স্বর্ণ ছিনতাই মামলায় পুলিশের এএসআইসহ দুইজন রিমান্ডে

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৫:৫৮ পিএম, ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৯

স্বর্ণ ছিনতাই মামলায় রাজধানীর শাহবাগ থানার সহকারী উপ-পরিদর্শক (এএসআই) শাহজাহান কবিরসহ দুই জনের বিরুদ্ধে তিনদিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত। অপর আসামি হলেন জনৈক আলিমুদ্দিন।

বুধবার ঢাকা মহানগর হাকিম আদালতে তাদের হাজির করে পুলিশ। এ সময় শাহবাগ থানায় করা মামলার সুষ্ঠু তদন্তের জন্য সাত দিনের আবেদন করেন মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা ওই থানার পুলিশ পরিদর্শক (অপারেশন) মাহাবুবুর রহমান। শুনানি শেষে ঢাকা মহানগর হাকিম জিয়াউর রহমান তিন দিনের পুলিশি রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

শাহবাগ থানার আদালতের সাধারণ নিবন্ধন কর্মকর্তা পুলিশের উপ-পরিদর্শক নিজাম উদ্দিন বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

রিমান্ড আবেদনে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা উল্লেখ করেন, মামলার আসামিরা একটি সংঘবদ্ধ সোনা চোরাচালানকারী চক্রের এবং সোনা চোর চক্রের সক্রিয় সদস্য। তারা পরস্পর যোগসাজশে পরিকল্পিতভাবে একই কায়দায় আরও সোনা চুরি করেছে। মামলার সুষ্ঠু তদন্তের স্বার্থে ঘটনায় জড়িত পলাতক আসামিদের গ্রেফতার, তাদের কাছে থাকা অবশিষ্ট চোরাই সোনা, মোবাইল ফোন ও নগদ টাকা উদ্ধারের লক্ষ্যে তাদের সাত দিনের পুলিশ রিমান্ড প্রয়োজন।

এর আগে ১৭ সেপ্টেম্বর ১২৫ ভরি সোনা ছিনতাইয়ের ঘটনায় রাজি বুলিয়ান স্টোরের ম্যানেজার আলী আশরাফ শাহবাগ থানার এএসআই শাহজাহানসহ পাঁচজনের বিরুদ্ধে একটি মামলা করেন। অপর চার আসামি হলেন- মো. নজরুল ইসলাম, আলিমুদ্দিন,আলী ও দোকানের কর্মচারী আলামিন।

মামলায় অভিযোগ থেকে জানা যায়, রাজি বুলিয়ান স্টোরের দুই কর্মচারী সালাউদ্দিন এবং আলামিনকে চার পিস সোনাসহ (ওজন ১২৫ ভরি) নিউমার্কেটের সাদিয়া জুয়েলার্সে পাঠানো হয়। ১৪ সেপ্টেম্বর রাত সাড়ে ৮টার দিকে নিউমার্কেট পৌঁছানো মাত্র তাদের গতিরোধ করা হয়। পরে তাদের বঙ্গবন্ধু মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের বাথরুমে নিয়ে তল্লাশি চালানো হয়। আসামিরা সালাউদ্দিনকে মারপিট করে তার কাছে থাকা ৬২ ভরি সোনা, নগদ টাকা ও একটি স্যামসাং মোবাইল ফোন নেয়। আলামিনের কাছ থেকে ৬৫ ভরি সোনা, মোবাইল ফোন ও টাকা ছিনিয়ে নেয়, যার বাজার মূল্য ষাট লাখ ত্রিশ হাজার টাকা।

জেএ/জেডএ/এমএসএইচ/এমকেএইচ/এমএস