দ্য ইকোনমিস্টের প্রতিবেদন

ইন্দোনেশিয়ায় সেমেরুতে অগ্ন্যুৎপাত, সরানো হচ্ছে বাসিন্দাদের

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
আন্তর্জাতিক ডেস্ক আন্তর্জাতিক ডেস্ক
প্রকাশিত: ০৩:৩১ পিএম, ০৪ ডিসেম্বর ২০২২
ছবি: সংগৃহীত

ইন্দোনেশিয়ার জাভা দ্বীপের একটি আগ্নেয়গিরিতে অগ্ন্যুৎপাত শুরু হয়েছে। সেখান থেকে আকাশের দিকে ১৫ কিলোমিটার পর্যন্ত ছাইয়ের মেঘ উঠছে। এই ভয়াবহ ঘটনার পর প্রায় দুই হাজার বাসিন্দাকে সেখান থেকে সরিয়ে নেওয়া হয়েছে। শনিবার (৪ ডিসেম্বর) রয়র্টার্সের এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়।

সেমেরু আগ্নেয়গিরির অগ্ন্যুৎপাত থেকে কোনো হতাহতের খবর তাৎক্ষণিকভাবে পাওয়া যায়নি। তাছাড়া দেশটির পরিবহন মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, সব ধরনের গাড়ি চলাচল স্বাভাবিক রয়েছে। তবে আঞ্চলিক বিমানবন্দরকে সতর্কবার্তা পাঠানো হয়েছে।

কমিউনিটি স্বেচ্ছাসেবক বায়ু ডেনি আলফিয়ান্টো আগ্নেয়গিরির কাছে থেকে সাংবাদমাধ্যমককে জানিয়েছে, সকাল থেকে বেশিরভাগ রাস্তা বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে ও এখন আগ্নেয়গিরির ছাই বৃষ্টি হচ্ছে। এতে পুরো পাহাড়ি এলাকা ঢাকা পড়েছে।

জাভা প্রদেশের সবচেয়ে বড় পাহাড় হলো সেমেরু। গত বছরের ঘটনায় সেখানে ৫০ জনের বেশি মারা যান। বাস্তুচ্যুত হন হাজার হাজার।

গত বছরের ডিসেম্বরে ইন্দোনেশিয়ার পূর্ব জাভা প্রদেশে মাউন্ট সেমেরুতে ভয়াবহ অগ্ন্যুৎপাত হয়। যাতে প্রায় ৬০ জন নিহত হন। আগ্নেয়গিরিটি সমুদ্রপৃষ্ঠ থেকে তিন হাজার ৬৭৬ মিটার উপরে অবস্থিত। মাউন্ট সেমেরু ইন্দোনেশিয়ার প্রায় ১৩০টি সক্রিয় আগ্নেয়গিরির মধ্যে একটি।

অন্যদিকে মেরাপি হচ্ছে ইন্দোনেশিয়ার সবচেয়ে সক্রিয় আগ্নেয়গিরিগুলোর মধ্যে একটি। এটির উচ্চতা দুই হাজার ৯৬৩ মিটার। প্যাসিফিক রিং অব ফায়ারে মেরাপির অবস্থান। অন্য যেকোনো দেশের তুলনায় ইন্দোনেশিয়ায় আগ্নেয়গিরির সংখ্যা বেশি। এটিতে সবশেষ উগ্ন্যুৎপাত হয়েছিল ২০১০ সালে। যাতে ৩৫০ জনের বেশি মানুষ মারা যান।

এমএসএম

পাঠকপ্রিয় অনলাইন নিউজ পোর্টাল জাগোনিউজ২৪.কমে লিখতে পারেন আপনিও। লেখার বিষয় ফিচার, ভ্রমণ, লাইফস্টাইল, ক্যারিয়ার, তথ্যপ্রযুক্তি, কৃষি ও প্রকৃতি। আজই আপনার লেখাটি পাঠিয়ে দিন [email protected] ঠিকানায়।