বিশ্বে মন্দা আসন্ন, সতর্ক করলেন ডব্লিউটিও প্রধান

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
আন্তর্জাতিক ডেস্ক আন্তর্জাতিক ডেস্ক
প্রকাশিত: ০২:৫১ পিএম, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২২
ছবি: সংগৃহীত

গোটা বিশ্ব একটি ভয়ংকর অর্থনৈতিক মন্দার দিকে এগিয়ে যাচ্ছে জানিয়ে সবাইকে সতর্ক করেছেন বিশ্ব বাণিজ্য সংস্থার (ডব্লিউটিও) প্রধান এনগোজি ওকোনজো-আইওয়ালা। তিনি বলেছেন, এই পরিস্থিতি মোকাবিলায় এখনই কঠোর পদক্ষেপ নেওয়া দরকার। খবর এএফপির।

মঙ্গলবার (২৭ সেপ্টেম্বর) জেনেভায় ডব্লিউটিও’র বার্ষিক পাবলিক ফোরামের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে সংস্থাটির মহাপরিচালক বলেন, রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধ, জলবায়ু সংকট, খাদ্যমূল্য ও জ্বালানি সংকট এবং কোভিড-১৯ মহামারির পরিণতি একটি বৈশ্বিক মন্দার পরিস্থিতি তৈরি করছে।

তিনি বলেন, আমার মনে হয়, আমরা একটি বৈশ্বিক মন্দার পথে রয়েছি। কিন্তু একই সময়, আমাদের [অর্থনৈতিক] পুনরুদ্ধারের কথাও ভাবতে হবে। আমাদের প্রবৃদ্ধি পুনরুদ্ধার করতে হবে।

ডব্লিউটিও প্রধান বলেন, বিশ্বব্যাংক এবং আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিল (আইএমএফ) উভয়ই বৈশ্বিক প্রবৃদ্ধির পূর্বাভাস কমিয়েছে। বিশ্ব বাণিজ্য সংখ্যার সূচকগুলোও খুব একটা ভালো দেখাচ্ছে না।

ওকোনজো-আইওয়ালা বলেন, নিরাপত্তা সংকট, জলবায়ু সংকট, জ্বালানি সংকট, খাদ্যমূল্যের সংকট- এগুলো সব দেশকে একই সঙ্গে আঘাত করছে। তাই আমরা স্বাভাবিকভাবে ব্যবসা করতে পারি না।

নাইজেরিয়ার এ সাবেক অর্থ ও পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, কেন্দ্রীয় ব্যাংকগুলো কঠিন চাপে রয়েছে। তাদের সামনে পথ খোলা সামান্যই। তিনি বলেন, কেন্দ্রীয় ব্যাংকগুলোর কাছে সুদের হার বাড়ানো ছাড়া খুব বেশি বিকল্প নেই। তবে উদীয়মান বাজার ও উন্নয়নশীল দেশগুলোর ওপর এর প্রতিক্রিয়া বেশি গুরুতর। কারণ তারাও সুদের হার বাড়াচ্ছে।

ডব্লিউটিও প্রধান বলেন, উন্নত দেশগুলোতে যা ঘটে, তা তাদের (উন্নয়নশীল দেশ) ঋণের বোঝাকে প্রভাবিত করে। কিন্তু এই মুহূর্তে, আমি মনে করি, কেন্দ্রীয় ব্যাংকগুলোর কাছে খুব বেশি বিকল্প নেই। কারণ মূল্যস্ফীতি সত্যিই দরিদ্রদের ওপর খুব বাজেভাবে আঘাত করেছে।

এসময় তিনি জোর দিয়ে বলেন, বাড়তি চাহিদা নাকি সরবরাহ ব্যবস্থায় কাঠামোগত সমস্যার কারণে মূল্যস্ফীতি ঘটছে, তা নির্ণয় করা দরকার। তবে এই মুহূর্তে খাদ্য নিরাপত্তা নিয়েই সবচেয়ে বেশি চিন্তিত বলে জানান ওকোনজো-আইওয়ালা। তারপরেই রয়েছে জ্বালানি সংক্রান্ত উদ্বেগ।

সূত্র: এনডিটিভি
কেএএ/

পাঠকপ্রিয় অনলাইন নিউজ পোর্টাল জাগোনিউজ২৪.কমে লিখতে পারেন আপনিও। লেখার বিষয় ফিচার, ভ্রমণ, লাইফস্টাইল, ক্যারিয়ার, তথ্যপ্রযুক্তি, কৃষি ও প্রকৃতি। আজই আপনার লেখাটি পাঠিয়ে দিন [email protected] ঠিকানায়।