বাইডেন কেন কৃষ্ণাঙ্গ নারীকে বিচারপতি মনোনয়ন দিচ্ছেন

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
আন্তর্জাতিক ডেস্ক আন্তর্জাতিক ডেস্ক
প্রকাশিত: ০৫:২৯ পিএম, ২৯ জানুয়ারি ২০২২

মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন দেশটির সুপ্রিম কোর্টের বিচারপতি স্টিফেন ব্রেয়ারের অবসরে যাওয়ার বিষয়টি ঘোষণা দিয়ে নিশ্চিত করেছেন। স্থানীয় সময় বৃহস্পতিবার (২৭ জানুয়ারি) আনুষ্ঠানিকভাবে বাইডেন এ ঘোষণা দেন। এসময় তিনি তার কাজের ভূয়সী প্রশংসাও করেন। একই সঙ্গে তার স্থলাভিষিক্ত হবেন একজন কৃষ্ণাঙ্গ নারী সেটাও নিশ্চিত করা হয়েছে।

প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন বলেছেন, কৃষ্ণাঙ্গ নারীকে দেশটির সুপ্রিম কোর্টের বিচারপতি হিসেবে মনোনয়ন দেবেন তিনি। আগামী ফেব্রুয়ারির শেষ দিকে এই মনোনয়ন দেওয়া হবে।

বাইডেনের এই ঘোষণার মধ্য দিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের ইতিহাসে প্রথম কোনো কৃষ্ণাঙ্গ নারী বিচারপতির মনোনয়ন পেতে যাচ্ছেন। একে ‘দীর্ঘদিনের ঋণ’ বলে আখ্যা দেন বাইডেন।

এরপর বাইডেন আরও বলেন,, ‘সম্ভাব্য প্রার্থী কারা হতে পারেন, তাদের বিষয়ে আমি পড়াশোনা করছি। আমি কোনো চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নিইনি। শুধু একটি সিদ্ধান্ত নিয়েছি। সেটা হলো, যাকে আমি মনোনয়ন দেব, তিনি হবেন অসাধারণ, অভিজ্ঞ।

তিনি আরও বলেন, নির্বাচনী প্রচারণার সময় আমি এ প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলাম। আমি আমার প্রতিশ্রুতি রাখবো।

বাইডেনের মনোনয়ন পেলেই যে দেশটির সুপ্রিম কোর্টের বিচারপতি হওয়া যাবে বিষয়টি অতটা সহজ নয়। তার এ মনোনয়নের পর সিদ্ধান্ত নেবে কংগ্রেসের উচ্চকক্ষ সিনেট। সিনেটের অনুমোদন পেলেই তবে বিচারপতি হতে পারবেন বাইডেনের মনোনীত প্রার্থী।

নারী বিচারপতি হিসেবে মনোনয়ন দৌড়ে যাদের নাম আলোচনায় আসছে তারা হলেন কেতনজি ব্রাউন জ্যাকসন, লিওনার্ড ক্রুগার, মিশেল। বিচারপতি স্টিফেন ব্রেয়ারের ল ক্লার্কের কাজ করেছেন ব্রাউন জ্যাকসন। আর লিওনার্ড ক্যালিফোর্নিয়া সুপ্রিম কোর্টের বিচারপতি। এ ছাড়া সাউথ ক্যারোলাইনার ফেডারেল ডিস্ট্রিক্ট জজ মিশেল। জানা গেছে তাকে ওয়াশিংটনের আপিল আদালতের বিচারপতি হিসেবে মনোনয়ন দিয়েছেন বাইডেন।

বাইডেন কেন সুপ্রিম কোর্টের বিচারপতি পদে কৃষ্ণাঙ্গ নারীকে মনোনয়ন দিচ্ছেন

বাইডেন ইতোমধ্যে জ্যাকসনকে আস্থার ভোট দিয়েছেন। গতবছর, তিনি তাকে যুক্তরাষ্ট্রের সার্কিট কোর্ট অব আপিলস ফর দ্য ডিস্ট্রিক্ট অব কলম্বিয়াতে দায়িত্ব দেন। যেটিকে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ফেডারেল প্যানেলগুলোর মধ্যে একটি হিসাবে বিবেচনা করা হয় এবং সুপ্রিম কোর্টের নিয়মিত সম্পৃক্ততা রয়েছে এর সঙ্গে। সিনেটে জ্যাকসনের সেই চূড়ান্ত নিয়োগের সিদ্ধান্ত হয় ভোটাভুটির মাধ্যমে। হার্ভাড থেকে আইন বিষয়ে স্নাতক করা জ্যাকসন সিনেটে ডেমোক্রেটদের পূণ সমর্থন পান এবং রিপাবলিকানদের তিনটি ভোট পান।

স্টিফেন ব্রেয়ারের অবসরে যাওয়া নিয়ে অবশ্য সুপ্রিম কোর্ট এখনো কিছু জানায়নি। নতুন বিচারপতি নির্বাচনে ডেমোক্রেটদের ৫০টি ভোট পেতে হবে। তবে আপাতত জ্যাকসনই সুবিধাজনক অবস্থানে আছেন বলে ধারণা করা হচ্ছে।

পার্টি এবং প্রগতিশীল আন্দোলনের এজেন্ডার সাথে ভালভাবে মানানসই জ্যাকসন। ৫১ বছর বয়সে, তিনি কয়েক দশক ধরে আসনটি ধরে রাখার জন্য যথেষ্ট তরুণ বলছেন অনেকে। একজন পাবলিক ডিফেন্ডার হিসেবে তার বেশ সুনাম রয়েছে এবং তিনি ইউএস সেন্টেন্সিং কমিশনে কাজ করেছেন। বিচারক হিসেবে তার শ্রম-বান্ধব রায়ও প্রশংসিত হয়েছে।

মজার ব্যাপার হলো জ্যাকসন উইসকনসিনের রিপাবলিকান সাবেক হাউস স্পিকার পল রায়ানের সঙ্গে পারিবারিকভাবে সম্পর্কিত। তার স্বামীর যমজ ভাই রায়ানের বোনকে বিয়ে করেছেন।

সূত্র: এবিসি নিউজ

এসএনআর/জেআইএম

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]