এমন রায় প্রত্যাশা করিনি

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ১১:১৪ এএম, ২৭ নভেম্বর ২০১৭ | আপডেট: ১১:২৬ এএম, ২৭ নভেম্বর ২০১৭

বহুল আলোচিত বিডিআর সদর দফতরের পিলখানা ট্র্যাজেডির ঘটনায় ৫৭ সেনা কর্মকর্তাসহ ৭৪ জনকে হত্যার মামলায় মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত ১৫২ জনের মধ্যে সাজা বহাল রাখা হয়েছে ১৩৯ জনের। এছাড়া আসামি ও রাষ্ট্রপক্ষের আংশিক আপিল গ্রহণ করে ১৮৫ জনকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দেয়া হয়েছে।

তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়ায় আসামিপক্ষের অন্যতম আইনজীবী এম আমিনুল ইসলাম বলেছেন, নির্দ্বিধায় ন্যায়বিচায় হয়েছে বলে মনে করছি না। যেভাবে রায় ঘোষণা করা হলো এভাবে ঘোষণা হতে পারে না। রায়ের বিরুদ্ধে বলার কিছু নাই। এমন রায় আমরা প্রত্যাশা করিনি। আমি আমার ক্লায়েন্টদের বলবো পূর্ণাঙ্গ রায় হাতে পেয়ে তারা যেন আপিল করে। এতে তারা ন্যায়বিচার পাবে বলে আশা করছি।

অতিরিক্ত অ্যাটর্নি জেনারেল অ্যাডভোকেট মোশাররফ হোসেন কাজল বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

এর আগে রাষ্ট্র ও আসামিপক্ষের আইনজীবী এবং গণমাধ্যমকর্মীদের উপস্থিতিতে এ রায় ঘোষণা করেন হাইকোর্টের বিচারপতি মো. শওকত হোসেনের নেতৃত্বে তিন সদস্যের বিশেষ (বৃহত্তর) বেঞ্চ।

বেঞ্চের অন্য দুই সদস্য হলেন- বিচারপতি মো. আবু জাফর সিদ্দিকী ও বিচারপতি মো. নজরুল ইসলাম তালুকদার।
সোমবার বেলা ২টা ৩৫ মিনিট থেকে আসামিদের দণ্ড ঘোষণা শুরু হয়। প্রথম দফায় বিভিন্ন মেয়াদে কারাদণ্ডপ্রাপ্তদের রায় দেয়া হচ্ছে। এক এক করে অভিযুক্তদের নাম ও সাজা ঘোষণা করছেন আদালত।

আলোচিত এ মামলায় ৮৫০ আসামির মধ্যে ৫৬৮ জনকে সাজা দিয়েছিলেন নিম্ন আদালত। তাদের মধ্যে ১৫২ আসামিকে মৃত্যুদণ্ড, ১৬০ আসামিকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড ও ২৫৬ জনকে বিভিন্ন মেয়াদে কারাদণ্ড দেয়া হয়েছিল। সে সময় খালাস পেয়েছিলেন ২৭৭ জন।

আজ হাইকোর্টের দেয়া রায়ে নিম্ন আদালতের দেয়া ১৫২ জনের মৃত্যুদণ্ড থেকে কমিয়ে ১৪৬ জনের যাবজ্জীবন ও ১৮২ জনের ১০ বছরের সাজা বহাল রেখে রায় ঘোষণা করেছেন হাইকোর্ট।

এআর/জেডএ/আইআই

আপনার মতামত লিখুন :