‘আবেদন ছাড়াই সরকার খালেদাকে বিদেশযাত্রায় অনুমতি দিতে পারে’

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৪:৪৭ এএম, ০৬ মে ২০২১
অ্যাডভোকেট খন্দকার মাহবুব হোসেন। ফাইল ছবি

কোনো প্রকার আবেদন ছাড়াই সরকার বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে সুচিকিৎসার জন্য বিদেশযাত্রায় অনুমতি দিতে পারে। এখানে আদালতের কোনো ভূমিকা নেই বলে মতামত দিয়েছেন বিএনপি চেয়ারপারসনের আইনজীবী ও সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সাবেক সভাপতি অ্যাডভোকেট খন্দকার মাহবুব হোসেন।

বুধবার (৫ মে) গণমাধ্যমে পাঠানো এক ভার্চুয়াল ব্রিফিংয়ে বিএনপির এই ভাইস চেয়ারম্যান এমন মত দেন।

খন্দকার মাহবুব হোসেন বলেন, ‘ফৌজদারি কার্যবিধি ৪০১ ধারা মোতাবেক সরকার শর্ত সাপেক্ষে বা শর্তছাড়া যেকোনো আসামির সাজা মওকুফ বা সাজা স্থগিত করতে পারে। খালেদা জিয়াকে যখন মুক্তি দেয়া হয় তখন শর্ত দেয়া হয়েছিল, তিনি বিদেশে যেতে পারবেন না।’

বিএনপির এই ভাইস চেয়ারম্যান বলেন, ‘এখন এ অবস্থায় সরকারের মানবিক দায়িত্ব, নৈতিক দায়িত্ব, দেশের তিনবারের প্রধানমন্ত্রী, জনপ্রিয় নেত্রী খালেদা জিয়াকে চিকিৎসার জন্য বিদেশে যাওয়ার অনুমতি দেয়া উচিত। এখানে কোনো দরখাস্ত ছাড়াই সরকার অনুমতি দিতে পারে।’

তিনি বলেন, ‘এখানে আদালতের কোনো ভূমিকা নেই। এটা সম্পূর্ণ প্রশাসনিক আদেশ। সাজা স্থগিতও প্রশাসনিক আদেশ। এখানে আদালতের কোনো ভূমিকা নেই। আশা করি সরকার তার সুচিকিৎসার জন্য বিদেশে যেতে দেবে। এখানে আইনগত কোনো বাধা নেই।’

দুর্নীতির দুই মামলায় ১৭ বছরের দণ্ডিত সাবেক এ প্রধানমন্ত্রী ২০১৮ সালের ৮ ফেব্রুয়ারি থেকে কারাবন্দি ছিলেন। এর মধ্যে শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে তাকে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে (বিএসএমএমইউ) ভর্তি করা হয়। সেখানেই তিনি চিকিৎসাধীন ছিলেন।

পরবর্তীতে গত বছরের ২৫ মার্চ তার শারীরিক অবস্থা বিবেচনায় নিয়ে পরিবারের সদস্যদের আবেদনে সাজা ছয় মাসের জন্য স্থগিত রেখে তাকে সাময়িক সময়ের জন্য মুক্তি দেয় সরকার।

এরপর খালেদা জিয়া রাজধানীর গুলশান এভিনিউয়ের নিজের বাসভবন ফিরোজায় যান। সেই ছয় মাস মেয়াদ শেষ হওয়ার পর ফের মেয়াদ আরও বাড়ানো হয়েছে। এর মধ্যে খালেদা জিয়া করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার পর চিকিৎসার জন্য হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন। বর্তমানে তিনি হাসপাতালের সিসিইউতে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

এর আগে মঙ্গলবার (৪ মে) খালেদা জিয়াকে উন্নত চিকিৎসার জন্য বিদেশে পাঠানোর অনুমতির বিষয়ে অ্যাটর্নি জেনারেল এ এম আমিন উদ্দিন সাংবাদিকদের বলেছিলেন, ‘ফৌজদারি কার্যবিধি ৪০১ ধারার উপধারা-২ অনুযায়ী সরকার খালেদা জিয়াকে মুক্তি দিয়েছে। এখন এটা (বিদেশ নিতে) করতে গেলে আদালতে আসতে হবে। আমার তো তাই মনে হয়। তারপরও আমি না দেখে বিষয়টি নিশ্চিত করে বলতে পারছি না।’

তিনি আরও বলেন, ‘উনার (খালেদা জিয়া) চিকিৎসা কতটুকু প্রয়োজন। তা দেশে আছে কি-না, সবকিছু দেখে সরকার বিষয়টি বিবেচনা করবে।’

এফএইচ/এমআরআর

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]