গাজা সীমান্তে ইসরায়েলের লোহার প্রাচীর

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
আন্তর্জাতিক ডেস্ক আন্তর্জাতিক ডেস্ক
প্রকাশিত: ০৪:৪১ পিএম, ০৮ ডিসেম্বর ২০২১

গাজা সীমান্তে ৬৫ কিলোমিটার এলাকা জুড়ে লোহার প্রাচীর তৈরির কাজ সম্পন্ন করেছে ইসরায়েল। স্থানীয় সময় মঙ্গলবার (৭ ডিসেম্বর) প্রাচীর নির্মাণের কাজের সমাপ্তি ঘোষণা করা হয়।

ইসরায়েলের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আয়েলেত শাকেদ জানান, গাজার সীমানায় দেওয়াল তৈরির কাজ শেষ হয়েছে। তার মতে, এবার দক্ষিণ ইসরায়েলের মানুষ সুরক্ষিত থাকবেন।

দেশটির স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের বক্তব্য, শুধু মাটির ওপর নয়, মাটির নিচেও প্রাচীর তৈরি করা হয়েছে। এর সঙ্গে লাগানো হয়েছে সেন্সর। প্রাচীরের কাছেই তৈরি করা হয়েছে কন্ট্রোলরুম।

ইসরায়েলের প্রতিরক্ষা মন্ত্রী বেনি গানৎজ বলেন, প্রাচীর নির্মাণ করায় নাগরিকরা নিরাপদে থাকবেন। এই প্রাচীর নির্মাণে ব্যবহার করা হয়েছে, দুই লাখ ২০ হাজার ট্রাক কংক্রিট এবং এক লাখ ৪০ হাজার টন লোহা ও স্টিল।

গানৎজ বলেন, লোহার এই ৬৫ কিলোমিটার (৪০ মাইল) প্রাচীর ‘সন্ত্রাসী’ গোষ্ঠীর হাত থেকে দক্ষিণের মানুষকে সুরক্ষিত রাখবে।

তবে প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় এটি স্পষ্ট করেনি যে, প্রাচীর কতটা গভীর করা হয়েছে। ফিলিস্তিনি সশস্ত্র গোষ্ঠী হামাসকে মোকাবিলায় ২০১৬ সালে সীমান্তে এই প্রাচীর তৈরি ঘোষণা দেয় ইসরায়েল। হামাসকে সন্ত্রাসী গোষ্ঠী হিসেবে আখ্যায়িত করে ইসরায়েল, ইউরোপীয় ইউনিয়ন এবং যুক্তরাষ্ট্র।

২০০৭ সালের পর গাজার নিয়ন্ত্রণ নিয়ে চারবার যুদ্ধে জড়িয়েছে হামাস ও ইসরায়েল। সবশেষ গত মে মাসেও দুপক্ষের সংঘর্ষ হয়। এই অঞ্চল দিয়ে ইসরায়েল ও মিশরের সঙ্গে পণ্য পরিবহন ও চলাচলে কড়া বিধিনিষেধ জারি থাকে। মানবিক সহায়তা প্রদানকারী সংগঠনগুলোর দেওয়া তথ্য অনুযায়ী, এখানকার ২০ লাখ মানুষ চরম দারিদ্র্যতার মধ্যে বসবাস করেন।

২০১৮ এবং ২০১৯ সালে সেখানে ব্যাপক সহিংসতার ঘটনা ঘটে। এতে ২শ ফিলিস্তিনি ও ইসরায়েলি সেনা নিহত হন। আহত হন আরও কয়েক হাজার ফিলিস্তিনি।

সূত্র: ডয়েচে ভেলে

এসএনআর/টিটিএন/এএসএম

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]