পুলিশ হেফাজতে শিক্ষানবিশ আইনজীবীর মৃত্যু, বিভাগীয় তদন্তের নির্দেশ

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ১২:২৮ পিএম, ০৩ মার্চ ২০২১

মাদক মামলায় গ্রেফতার বরিশালের শিক্ষানবিশ আইনজীবী রেজাউল ইসলাম রেজার পুলিশ হেফাজতে মৃত্যুর ঘটনা বিচার বিভাগীয় তদন্তের নির্দেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট।

বরিশাল মেট্রোপলিটন পুলিশের গোয়েন্দা বিভাগ (ডিবি) হেফাজতে মারা যান রেজাউল করিম। এ ঘটনায় তার বাবা ইউনুস মুন্সির করা আবেদনের শুনানি নিয়ে বুধবার (৩ মার্চ) হাইকোর্টের বিচারপতি এম. এনায়েতুর রহিম এবং মো. মোস্তাফিজুর রহমানের দ্বৈত ভার্চুয়াল বেঞ্চ এ আদেশ দেন। আদালতে আবেদনকারীর পক্ষে শুনানি করেন আইনজীবী মোহাম্মদ শিশির মনির।

রেজা বরিশাল সিটি করপোরেশনের ২৪ নম্বর ওয়ার্ডের হামিদ খান সড়কের বাসিন্দা ছিলেন। তিনি জেলা আইনজীবী সমিতির সদস্য জাকির হোসেন মিন্টুর সঙ্গে শিক্ষানবিশ আইনজীবী হিসেবে প্র্যাকটিস করে আসছিলেন।

মামলায় অভিযোগ করা হয়, গত বছরের ২৯ ডিসেম্বর রাতে ডিবি কার্যালয়ে পেটানো হয় রেজাউলকে। এতে তিনি অসুস্থ হয়ে শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে মারা যান।

আইনজীবী শিশির মনির সাংবাদিকদের বলেন, গত ২৯ ডিসেম্বর রাত ৮টার দিকে রেজাউল করিমকে তিন জন সাদা পোশাকধারী পুলিশ তার বাবার সামনেই মারধর করে। এরপর তাকে ডিবি কার্যালয়ে নিয়ে যাওয়া হয়। পরদিন (৩০ ডিসেম্বর) তাকে আদালতে তোলা হয়।

তাকে সারারাত ডিবির উপ-পরিদর্শক (এসআই) মহিউদ্দিনসহ আরও দুজন পুলিশ সদস্য রুলার দিয়ে পেটায় বলে কোর্ট হাজতে থাকাকালে রেজাউল তার ভাইকে জানিয়েছিলেন। সারারাত তাকে খেতেও দেয়া হয়নি।

তিনি বলেছিলেন, ‘বাবা-মাকে দোয়া করতে বলো, আমি বাঁচব না।’

শিশির মনির আরও বলেন, ‘এরপরে ওইদিন তাকে জেল হাজতে পাঠানো হয়। সেখানে আরও অসুস্থ হয়ে পড়লে রেজাউলকে বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়। কারা কর্তৃপক্ষ বিষয়টি তার বাবা ইউনুস মুন্সিকে জানায়। তখন পরিবারের সদস্যরা হাসপাতালে গিয়ে দেখেন, আঘাতের কারণে রেজাউলের শরীর থেকে রক্ত ঝরছে এবং তিনি যন্ত্রণায় কাতরাচ্ছেন। পরদিন (১ জানুয়ারি) রাত ১২টার দিকে হাসপাতালে তার মৃত্যু হয়।’

ওই ঘটনায় রেজাউলের বাবা ইউনুস মুন্সি সংশ্লিষ্ট থানায় মামলা করতে গেলে পুলিশ মামলা নিতে অস্বীকার করে।

তখন তিনি বরিশাল মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে নির্যাতন ও হেফাজতে মৃত্যু (নিবারণ) আইনে মামলা করলে আদালত পিবিআইকে তদন্তের নির্দেশ দেন। পরে ওই আদেশের বিরুদ্ধে তিনি বিচার বিভাগীয় তদন্তের জন্য হাইকোর্টে আবেদন করেন।

আজ শুনানি শেষে আদালত তার আবেদনে সাড়া দিয়েছেন।

এফএইচ/জেডএইচ/এসএস/এমকেএইচ/এএসএম

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]