‘টাইগার আইটি’র প্রতিবাদ

জাগো নিউজ ডেস্ক
জাগো নিউজ ডেস্ক জাগো নিউজ ডেস্ক
প্রকাশিত: ০৪:৫৫ পিএম, ২১ সেপ্টেম্বর ২০২০

এ বছর মিলছে না ড্রাইভিং লাইসেন্স!’ শিরোনামে গত ০৯ সেপ্টেম্বর জাগো নিউজে প্রকাশিত সংবাদের প্রতিবাদ জানিয়েছে ‘টাইগার আইটি বাংলাদেশ লিমিটেড’।

টাইগার আইটির পক্ষে সংশ্লিষ্ট আইনি পরামর্শক প্রতিষ্ঠান কর্তৃক প্রেরিত আইনি নোটিশে বলা হয়েছে, গত ০৯ সেপ্টেম্বর প্রকাশিত ‘এ বছর মিলছে না ড্রাইভিং লাইসেন্স!’ শিরোনামের প্রতিবেদনে বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন কর্তৃপক্ষের (বিআরটিএ) মুখপাত্র পরিচালক (রোড সেফটি) শেখ মোহাম্মদ মাহবুব-ই-রব্বানীর উদ্ধৃতি দিয়ে বলা হয়, বিআরটিএ ও টাইগার আইটি’র মধ্যে সম্পাদিত ড্রাইভিং লাইসেন্স কার্ড সরবরাহ চুক্তিটি বাতিল হয়েছে। চুক্তি বাতিল হওয়ার কারণ হিসেবে প্রতিষ্ঠানটি জাতিসংঘের কালো তালিকাভুক্তের কথা বলা হয়েছে।

আইনি নোটিশে আরও বলা হয়েছে, মিথ্যা ও অসত্য তথ্য প্রকাশ করায় টাইগার আইটি’র দীর্ঘদিনের ব্যবসায়িক সুনাম ক্ষণ্ন হয়েছে, একই সঙ্গে সামাজিকভাবে হেয়প্রতিপন্ন হয়েছে। জাতিসংঘ কর্তৃক টাইগার আইটি কখনও-ই কালো তালিকাভুক্ত হয়নি। এমনকি বিআরটিএ’র সঙ্গে টাইগার আইটির সম্পাদিত সরকারি চুক্তিও বাতিল হয়নি। ড্রাইভিং লাইসেন্স কার্ড বিতরণে বিলম্ব কিংবা বিতরণ হয়নি— এমন অভিযোগ কখনও বিআরটিএ’র পক্ষ থেকে পায়নি টাইগার আইটি।

অতএব, প্রকৃত সত্য উদ্ঘাটনপূর্বক জাগো নিউজ কর্তৃপক্ষকে যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণের কথা বলা হয়েছে আইনি নোটিশে। অন্যথায় আইনি ব্যবস্থা গ্রহণের কথাও বলা হয়।

জাগো নিউজের বক্তব্য

সময়মতো ড্রাইভিং লাইসেন্স না পাওয়ায় সাধারণের ভোগান্তির বিষয়টি তুলে ধরাই ছিল প্রতিবেদনটির মূল উদ্দেশ্য। ড্রাইভিং লাইসেন্স না পাওয়ার কারণ হিসেবে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ বিআরটিএ’র বক্তব্য নেয়া হয়। বক্তব্যে বিআরটিএ’র মুখপাত্র পরিচালক (রোড সেফটি) শেখ মোহাম্মদ মাহবুব-ই-রব্বানীর উদ্ধৃতিতে ‘বিশ্বব্যাংকের’ পরিবর্তে ভুলবশত ‘জাতিসংঘ’ শব্দটি ব্যবহৃত হয়েছে। মূলত ‘জাতিসংঘ নয় বিশ্বব্যাংকের কালো তালিকায় টাইগার আইটি’— এমনটি হওয়ার কথা ছিল। শব্দগত ব্যবহার ভুলে আন্তরিকভাবে দুঃখ প্রকাশ করছে জাগো নিউজ কর্তৃপক্ষ।

দ্বিতীয়ত, ‘চুক্তি বাতিলের প্রসঙ্গটি’ বিআরটিএ’র মুখপাত্র পরিচালক (রোড সেফটি) শেখ মোহাম্মদ মাহবুব-ই-রব্বানীর সরাসরি উদ্ধৃতি, যা কোনোভাবেই বিকৃত করা হয়নি। তারপরও তথ্যগত কোনো ভুল হলে আন্তরিকভাবে দুঃখ প্রকাশ করছে জাগো নিউজ কর্তৃপক্ষ। ভবিষ্যতে এমন বিষয়ে আরও সতর্কতা অবলম্বনেরও অঙ্গীকার করছে।

এমএআর/এমএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]