আইনজীবী পরিচয়ে মানুষের সঙ্গে প্রতারণা করতেন আনিসুর

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৭:২১ পিএম, ০৩ জুন ২০২০

প্রায় সময় ঢাকা মহানগর হাকিম (সিএমএম) আদালত এলাকায় ঘোরাফেরা করতেন আনিসুর রহমান (৫৩)। তিনি আইনজীবী না হয়েও ভুয়া পরিচয়ে প্রতারণার মাধ্যমে নিরীহ মানুষের কাছ থেকে বিপুল পরিমাণ অর্থ আত্মসাৎ করে আসছিলেন।

তার গতিবিধি সন্দেহ হলে ঢাকা আইনজীবী সমিতি টাউট উচ্ছেদ কমিটি তাকে আটক করে। এরপর প্রতারণার অভিযোগে ঢাকা আইনজীবী সমিতির পক্ষ থেকে তার বিরুদ্ধে মামলা করা হয়। মামলায় তাকে একদিনের রিমান্ড মঞ্জুর করা হয়।

বুধবার আনিসুর রহমানকে ঢাকা মহানগর হাকিম আদালতে হাজির করে পুলিশ। এ সময় প্রতারণার অভিযোগে কোতোয়ালি থানায় করা মামলার রহস্য উদঘাটনের জন্য তাকে পাঁচ দিনের রিমান্ডে নিতে আবেদন করে পুলিশ। শুনানি শেষে ঢাকা মহানগর হাকিম ইলিয়াস মিয়া একদিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

এর আগে মঙ্গলবার (২ জুন) ঢাকা সিএমএম আদালতের হাজতখানার সামনে থেকে তাকে আটক করে আইনজীবী সমিতির টাউট উচ্ছেদ কমিটি। আটকের সময় তার কাছ থেকে ১৯ জন আইনজীবীর ৩৫টি ভিজিটিং কার্ড জব্দ করা হয়। এরপর ঢাকা আইনজীবী সমিতির কার্যনিবাহী কমিটির দফতর সম্পাদক এইচ এম মাসুম কোতোয়ালি থানায় একটি মামলা করেন।

মামলার বাদী এইচ এম মাসুম বিষয়টি জাগো নিউজকে নিশ্চিত করেছেন। মামলার অভিযোগ থেকে জানা যায়, ঢাকা আইনজীবী সমিতির টাউট উচ্ছেদ কমিটির অভিযান পরিচালনার সময় ঢাকার সিএমএম আদালতের হাজতখানার সামনে পাকা রাস্তার ওপর আদালত প্রাঙ্গণে আসা বিচারপ্রার্থী লোকজনদের হয়রানি করার সময় আনিসুর রহমানকে হাতেনাতে আটক করা হয়। আটকের সময় তিনি নিজেকে আইনজীবী হিসেবে পরিচয় দেন। এতে সন্দেহ হওয়ায় টাউট উচ্ছেদ কমিটি তাকে ভুয়া আইনজীবী হিসেবে চিহ্নিত করে। পরবর্তীতে ঢাকা আইনজীবী সমিতির রেকর্ডপত্র পর্যালোচনা করে জানা যায় যে, তিনি কোনো আইনজীবী নন।

আনিসুর রহমানকে জিজ্ঞাসা করা হলে তিনি জানান, আইনজীবী না হয়েও ভুয়া পরিচয়ে মামলার তদবির করে প্রতারণার মাধ্যমে নিরীহ লোকজনের কাছ থেকে বিপুল পরিমাণ অর্থ আত্মসাৎ করে আসছিলেন।

জেএ/এমএসএইচ/এমকেএইচ

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]