বাসায় গৃহকর্মীর মরদেহ : রিমান্ডে শেষে কারাগারে শিক্ষিকা

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৫:৩৫ পিএম, ২১ এপ্রিল ২০২১

রাজধানীর পিলখানায় বীরশ্রেষ্ঠ নূর মোহাম্মদ পাবলিক স্কুল অ্যান্ড কলেজের একটি আবাসিক ভবন থেকে লাইলি আক্তার (১৬) নামে এক গৃহকর্মীর মরদেহ উদ্ধারের ঘটনায় করা মামলায় কলেজের শিক্ষিকা ফারজানা ইসলামকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দিয়েছেন আদালত।

বুধবার (২১ এপ্রিল) দুই দফা রিমান্ড শেষে তাকে ঢাকা মহানগর হাকিম আদালতে হাজির করে পুলিশ। এসময় মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা মামলার তদন্ত শেষ না হওয়া পর্যন্ত তাকে কারাগারে আটক রাখার আবেদন করেন।

অপরদিকে তার আইনজীবী জামিনের আবেদন করেন। উভয় পক্ষের শুনানি শেষে ঢাকা মহানগর হাকিম আবু সুফিয়ান মোহাম্মদ নোমান তার জামিন আবেদন নামঞ্জুর করে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন।

এর আগে শুক্রবার (১৬ এপ্রিল) চার দিনের রিমান্ড শেষে তাকে ঢাকা মহানগর হাকিম আদালতে হাজির করে পুলিশ। এ সময় মামলার সুষ্ঠু তদন্তের জন্য তাকে আরও সাত দিনের রিমান্ডে নিতে আবেদন করেন মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা। শুনানি শেষে ঢাকা মহানগর হাকিম নিভানা খায়ের জেসি তার তিন দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

গত ১১ এপ্রিল তাকে ঢাকা মহানগর হাকিম আদালতে হাজির করে পুলিশ। এ সময় নিউ মার্কেট থানায় করা মামলার সুষ্ঠু তদন্তের জন্য তাকে ১০ দিনের রিমান্ডে নিতে আবেদন করেন মামলার তদন্ত কর্তকর্তা। শুনানি শেষে ঢাকা মহানগর হাকিম মঈনুল ইসলাম তার চার দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

এর আগে ১০ এপ্রিল বিকেল ৫টার দিকে কলেজের শিক্ষিকা আবাসিক ভবনের চতুর্থ তলা থেকে লাইলি আক্তারের (১৬) মরদেহ উদ্ধার করা হয়। এ ঘটনায় নিউ মার্কেট থানায় একটি মামলা হয়।

নিহতের মা শ্যামলা বেগম বলেন, ‘লাইলির ফুফুর মাধ্যমে আট মাস আগে এক হাজার টাকা বেতনে তাকে ওই বাসায় কাজে দেয়া হয়। বিভিন্ন সময় আমি দেখা করতে চাইলে দেখা করতে দিতেন না তারা।’

তিনি অভিযোগ করে বলেন, ‘আমার মেয়েকে পিটিয়ে, বিভিন্নভাবে নির্যাতন করে হত্যা করা হয়েছে। থানায় একটি মামলাও করা হয়েছে।’

জানা গেছে, লক্ষ্মীপুরের চন্দ্রগঞ্জ থানার চন্দ্রপুর গ্রামের মৃত সিরাজ মিয়ার মেয়ে লাইলি। বীরশ্রেষ্ঠ নূর মোহাম্মদ পাবলিক স্কুল অ্যান্ড কলেজের শিক্ষিকদের আবাসিক ভবনের ১/১-এইচ নম্বর বাসার চতুর্থ তলায় থাকতেন।’

জেএ/ইএ/এমএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]