শর্ত সাপেক্ষে জামিন পেলেন কক্সবাজারের ওসমান গণি

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৯:১০ পিএম, ২১ জানুয়ারি ২০২০

একাত্তরে মুক্তিযুদ্ধের সময় সংঘটিত হত্যা, গণহত্যাসহ মানবতাবিরোধী অপরাধের মামলায় আসামি ওসমান গণিকে শর্ত সাপেক্ষে জামিন দিয়েছেন ট্রাইব্যুনাল। এই মামলাটি এখন সাক্ষ্যগ্রহণ পর্যায়ে রয়েছে। এখন পর্যন্ত ২১ সাক্ষীর জবানবন্দি নেয়া হয়েছে বলে ট্রাইব্যুনাল সূত্রে জানা গেছে।

মঙ্গলবার ট্রাইব্যুনালের চেয়ারম্যান বিচারপতি মো. শাহিনুর ইসলামের নেতৃত্বে তিন সদস্যের আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল এ আদেশ দেন।

আদালতে আসামির জামিন আবেদনের পক্ষে শুনানি করেন অ্যাডভোকেট আব্দুস সাত্তার পালোয়ান। অন্যদিকে রাষ্ট্রপক্ষে শুনানি করেন প্রসিকিউটর রেজিয়া সুলতানা চমন।

আব্দুস সাত্তার পালোয়ান সাংবাদিকদের জানান, আসামি ওসমান গণি ক্যান্সারে আক্রান্ত। তার প্রস্রাবের রাস্তায় সমস্যা রয়েছে। তাই এর চিকিৎসা জেলখানায় থেকে করা সম্ভব নয়। আদালতে তার পক্ষে জামিন আবেদন করেছিলাম। শুনানি শেষে আদালত তার চিকিৎসার স্বার্থে আইনজীবী ও আসামির ছেলের জিম্মায় এবং ঢাকায় অবস্থান করার শর্তে জামিন মঞ্জুর করেন।

প্রসিকিউটর রেজিয়া সুলতানা বলেন, চিকিৎসার জন্য তাকে জামিন দিয়েছেন আদালত। মামলার পরবর্তী তারিখে আদালতকে তার চিকিৎসার বিষয়ে অগ্রগতি জানাতে বলা হয়েছে। এর আগে একই মামলায় অপর এক আসামি রশিদ মিয়াকে জামিন দিয়েছিল ট্রাইব্যুনাল।

এই মামলায় আসামির সংখ্যা ছিল ১৯। তদন্ত চলাকালীন সময়ে দুজন মারা যান। এর মধ্যে তদন্ত সংস্থার পক্ষ থেকে ১৭ জনের বিরুদ্ধে প্রতিবেদন দাখিল করা হয়। এসব আসামিদের বিরুদ্ধে মুক্তিযুদ্ধের সময় হত্যা, নারী নির্যাতন, অগ্নিসংযোগ, ধর্মান্তর ও দেশান্তর করাসহ মানবতাবিরোধী অপরাধের ১৩ ঘটনায় ১২টি অভিযোগ আনা হয়েছে। এর মধ্যে ৯৪ জনকে হত্যাসহ নারী নির্যাতন এবং লুটপাট ও অগ্নিসংযোগের অনেক ঘটনা রয়েছে। ২০১৪ সালের ১২ মে থেকে ২০১৫ সালের ৮ অক্টোবর পর্যন্ত তদন্ত চলে।

এ মামলার ১৭ আসামির মধ্যে জামিনে থাকা বিএনপির সাবেক সংসদ সদস্য মোহাম্মদ রশিদ মিয়াসহ গ্রেফতার ছিলেন পাঁচজন। অন্য চারজন হলেন- কক্সবাজার চেম্বার অব কমার্সের সাবেক সভাপতি ও এলডিপি নেতা সালামত উল্লাহ খান, নূরুল ইসলাম, বাদশা মিয়া ও ওসমান গণি। এদের মধ্যে রশিদ মিয়া মারা গেছেন।

অন্যদিকে পলাতক ১২ আসামি হলেন- মৌলভী মোহাম্মাদ জাকারিয়া শিকদার (৭৮), অলি আহমদ (৫৮), মো. জালাল উদ্দিন (৬৩), মোহাম্মদ সাইফুল ওরফে সাবুল (৬৩), মমতাজ আহমদ (৬০), হাবিবুর রহমান (৭০), আমজাদ আলী (৭০), মৌলবী রমিজ হাসান (৭৩), আব্দুল শুক্কুর (৬৫), মো. জাকারিয়া (৫৮), মৌলভী জালাল (৭৫) ও আব্দুল আজিজ (৬৮)।

এফএইচ/জেএইচ/এমকেএইচ