প্রেমিকাকে বাঁচাতে ডাকাতি করতে গিয়ে খুন, ইনজেকশনে হলো মৃত্যুদণ্ড

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
আন্তর্জাতিক ডেস্ক আন্তর্জাতিক ডেস্ক
প্রকাশিত: ০৬:২৬ পিএম, ২৮ জানুয়ারি ২০২২

যুক্তরাষ্ট্রের ওকলাহোমায় প্রাণঘাতী ইনজেকশন দিয়ে একজনের মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করা হয়েছে। এর আগে ওই ব্যক্তি ইনজেকশনের পরিবর্তে ফায়ারিং স্কোয়াডে মৃত্যুদণ্ড কার্যকরের আবেদন করেছিল। বৃহস্পতিবার (২৭ জানুয়ারি) তার মৃত্যুদণ্ড কার্যকর হয় বলে জানায় কর্মকর্তারা। শুক্রবার এনবিসি নিউজের এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়।

৪৬ বছর বয়সী ডোনাল্ড অ্যান্টনি গ্রান্টের মৃত্যুদণ্ড ওকলাহোমা রাজ্যের একটি কারাগারে কার্যকর হয়। স্থানীয় সময় সকাল ১০টা ১৬ মিনিটে তার মৃত্যু নিশ্চিত করে কর্তৃপক্ষ। মৃত্যুদণ্ডের প্রক্রিয়া শুরু হয় ১০টা তিন মিনিটে। ইনজেকশন প্রয়োগের পর সে অচেতন হয় ১০টা আট মিনিটে। কারাগারের পরিচালক স্কট ক্রো ড এ তথ্য জানান।

মৃত্যুদণ্ড কার্যকরের আগে গ্রান্ট জানান, এটা কিছুই না। আমি শক্ত ছেলে। কোনো ওষুধ নেই, কিছুই নেই। আমি শক্ত। মাইক্রোফোন সরিয়ে নেওয়ার পরও গ্রান্ট তার পরিবারের সদস্যদের দিকে তাকিয়ে কথা বলতে থাকেন।

তিনি বলেন, আমি মহাবিশ্বের দিকে যাচ্ছি। আমি আবার ফিরে আসবো। ঈশ্বর এখানে আছেন। প্রকৃত ঈশ্বর। এরপর তার চোখ দিয়ে পানি পড়তে থাকে।

২০০১ সালের জুলাইয়ে ডেল সিটির লা কুইন্টা ইনে ডাকাতি করতে গিয়ে ব্রেন্ডা ম্যাকইলিয়া ২৯, ও ফেলিসিয়া সুজেট স্মিথ ৪৩ কে হত্যা করেন গ্রান্ট। এ ঘটনায় তার বিরুদ্ধে দোষ প্রমাণিত হওয়ায় আদালত তাকে মৃত্যুদণ্ড দেয়।

জানা গেছে, কারাবন্দি প্রেমিকার জামিনের জন্য অর্থ সংগ্রহ করতে ডাকাতির আশ্রয় নিয়েছিলেন গ্রান্ট। তখন তাঁর বয়স ছিল ২৫ বছর।

দুটি হত্যাকাণ্ড সংঘটনের দায়ে দোষী সাব্যস্ত করে ২০০৫ সালে গ্রান্টকে মৃত্যুদণ্ড দেন আদালত। রায়ের বিরুদ্ধে অসংখ্য আপিল করেছিলেন তিনি, তবে সব আপিলই খারিজ হয়ে যায়। অবশেষে বৃহস্পতিবার বিশেষ প্রক্রিয়ায় তার মৃত্যুদণ্ড কার্যকর হয়।

এমএসএম/এমএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]