সিমসহ আটক শফিকুলকে ছাড়ার কারণ জানতে চেয়েছেন হাইকোর্ট

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৯:০৬ এএম, ১৭ অক্টোবর ২০১৮
ফাইল ছবি

সাংবাদিক ফরহাদ খাঁ দম্পতি হত্যা মামলায় সিমসহ আটক শফিকুলকে ছেড়ে দেয়ার কারণ খুঁজে বের করতে পুলিশ মহাপরিদর্শককে (আইজিপি) নির্দেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট। একই সঙ্গে, নিম্ন আদালতে মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত দুই আসামি নাজিমুজ্জামান ইয়ন (২১) ও রাজু আহমেদের (২০) সাজা কমিয়ে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত।

রায় প্রকাশের পর এই রায়ের বিরুদ্ধে সুপ্রিম কোর্টে আপিল করা হবে বলে সাংবাদিকদের জানিয়েছেন রাষ্ট্রপক্ষ।

নিম্ন আদালত থেকে পাঠানো ডেথ রেফারেন্স ও কারাবন্দি আসামিদের করা আপিলের ওপর শুনানি শেষে মঙ্গলবার (১৬ অক্টোবর) হাইকোর্টের বিচারপতি মো. রুহুল কুদ্দুস ও বিচারপতি এ এস এম আবদুল মবিনের বেঞ্চ এ রায় ঘোষণা করেন।

এ মামলায় রাষ্ট্রপক্ষে আইনজীবী ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল মনিরুজ্জামান রুবেল ও সহকারী অ্যাটর্নি জেনারেল আবুল কালাম আজাদ খান। মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত দুই আসামি ইয়ন ও রাজুর পক্ষে ছিলেন অ্যাডভোকেট মনসুরুল হক চৌধুরী, আব্দুল মতিন খসরু, আহসান উল্লাহ ও সুব্রত সাহা।

রাজধানীর নয়াপল্টনে ভাড়া বাসায় ২০১১ সালের ২৮ জানুয়ারি নিহত হন ফরহাদ খাঁ ও তার স্ত্রী রহিমা খাতুন। এ ঘটনায় দায়ের করা মামলা তদন্ত শেষে পুলিশ দুইজনকে আসামি করে অভিযোগপত্র জমা দেয়। কিন্তু অভিযোগপত্রে মোবাইল ফোনের সিমসহ র‌্যাবের হাতে আটক শফিকুল ইসলামকে অব্যাহতির সুপারিশ করে তদন্ত কর্মকর্তা।

এরপর ঢাকার ৩ নম্বর দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনাল ২০১২ সালের ১০ অক্টোবর এক রায়ে নিহত ফরহাদ খাঁর ভাগনে নাজিমুজ্জামান ইয়ন ও তার বন্ধু রাজু আহমেদকে মৃত্যুদণ্ড দেন। এই মৃত্যুদণ্ড অনুমোদনের জন্য হাইকোর্টে ডেথ রেফারেন্স পাঠানো হয়। একই সঙ্গে, কারাবন্দি দুই আসামি এ রায়ের বিরুদ্ধে আপিল করেন।

ওই আপিলের শুনানি নিয়ে আদালত দুইজনের মৃত্যুদণ্ড থেকে যাবজীবন করেন। একই সঙ্গে, এ মামলায় মোবাইল ফোনের সিমসহ আটক শফিকুল ইসলামকে ছেড়ে দেয়ার ঘটনা তদন্ত করতে পুলিশ মহাপরিদর্শককে (আইজিপি) নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

এফএইচ/এসআর/এমএস

আপনার মতামত লিখুন :