বসুন্ধরায় হচ্ছে জুডিশিয়াল অফিসার্স হাউজিং প্রকল্প

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৩:৪০ পিএম, ১৭ অক্টোবর ২০২০

বিচার বিভাগীয় কর্মকর্তাদের দীর্ঘদিনের আকাঙ্ক্ষার আবাসন প্রকল্প বাস্তবায়ন করতে যাচ্ছে দেশের শীর্ষস্থানীয় শিল্পগোষ্ঠী বসুন্ধরা গ্রুপ। এ বিষয়ে একটি চুক্তি সই হয়েছে বলে গণমাধ্যমকে জানিয়েছেন আইন মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তা ড. রেজাউল করিম।

তিনি জানান, বসুন্ধরা আবাসিক এলাকায় প্রস্তুত হচ্ছে বাংলাদেশ জুডিশিয়াল অফিসার্স হাউজিং প্রকল্প। এ প্রকল্প বাস্তবায়ন হলে বাংলাদেশ জুডিশিয়াল সার্ভিসে কর্মরত বিচারকদের আবাসন ও পারিবারিক নিরাপত্তা নিশ্চিত হবে।

জানা গেছে, বিচারকদের আবাসন প্রকল্প গ্রহণের লক্ষ্যে সব ধরনের সহযোগিতা ও অনুপ্রেরণা দিয়েছেন আইনমন্ত্রী আনিসুল হক।

রাজধানীর খিলক্ষেত থানাধীন ৩০০ ফিট কুড়িল-পূর্বাচল রাস্তার উত্তরে বিসিএস (প্রশাসন) সার্ভিসের আবাসন প্রকল্প সংলগ্ন ৪২৭২ কাঠা (কম/বেশি) ভূমিতে এ প্রকল্প বাস্তবায়ন করা হবে।

এ উপলক্ষে জুডিশিয়াল অফিসার্স বহুমুখী সমবায় সমিতি লিমিটেডের সঙ্গে বসুন্ধরা গ্রুপের অঙ্গপ্রতিষ্ঠান মেসার্স ইস্টওয়েস্ট প্রপার্টি ডেভেলপমেন্ট (প্রা.) লিমিটেডের রেজিস্ট্রি চুক্তি হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (১৫ অক্টোবর) সন্ধ্যায় বসুন্ধরা গ্রুপের চেয়ারম্যানের বাস ভবনে নিজ নিজ প্রতিষ্ঠানের পক্ষে চুক্তিতে সই করেন বসুন্ধরা গ্রুপের চেয়ারম্যান আলহাজ আহমেদ আকবর সোবহান এবং বাংলাদেশ জুডিশিয়াল সার্ভিস অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি, ঢাকা জেলা ও দায়রা জজ মোহাম্মদ শওকত আলী চৌধুরী এবং সংগঠনের মহাসচিব, আইন ও বিচার বিভাগের যুগ্ম সচিব (প্রশাসন-১) বিকাশ কুমার সাহা।

এ সময় আইন ও বিচার বিভাগের সচিব মো. গোলাম সারওয়ারসহ বাংলাদেশ জুডিশিয়াল সার্ভিস অ্যাসোসিয়েশনের সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন।

অনুষ্ঠানে জানানো হয়, আবাসন প্রকল্পের প্লট নির্মাণের জন্য নির্ধারিত ভূমির পরিমাণ হবে ৩২৮৮ কাঠা (কম/বেশি) এবং বেসরকারি হাউজিং নীতিমালা অনুযায়ী রাস্তা, ড্রেন, স্কুল, শপিং সেন্টার, খেলার মাঠ, বিনোদন কেন্দ্র ও ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানসহ নাগরিক সুবিধার জন্য নির্ধারিত ভূমির পরিমাণ হবে ৯৮৪ কাঠা (কম/বেশি)। এতে ৩৩৩টি (কম/বেশি) ০৫ কাঠা আয়তনের এবং ৫৪১টি (কম/বেশি) ০৩ কাঠা আয়তনের মোট ৮৭৪টি প্লট থাকবে। প্রকল্পে মোট ১ হাজার ১৪০ বিচারকের আবাসন ব্যবস্থা থাকবে।

এফএইচ/এএইচ/এমকেএইচ

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]