দেশের প্রচলিত আইন বাংলায় করতে লিগ্যাল নোটিশ

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৮:২৭ পিএম, ১৭ ফেব্রুয়ারি ২০১৯

বাংলাদেশে ইংরেজি ভাষায় প্রচলিত আইনগুলো বাংলায় রূপান্তর করে পাঠযোগ্য করার উদ্যোগ গ্রহণের জন্য আইন মন্ত্রণালয়ের প্রতি লিগ্যাল নোটিশ পাঠিয়েছেন এক আইনজীবী।

আইন, বিচার ও সংসদবিষয়ক মন্ত্রণালয় সচিব, মন্ত্রণালয়ের লেজিসলেটিভ ও সংসদবিষয়ক বিভাগের সিনিয়র সচিব এবং সিস্টেম অ্যানালিস্ট বরাবর এ নোটিশ পাঠানো হয়েছে।

রোববার ডাক ও রেজিস্ট্রি ডাকযোগে সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী মো. ফয়জুল্লাহ ফয়েজ এ নোটিশ পাঠান।

নোটিশে বলা হয়, বাংলাদেশে প্রচলিত আইনসমূহের মধ্যে অনেক আইন রয়েছে যা ইংরেজি ভাষায় প্রণীত। বিশেষ করে মুক্তিযুদ্ধের আগে প্রণীত আইনসমূহ ইংরেজি ভাষায় প্রণীত ও প্রকাশিত হয়েছে। বাংলাদেশের রাষ্ট্রভাষা ও অফিসিয়াল ভাষা বাংলা। এমতাবস্থায় ইংরেজিতে প্রণীত আইনসমূহের অনুমোদিত বাংলাপাঠ প্রকাশ না করা হলে এ দেশের মানুষ আইন জানা থেকে বঞ্চিত হবেন। কেননা, ইংরেজি জানার কারণে শুধুমাত্র শিক্ষিত শ্রেণি আইন জানতে পারবেন এবং কম শিক্ষিত বা অশিক্ষিত শ্রেণি আইন জানা থেকে বঞ্চিত হবেন, যা বৈষম্যমূলক এবং সংবিধান অনুযায়ী অবৈধ।

বাংলাদেশে সবচেয়ে বেশি ব্যবহৃত ও প্রয়োগকৃত আইনসমূহ যেমন- দণ্ডবিধি, দেওয়ানি কার্যবিধি, ফৌজদারি কার্যবিধি, সাক্ষ্য আইন ইত্যাদির কোনো অনুমোদিত বাংলাপাঠ আজ পর্যন্ত সরকার কর্তৃক প্রকাশ করা হয়নি এবং আইন মন্ত্রণালয়ের ওয়বসাইটেও কোনো বাংলাপাঠ পাওয়া যায়নি। তাই জনগণ যে আইন পড়ে বুঝতে পারে না সে আইনে জনগণের শাস্তি দেয়া অযৌক্তিক এবং জনগণের মৌলিক অধিকার লঙ্ঘনের শামিল।

নোটিশে আরও বলা হয়, এমতাবস্থায় ফেব্রুয়ারি মাসে মহান ভাষা আন্দোলনের শহীদদের স্মরণে ইংরেজি ভাষায় প্রণীত বাংলাদেশে প্রচলিত সকল আইনের অনুমোদিত বাংলাপাঠ প্রকাশ করা অত্যন্ত জরুরি এবং মাতৃভাষায় আইন পড়তে পারা জনগণের মৌলিক অধিকার।

ইংরেজি আইনগুলোর বাংলাপাঠ প্রচলনে নোটিশ গ্রহীতারা কী কী উদ্যোগ গ্রহণ করেছেন- তা নোটিশদাতাকে তিন দিনের মধ্যে জানাতে অনুরোধ করা হয়েছে। অন্যথায় আইন ও সংবিধান অনুসারে এ বিষয়ে আইনি পদক্ষেপ হিসেবে হাইকোর্টে রিট দায়ের করা হবে বলেও নোটিশে জানানো হয়।

এফএইচ/বিএ/পিআর