মানবতাবিরোধী অপরাধে বিচারাধীন শতবর্ষী আসামির মৃত্যু

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ১২:৩৬ এএম, ১৪ জুলাই ২০২০

একাত্তরের মুক্তিযুদ্ধের সময় সংঘটিত হত্যা গণহত্যাসহ মানবতাবিরোধী অপরাধের মামলায় জামিনে থাকা সাতক্ষীরার রাজাকার কমান্ডার আব্দুল্লাহ হেল বাকী (১০৬) মারা গেছেন। সোমবার (১৩ জুলাই) রাত পৌনে দশটার দিকে রাজধানীর লালবাগে ভাড়া বাসায় তিনি মৃত্যুবরণ করেন।

পরে তার আইনজীবী আবদুস সাত্তার পালোয়ান মৃত্যুর বিষয়টি জাগো নিউজকে নিশ্চিত করেন। তবে এ আইনজীবীর দাবি, মৃত্যুকালে আসামি আব্দুল্লাহ হেল বাকীর বয়স হয়েছিল ১১০ বছর।

এর আগে, সাতক্ষীরার রাজাকার কমান্ডার আব্দুল্লাহ হেল বাকীসহ চার আসামির বিরুদ্ধে একাত্তরে মানবতাবিরোধী অপরাধের সঙ্গে যুক্ত থাকার বিষয়ে ২০১৫ সালের ৭ আগস্ট থেকে তদন্ত শুরু হয়। মামলার অপর তিন আসামিরা হলেন- সাতক্ষীরা জেলা জামায়াতের আমির ও সাবেক সংসদ সদস্য আব্দুল খালেক মণ্ডল ওরফে জল্লাদ খালেক, খান রোকনুজ্জামান ও জহিরুল ইসলাম টেক্কা খান।

এই চার আসামির মধ্যে আব্দুল্লাহ হেল বাকী শর্ত সাপেক্ষে জামিনে ছিলেন। আর খালেক মন্ডল গ্রেফতার হয়ে কারাগারে আছেন। তবে দুই আসামি খান রোকনুজ্জামান ও জহিরুল ইসলাম টেক্কা খান এখনও পলাতক।

আসামিদের বিরুদ্ধে ২০১৮ সালের ৫ মার্চ একাত্তরের মানবতাবিরোধী অপরাধে অভিযোগ গঠন করে ট্রাইব্যুনাল। আসামিদের বিরুদ্ধে একাত্তরে হত্যা, ধর্ষণ, আটক, নির্যাতনসহ মানবতাবিরোধী অপরাধের সাতটি অভিযোগ আনা হয়। এর মধ্যে ৬ জনকে হত্যা, ২ জনকে ধর্ষণ ও ১৪ জনকে শারীরিক নির্যাতনের অভিযোগ রয়েছে। বর্তমানে মামলাটি আসামিপক্ষের যুক্তিতর্ক উপস্থাপনের পর্যায়ে রয়েছে।

এ মামলায় রাষ্ট্রপক্ষে প্রসিকিউটর ছিলেন জেয়াদ আল মালুম ও রেজিয়া সুলতানা চমন। আসামি খালেক মন্ডলের পক্ষে মুজাহিদুল ইসলাম শাহীন ও অপর আসামি সাতক্ষীরার রাজাকার কমান্ডার আব্দুল্লাহ হেল বাকীর পক্ষে ছিলেন অ্যাডভোকেট আব্দুস সাত্তার পালোয়ান। পলাতক দুই আসামির পক্ষে শুনানিতে ছিলেন রাষ্ট্র নিযুক্ত আইনজীবী গাজী এমইএইচ তামিম।

২০১৫ সালের ১৬ জুন ভোরে সাতক্ষীরা সদর উপজেলার খলিলনগর মহিলা মাদরাসায় নাশকতার উদ্দেশ্যে কয়েকজন সহযোগীকে নিয়ে গোপন বৈঠকের অভিযোগে আব্দুল খালেক মণ্ডলকে গ্রেফতার করে পুলিশ। ওই বছরের ২৫ আগস্ট খালেক মণ্ডলের বিরুদ্ধে সাতক্ষীরায় দায়ের করা মানবতাবিরোধী অপরাধের তিনটি মামলার মধ্যে শহীদ মোস্তফা গাজী হত্যা মামলায় ট্রাইব্যুনালের অধীনে তাকে গ্রেফতার দেখানো হয়।

পরে ২০১৭ সালের ৮ ফেব্রুয়ারি চারজনের বিরুদ্ধে তদন্তের চূড়ান্ত প্রতিবেদন প্রকাশ করেন ট্রাইব্যুনালের তদন্ত সংস্থা। এরই পর অন্যান্য আসামির বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেন ট্রাইব্যুনাল।

এরপর ২০১৭ সালের ১৭ মার্চ সাতক্ষীরা সদর উপজেলার আলিপুর ইউনিয়নের বুলারাটী গ্রামের বাড়ি থেকে আব্দুল্লাহ হেল বাকীকে গ্রেফতার করা হয়। পরে তাকে ট্রাইব্যনালে হাজির করা হয়। এদিকে ট্রাইব্যুনালে হাজিরের পর তার জামিন চেয়েও আবেদন জানানো হয়। সে আবেদনের শুনানি নিয়ে ঢাকায় থাকা ও মামলার নির্ধারিত দিনে হাজিরার শর্তে সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী এম. আব্দুর রউফের হেফাজতে আসামী আব্দুল্লাহ হেল বাকীকে জামিন দিয়েছিলেন ট্রাইব্যনাল।

এফএইচ/এমআরএম

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]