যাবজ্জীবন মানে স্বাভাবিক মৃত্যু পর্যন্ত কারাদণ্ড

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৯:৪২ পিএম, ২৯ নভেম্বর ২০২০

দণ্ডবিধি বা পেনাল কোডের ৪৫ ধারা অনুযায়ী যাবজ্জীবনের অর্থ হলো স্বাভাবিক মৃত্যু পর্যন্ত কারাদণ্ড। রোববার (২৯ নভেম্বর) এ নির্দেশ দিয়ে পূর্ণাঙ্গ রায় প্রকাশ করেছেন সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগ।

গত ৩০ সেপ্টেম্বর এক মামলায় মোকছেদ আলী নামের এক আসামিকে মৃত্যুদণ্ড থেকে সাজা কমিয়ে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দেন জ্যেষ্ঠ বিচারপতি মুহাম্মদ ইমান আলীর নেতৃত্বাধীন আপিল বিভাগের বেঞ্চ। প্রকাশিত পূর্ণাঙ্গ রায়ে যাবজ্জীবনের সীমা নির্ধারণ করে পূর্ণ ব্যাখ্যা দেন আদালত।

রায় প্রকাশের বিষয়টি নিশ্চিত করে ডেপুটি আ্যটর্নি জেনারেল অমিত দাশ গুপ্ত গণমাধ্যমকে বলেন, গত ৩০ সেপ্টেম্বর মোকছেদ আলীকে যাবজ্জীবন এবং টুটুল নামের আরেক আসামিকে ১০ বছরের কারাদণ্ড দেন আপিল বিভাগের বেঞ্চ। সে রায়ের পূর্ণাঙ্গ অনুলিপি প্রকাশ করা হয়েছে। সেখানে মোকছেদ আলীকে দেয়া যাবজ্জীবনের বিষয়ে ব্যাখ্যা দিয়েছেন আদালত।

আদালত বলেছেন, দণ্ডবিধি বা পেনাল কোডের ৪৫ ধারা অনুযায়ী যাবজ্জীবন মানে স্বাভাবিক মৃত্যু পর্যন্ত কারাদণ্ড।

মামলার বিবরণে জানা যায়, মানিকগঞ্জের এক টেম্পুচালক হত্যা মামলায় শিবালয় উপজেলার মোকছেদ আলী ও টুটুলের মৃত্যুদণ্ড দেন বিচারিক আদালত। সে রায় হাইকোর্টে বহাল থাকে। পরে আসামিরা জেল আপিল করলে শুনানি শেষে গত ৩০ সেপ্টেম্বর রায় ঘোষণা করেন আপিল বেঞ্চ।

প্রকাশিত সেই রায়ে উল্লেখ করা হয়, দণ্ডবিধি বা পেনাল কোডের ৪৫ ধারা অনুযায়ী কারাদণ্ড মানে স্বাভাবিক মৃত্যু পর্যন্ত কারাদণ্ড।

উল্লেখ্য, সাবেক প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার (এস কে) সিনহার নেতৃত্বাধীন বেঞ্চ অপর একটি মামলায় যাবজ্জীবন মানে আমৃত্যু কারাদণ্ড বলে রায় দেন। রায়ের রিভিউ শুনানি শেষে রায়ের জন্য আগামী ১ ডিসেম্বর দিন ধার্য রয়েছে।

এফএইচ/এফআর/এমকেএইচ

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]