১০ কোটি বছর বয়সী প্লেসিওসরের কঙ্কালের সন্ধান, সমৃদ্ধ হবে গবেষণা

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
আন্তর্জাতিক ডেস্ক আন্তর্জাতিক ডেস্ক
প্রকাশিত: ০৬:২৩ পিএম, ০৮ ডিসেম্বর ২০২২
প্লেসিওসরের কঙ্কাল

অস্ট্রেলিয়ায় ১০ কোটি বছর বয়সী একটি দৈত্যকারের সামুদ্রিক সরিসৃপ প্রাণির (যা প্লেসিওসর নামে পরিচিত) সন্ধান পাওয়া গেছে। বিজ্ঞানীরা মনে করছেন, এটি খুবই গুরুত্বপূর্ণ সন্ধান। কারণ এর মাধ্যমে প্রাগৈতিহাসিক সময়ের জীবন সম্পর্কে গুরুত্বপূর্ণ তথ্য সরবরাহ করা যাবে। খবর সিএনএনের।

ছয় মিটার বা ১৯ ফুট লম্বা মাঝারি বয়সের লম্বা-গলাযুক্ত প্লেসিওসরের দেহাবশেষ চলতি বছরের আগস্ট মাসে পশ্চিম কুইন্সল্যান্ড আউটব্যাকের একটি গবাদি পশু স্টেশনে অপেশাদার জীবাশ্ম শিকারিদের দ্বারা পাওয়া যায়। প্লেসিওসর নামের সামুদ্রিক প্রাণিটি ইলাসমোসর নামেও পরিচিত।

কুইন্সল্যান্ড মিউজিয়ামের প্যালিওন্টোলজির সিনিয়র কিউরেটর এসপেন নুটসেন এই বিষয়টিকে রোসেটা পাথরের আবিষ্কারের সঙ্গে তুলনা করেছেন। ১৭৯৯ সালে গ্রানাইটের প্রাচীন মিশরীয় ব্লক (নুটসেন রোসেটা) পুনরাবিষ্কৃত হয়েছিল, যা বিশেষজ্ঞদের হায়ারোগ্লিফিক্স ডিকোড করতে সাহায্য করে।

এসপেন নুটসেন এক বিবৃতিতে জানিয়েছেন, অতীতে আমারা এই প্রাণীর দেহ ও মাথা এক সঙ্গে পাইনি। তাই এই ক্ষেত্রে ভবিষতে গবেষণা অব্যাহত থাকতে পারে। এটি জীবাশ্মবিদদের এই অঞ্চলের ক্রিটেসিয়াস যুগের উৎস, বিবর্তন এবং বাস্তুবিদ্যা সম্পর্কে আরও বেশি অন্তর্দৃষ্টি দিতে পারে।

তিনি বলেন, এর আগের প্লেসিওসরগুলোর দুই-তৃতীয়াংশ ঘাড় ছিল। প্রায়ই মৃত্যুর পরে মাথাটি শরীর থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে যেতো। ফলে উভয়কে একসঙ্গে সংরক্ষণ করে এমন একটি জীবাশ্ম খুঁজে পাওয়া খুব কঠিন হয়ে যায়।

ইলাসমোসর ৮ থেকে ১০ মিটারের মধ্যে লম্বা হতো। মূলত ইরোমাঙ্গা সাগরে এরা বাস করতো। ইরোমাঙ্গা সাগর প্রায় ১৫ কোটি বছর বছর আগে ৫০ মিটার গভীরতা নিয়ে অস্ট্রেলিয়ার অভ্যন্তরীণ অংশ জুড়ে বিস্তৃতি ছিল।

নুটসেন বলেছেন, ইলাসমোসর যাখন মারা যেতো তখন তার পচনশীল দেহটি গ্যাসের কারণে ফুলে যেতো, যা এটিকে পানির ওপরে নিয়ে আসতে সাহায্য করতো। তাছাড়া শিকারের পদ্ধতির কারণে এগুলোর মাথা প্রায়ই বিচ্ছিন্ন হয়ে যেতো। ফলে সম্পূর্ণ দেহ পাওয়া কঠিন হয়ে যায়।

এমএসএম

 

পাঠকপ্রিয় অনলাইন নিউজ পোর্টাল জাগোনিউজ২৪.কমে লিখতে পারেন আপনিও। লেখার বিষয় ফিচার, ভ্রমণ, লাইফস্টাইল, ক্যারিয়ার, তথ্যপ্রযুক্তি, কৃষি ও প্রকৃতি। আজই আপনার লেখাটি পাঠিয়ে দিন [email protected] ঠিকানায়।