অর্থ আত্মসাতের মামলায় বরিশালের সাবেক মেয়র কামালের জামিন

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০২:১৮ পিএম, ১৫ জুন ২০২১
ফাইল ছবি

অর্থ আত্মসাতের ঘটনায় দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) করা মামলায় সাত বছর কারাদণ্ডপ্রাপ্ত বরিশাল সিটি করপোরেশনের সাবেক মেয়র ও বিএনপি নেতা আহসান হাবিব কামালের জামিন মঞ্জুর করেছেন হাইকোর্ট।

মঙ্গলবার বিচারপতি মো. সেলিমের একক হাইকোর্ট বেঞ্চ এই আদেশ দেন। এই আদেশের ফলে তার মুক্তিতে বাধা নেই বলে জানিয়েছেন আইনজীবীরা।

আদালতে আজ আহসান হাবিব কামালের পক্ষে শুনানি করেন জ্যেষ্ঠ আইনজীবী অ্যাডভোকেট ইউসুফ হোসেন হুমায়ন, ব্যারিস্টার রুহুল কুদ্দুস কাজল ও ব্যারিস্টার এইচ এম সানজিদ সিদ্দিকী। দুদকের পক্ষে শুনানি করেন আইনজীবী এ কে এম ফারহান।

গত বছরের ৯ নভেম্বর ৪৫ লাখ টাকা আত্মসাতের মামলায় সাবেক মেয়র আহসান হাবিব, সিটি করপোরেশনের তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী নুরুল ইসলামসহ পাঁচজনকে সাত বছর করে সশ্রম কারাদণ্ড দেন বিভাগীয় বিশেষ জজ আদালত। একই সঙ্গে আদালত সাবেক মেয়র ও জাকির হোসেন নামের এক ঠিকাদারকে ১ কোটি টাকা করে জরিমানা করেন।

দণ্ডপ্রাপ্ত অন্য আসামিরা হলেন- বরিশাল পৌরসভার সাবেক নির্বাহী প্রকৌশলী মো. ইসহাক, সাবেক সহকারী প্রকৌশলী খান মুহাম্মদ নুরুল ইসলাম, উপসহকারী প্রকৌশলী আব্দুস সাত্তার ও নগরীর কালিবাড়ী রোড এলাকার জাকির হোসেন। তাদের বিরুদ্ধে ২০০০ সালের ১১ অক্টোবর কোতোয়ালি মডেল থানায় মামলা করেন তৎকালীন জেলা দুর্নীতি দমন কর্মকর্তা আবদুল বাছেত।

মামলার অভিযোগে বলা হয়, ঘটনার সময় আসামিরা বরিশাল পৌরসভার দায়িত্বে ছিলেন। আহসান হাবিব কামাল পৌর চেয়ারম্যান ও অন্যান্যরা পৌরসভায় কর্মরত অবস্থায় ১৯৯৫ সালের ২১ ডিসেম্বর থেকে ১৯৯৬ সালের ৩ জুন পর্যন্ত পরস্পর যোগসাজশে পৌর এলাকার টেলিফোন শিল্প সংস্থা কর্তৃক ক্ষতিগ্রস্ত রাস্তা মেরামতের নামে ভুয়া জাল প্যাড তৈরি করে, ভুয়া দরপত্রের মাধ্যমে ভুয়া ঠিকাদার নিয়োগ দেখিয়ে প্রতারণা ও জালিয়াতি করে বরিশাল ইউনাইটেড কমার্শিয়াল ব্যাংকে চলতি হিসাব খুলে টেলিফোন সংস্থার দেয়া ৩৯ লাখ ৫০ হাজার টাকা চারটি চেকের মাধ্যমে উত্তোলন করেন। এর মধ্যে ১১ লাখ ৯৯ হাজার টাকার রাস্তা মেরামত দেখিয়ে বাকি ২৭ লাখ ৬০ হাজার টাকা ক্ষমতার অপব্যবহার করে আত্মসাৎ করেন তারা।

এফএইচ/এমএসএইচ/এএসএম

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]