আদালত প্রাঙ্গণে বেড়েছে আইনজীবী-বিচারপ্রার্থীদের চাপ

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৪:১৬ পিএম, ২০ জুন ২০২১

দীর্ঘদিন ভার্চুয়ালি বিচারিক কার্যক্রম চলার পর দেশের নিম্ন আদালতে আজ (রোববার) থেকে শারীরিক উপস্থিতিতে বিচার কার্যক্রম পরিচালনা হচ্ছে। এতে ঢাকার নিম্ন আদালত প্রাঙ্গণে আইনজীবী ও বিচারপ্রার্থীদের চাপ বেড়েছে। স্বাস্থ্যবিধি মেনে আদালতে আসছেন সবাই।

রোববার (২০ জুন) পুরান ঢাকার নিম্ন আদালত এলাকা ঘুরে দেখা যায়, ভার্চুয়াল আদালতের চেয়ে স্বাভাবিক আদালতে আইনজীবী ও বিচারপ্রার্থীদের চাপ বেড়েছে। স্বাস্থ্যবিধি মেনে সবাই উপস্থিত হচ্ছেন। তবে স্বাভাবিক আদালতের প্রথম দিন হওয়ায় হাজিরা ও সাক্ষীর বিষয় দেখা যায়নি।

এ বিষয়ে আইনজীবী খালেদ হোসেন বলেন, ‘দীর্ঘদিন ভার্চুয়াল আদালত চলার পর আজ স্বাভাবিক আদালতের প্রথম দিন। আজ স্বাভাবিক আদালত হওয়ায় আইনজীবী ও বিচারপ্রার্থীদের চাপ বেড়েছে।’

বিচারপ্রার্থী রহিমা পারভীন বলেন, ‘আদালত স্বাভাবিক হওয়ায় মামলার খবর নিতে আদালতে এসেছি। মামলার বিষয়ে আইনজীবীর সঙ্গে কথা হয়েছে। পরবর্তী দিনে হাজিরা দিতে আসব।’

jagonews24

এর আগে শনিবার (১৯ জুন) রাতে সুপ্রিম কোর্ট প্রশাসন শারীরিক উপস্থিতিতে নিম্ন আদালত পরিচালনার জন্য বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করে।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, স্থানীয় প্রশাসন কোনো জেলা সদর বা মহানগরে করোনাভাইরাসজনিত রোগের বিস্তার রোধে সার্বিক কার্যাবলী ও চলাচলে বিধিনিষেধ জারি করলে সংশ্লিষ্ট জেলা ও মহানগরের দেওয়ানি বা ফৌজদারি আদালত এবং ট্রাইব্যুনালসমূহে শারীরিক উপস্থিতি ব্যতিরেকে ভার্চুয়াল পদ্ধতিতে জামিন ও জরুরি দরখাস্ত শুনানি করা যাবে।

দেওয়ানি ও ফৌজদারি মামলায় যেসব ক্ষেত্রে আদালতে পক্ষগণের উপস্থিতির আবশ্যকতা নেই, সেক্ষেত্রে পক্ষগণের পরিবর্তে সংশ্লিষ্ট আইনজীবী আদালতে হাজিরা দাখিল করবেন। জামিন শুনানি এবং আমলি আদালতে ধার্য তারিখে হাজিরার জন্য কারাগারে থাকা অভিযুক্ত ব্যক্তিকে কারাগার থেকে প্রিজনভ্যান বা অন্য কোনোভাবে আদালত প্রাঙ্গণে বা এজলাস কক্ষে হাজির করার আবশ্যকতা নেই।

এতে আরও বলা হয়, আদালতের বিচারিক কর্মঘণ্টার প্রথম ভাগে (সকাল সাড়ে নয়টা থেকে দুপুর সোয়া ১টা) সাক্ষ্যগ্রহণ ও যুক্তিতর্ক, আপিল রিভিশন, রিভিউ শুনানি এবং দ্বিতীয় ভাগে (দুপুর ২ থেকে বিকেল সাড়ে চারটা) জামিন সংক্রান্ত বিবিধ মামলা, জামিনের দরখাস্ত ও অস্থায়ী নিষেধাজ্ঞার দরখাস্তসহ অন্যান্য দরখাস্ত শুনানির জন্য সংশ্লিষ্ট সকলকে নির্দেশ প্রদান করা হলো।

দেওয়ানি ও ফৌজদারি আদালত এবং ট্রাইব্যুনালসমূহের স্বাভাবিক কার্যক্রম পরিচালনার ক্ষেত্রে আদালত প্রাঙ্গণ এবং এজলাস কক্ষে সুরক্ষামূলক ব্যবস্থা গ্রহণ সংক্রান্ত গত বছরের ৩০ জুলাই হাইকোর্ট বিভাগের জারি করা বিজ্ঞপ্তিতে বর্ণিত নিদের্শনা প্রতিপালনের জন্য সংশ্লিষ্ট সবাইকে নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

জেএ/এমএইচআর/এমকেএইচ

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]