পৈতৃক ফ্ল্যাট ফিরে পেতে অ্যাটর্নি জেনারেলের কাছে কিশোরের আকুতি

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৯:০১ পিএম, ১৮ জুলাই ২০২১

আনান রহমান রাজধানীর বনশ্রী আইডিয়াল স্কুলের ষষ্ঠ শ্রেণির ছাত্র। সে তার সৎচাচা মো. মতিউর রহমানের বিরুদ্ধে পৈতৃকসূত্রে পাওয়া পাঁচটি ফ্ল্যাট জবরদখল চেষ্টার অভিযোগ তুলেছে। এ ঘটনায় ব্যবস্থা গ্রহণের অনুরোধ জানিয়ে দেশের প্রধান আইন কর্মকর্তা অ্যাটর্নি জেনারেল অ্যাডভোকেট এএম আমিন উদ্দিনের কাছে আবেদন করেছে ওই কিশোর।

ই-মেইল ও রেজিস্ট্রি ডাকযোগে রোববার (১৮ জুলাই) দুপুরে অ্যাটর্নি জেনারেল কার্যালয়ে এ আবেদন পাঠানো হয়। আবেদনের বিষয়টি জাগো নিউজকে নিশ্চিত করেন আনানের মা আঞ্জুম আরা বেগম।

তিনি অভিযোগ করেন, আনানের সৎচাচা তাদের পাঁচটি ফ্ল্যাট (যার আনুমানিক বাজারদর ২৫ লাখ টাকা করে প্রায় সোয়া কোটি টাকা) জবরদখল করার চেষ্টা করছেন। তিনি ২০১৯ সাল থেকে ফ্ল্যাটগুলোর ভাড়া আত্মসাৎ করে আসছেন। এ ছাড়া তাদের প্রাণনাশের হুমকি দেয়ায় তারা বাসা ছেড়ে এখন যাযাবরের মতো দিনাতিপাত করছেন।

অ্যাটর্নি জেনারেল বরাবর পাঠানো আবেদনে বলা হয়, আনান রহমানের বর্তমান বয়স ১২ বছর। ২০১০ সালের ১৪ মে সে বাবাকে হারায়। এরপর তার বিধবা মায়ের অসহায়ত্ব ও ভবিষ্যতের কথা চিন্তা করে আনানের দাদা ২০১২ সালের ২০ সেপ্টেম্বর দলিল মূলে ঢাকার বাড্ডা থানার পোস্ট অফিস রোডের ৮১৬ নম্বর হোল্ডিংয়ের পঞ্চম তলা বাড়ির প্রতিটি ৫৫০ বর্গফুট হিসাবে তৃতীয় তলার দুটি এবং চতুর্থ তলার একটি ফ্ল্যাটসহ সম্পত্তি আনানকে দান করেন। দানকৃত ফ্ল্যাটের দখল আনান রহমানের পক্ষে তার দাদির কাছে বুঝিয়ে দেয়া হয়।

এদিকে, ২০১৯ সালের ২৩ সেপ্টেম্বর থেকে ২০১৯ সালের ২৭ অক্টোবর আনানের দাদা ও দাদি উভয়ে মারা যান। এরপর আনান ওয়ারিশসূত্রে আরও দুটি ফ্ল্যাটের মালিক হয়। এভাবে আনান পাঁচটি ফ্ল্যাটের মালিক হয়ে ভোগদখল করে আসা অবস্থায় তার চাচা মো. মতিউর রহমান সম্পূর্ণ বেআইনিভাবে ফ্ল্যাটগুলো হাতিয়ে নেয়ার চেষ্টা করে আসছেন।

শুধু তাই নয়, তিনি আনান ও তার মাকে মেরে ফেলার হুমকি দিয়ে আসার কারণে ভয়ে ফ্ল্যাটগুলোতে তারা যাওয়ার সাহস করছেন না। এ নিয়ে আনানের মা কিছুদিন আগে সংশ্লিষ্ট থানায় সাধারণ ডায়েরি ও সংশ্লিষ্ট কমিশনারের কাছে মৌখিকভাবে অভিযোগ করেও কোনো সুফল পাননি।

তাই নয়, তার চাচা নেশাজাতীয় দ্রব্য সেবন করে বাসায় এসে আনানের মাকে প্রায়ই অকথ্য ভাষায় গালমন্দ করতেন এবং নানারকম হয়রানি ও নির্যাতনের হুমকি দেন। নিরূপায় হয়ে বর্তমানে আনান ও তার মা বাড়ি ছেড়ে যাযাবরের মতো বসবাস করছেন। তারা এখন অনাহারে-অর্ধাহারে দিনাতিপাত করছেন। এমনকি আনান বনশ্রী আইডিয়াল স্কুলের ষষ্ঠ শ্রেণির ছাত্র হওয়া সত্ত্বেও বর্তমানে অর্থাভাবে পড়াশোনা চালিয়ে যেতে পারছে না। তার পড়াশোনা এখন বন্ধের পথে।

অন্যদিকে, তার চাচা প্রতিটি ফ্ল্যাটের ভাড়া ১০ হাজার টাকা এবং ছাদের ভাড়া বাবদ প্রাপ্য অংশ আরও ১০ হাজার টাকা হিসেবে ২০১৯ সালের ডিসেম্বর থেকে ২০২১ সালের জুন পর্যন্ত মোট ১০ লাখ ৮০ হাজার টাকা আত্মসাৎ করেছেন এবং এখনো করছেন। এলাকার কেউ তার চাচার ভয়ে মুখ খোলার সাহস পান না।

তাই নিরূপায় হয়ে আজ (১৮ জুলাই) অ্যাটর্নি জেনারেল বরাবরে ই-মেইল ও রেজিস্ট্রি ডাকযোগে আবেদন করে আনান। তার সৎচাচার নিষ্ঠুর আচরণসহ বেআইনি কার্যক্রম থেকে রক্ষা করে তার মালিকানাধীন ফ্ল্যাটগুলো এবং ভাড়া বাবদ আত্মসাৎ করা ১০ লাখ ৮০ হাজার টাকা ফেরতের ব্যবস্থা করতে এবং ভাড়াটিয়াদের কাছ থেকে জোর করে ভাড়া আদায় বন্ধ করতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য সে অ্যাটর্নি জেনারেলের কাছে অনুরোধ জানায়।

ওই আবেদনের কপি ই-মেইল ও রেজিস্ট্রি ডাকযোগে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের (ডিএনসিসি) মেয়র, পুলিশ মহাপরিদর্শক (আইজিপি), সমাজসেবা অধিদফতরের মহাপরিচালক, সমাজসেবা অধিদফতরের পরিচালক (সামাজিক নিরাপত্তা), ডিএনসিসির ৩৭ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর, বাড্ডা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা এবং আনানের চাচা মো. মতিউর রহমানের কাছে পাঠানো হয়।

এ বিষয়ে জানতে আনানের চাচা মো. মতিউর রহমানের মুঠোফোনে কল করা হলে তিনি ফোন রিসিভ করেননি।

এফএইচ/এমআরআর/এএসএম

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]