষেধাজ্ঞা জারি করে শ্রীলঙ্কা। কিন্তু করোনাভাইরাস সংকটের মধ্যে এমন পরীক্ষা-নিরীক্ষা পছন্দ করেননি অনেকেই, বিশেষ করে কৃষকরা। চরম অর্থনৈতিক সংকটের মধ্যে রাসায়নিক সার আমদানি বন্ধ হয়ে যাওয়া এবং জৈব সারের ঘাটতির নেতিবাচক প্রভাব পড়ে শ্রীলঙ্কার কৃষিতে। যার ফলে আন্দোলনে নামেন দেশটির কৃষকরা।

সিদ্ধান্ত বদলের বিষয়ে লঙ্কান কৃষিমন্ত্রী মহিন্দানন্দ আলুথগামাগে জানিয়েছেন, এখন থেকে শুধু বেসরকারি খাতে রাসায়নিক সার আমদানি হবে। তবে এতে সরকারি ভর্তুকি পুনর্বহাল না হওয়ায় এ ধরনের সারের দাম তুলনামূলক বেশি থাকবে।

তিনি বলেন, কৃষকদের কথায় মন্ত্রিসভা স্বেচ্ছায় রাসায়নিক সার আমদানি নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহারের সিদ্ধান্ত নিয়েছে। কারণ, শ্রীলঙ্কা জনগণের প্রতি সংবেদনশীল একটি দেশ।

জানা যায়, গত ২৬ এপ্রিল থেকে শ্রীলঙ্কায় সব ধরনের রাসায়নিক সার, কীটনাশক, আগাছানাশক ও ছত্রাকনাশকের ওপর নিষেধাজ্ঞা কার্যকর হয়েছিল। এর পরপরই দেশটির হাজার হাজার কৃষক উভয় ধরনের সার ব্যবহারের জন্য একটি হাইব্রিড নীতি গ্রহণের দাবিতে বিক্ষোভ শুরু করেন।

রাসায়নিক সার নিষিদ্ধের পাশাপাশি প্রতিকূল আবহাওয়ার কারণে শ্রীলঙ্কায় ফসল উৎপাদন ব্যাপক হারে কমে গেছে। এর মধ্যে গত অক্টোবরে দেশটিতে মূল্যস্ফীতি দাঁড়িয়েছে ৮ দশমিক ৩ শতাংশ, যা বিগত ৪৭ মাসের মধ্যে সর্বোচ্চ। একই সময় তাদের খাদ্যের মূল্যস্ফীতি হয়েছে ১১ দশমিক ৭ শতাংশ।

আলুথগামাগে জানিয়েছেন, সাম্প্রতিক বাজে আবহাওয়ার কারণে তাদের প্রায় ১৩ হাজার হেক্টর জমির ফসল নষ্ট হয়ে গেছে। তবে এর জন্য সরকার কৃষকদের ক্ষতিপূরণ দেবে।

কেএএ/এএসএম

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]