ভারতে নিজের সন্তানসহ ৫ জনকে হত্যা!

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
আন্তর্জাতিক ডেস্ক আন্তর্জাতিক ডেস্ক
প্রকাশিত: ০৮:৩১ পিএম, ২৭ নভেম্বর ২০২১

ভারতের ত্রিপুরায় পারিবারিক কলহের জেরে ধারালো অস্ত্র দিয়ে নিজের দুই সন্তানসহ পাঁচজনকে হত্যা করেছে এক ব্যক্তি। প্রাণহানি হয়েছে এক পুলিশ কর্মকর্তারও। ঘটনায় জখম হয়েছেন বেশ কয়েকজন। স্থানীয় বেশ কয়েকটি বাড়িতেও সে ব্যাপক ভাঙচুর চালিয়েছে বলেও অভিযোগ উঠেছে। প্রাথমিকভাবে মনে করা হচ্ছে, মানসিক ভারসাম্যহীন হওয়ায় এই কাণ্ড ঘটিয়েছে ওই ব্যক্তি। অভিযুক্তকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

অভিযুক্ত প্রদীপ দেবরায় ত্রিপুরার উত্তর রামচন্দ্রঘাটের শেওড়াতুলির বাসিন্দা। সে পেশায় রাজমিস্ত্রি। স্ত্রীর সামনে ধারাল অস্ত্র দিয়ে দুই কন্যাসন্তানকে কোপায় সে। চোখের সামনে নিজের সন্তানদের ওপর অত্যাচার মানতে পারেননি প্রদীপের স্ত্রী মীনা পাল দেবরায়। দুই সন্তানকে বাঁচাতে যান তিনি। সেই সময় স্ত্রীকে ধারাল অস্ত্র দিয়ে আঘাত করে প্রদীপ। বাড়ি ছেড়ে কোনো ক্রমে পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করেন মীনা। এরপর স্ত্রীকে ধরতে বাড়ি থেকে বেরিয়ে দৌঁড়তে শুরু করে প্রদীপ।

পথে একটি অটো রিকশা দেখতে পায় সে। ওই অটোতে চালকসহ মোট পাঁচজন ছিলেন। হাত নাড়িয়ে অটোটি দাঁড় করায় প্রদীপ। ধারালো অস্ত্র দিয়ে অটোর সামনের কাচে সজোরে আঘাত করে। অটোয় থাকা যাত্রীদেরও আঘাত করে সে। এসময় একজনের গুরুতর আহত হন। খবর পাওয়ার পর ঘটনাস্থলে পৌঁছান খোয়াই থানার সেকেন্ড অফিসার সত্যজিৎ মল্লিক। তাকেও ধারালো অস্ত্র দিয়ে আঘাত করে সে।

রক্তাক্ত অবস্থায় প্রত্যেককে উদ্ধার করে জিবি হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। অভিযুক্তের স্ত্রীর অবস্থা অত্যন্ত আশঙ্কাজনক। অভিযুক্তের দুই সন্তান, পুলিশ কর্মকর্তা, অটো চালকসহ পাঁচজনের মৃত্যু হয়েছে। মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য পাঠানো হয়েছে। হত্যার কারণ এখনো জানতে পারেনি পুলিশ।

এমএসএম/এমএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]