ইউল্যাব ছাত্রী ধর্ষণ ও হত্যা : বন্ধু মর্তুজার জামিন

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৮:১৮ পিএম, ১৯ জুলাই ২০২১ | আপডেট: ০৮:২০ পিএম, ১৯ জুলাই ২০২১
ফাইল ছবি

ইউনিভার্সিটি অব লিবারেল আর্টস বাংলাদেশের (ইউল্যাব) ছাত্রীকে ধর্ষণ ও হত্যার অভিযোগে করা মামলার আসামি মর্তুজা রায়হান চৌধুরীকে জামিন দিয়েছেন হাইকোর্ট।

সোমবার (১৯ জুলাই) হাইকোর্টের বিচারপতি জাহাঙ্গীর হোসেন সেলিম ও বিচারপতি মো. আতোয়ার রহমানের সমন্বয়ে গঠিত ভার্চুয়াল বেঞ্চ জামিন মঞ্জুর করেন।

জামিন আবেদনকারীর পক্ষে আদালতে আইনজীবী ছিলেন সাবেক খাদ্যমন্ত্রী অ্যাডভোকেট মো. কামরুল ইসলাম ও মুনমুন নাহার। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন সহকারী অ্যাটর্নি জেনারেল সৈয়দা জাহিদা সুলতানা রত্না।

জানা যায়, গত ২৮ জানুয়ারি সন্ধ্যায় ডিজে নেহার আমন্ত্রণে সাড়া দিয়ে হাতিরপুল থেকে রাজধানীর উত্তরার ব্যাম্বো শুট রেস্টুরেন্টে যান ওই ছাত্রী এবং তার দুই বন্ধু মর্তুজা রায়হান চৌধুরী এবং আরাফাত। সেখানে তারা অতিরিক্ত মদ পান করেন।

সেখান থেকে বের হয়ে ওই রাতেই যান গুলশানের অন্য একটি অভিজাত হোটেলে। সেখানেও তারা ফের মদ পান করেন। দুদিন পর মারা যান ইউল্যাব ছাত্রী ও তার বন্ধু আরাফাত। এ ঘটনার পর রাজধানীর আজিমপুর থেকে নেহাকে গ্রেফতার করে পুলিশ।

পরবর্তীতে পুলিশ হত্যা ও ধর্ষণ মামলায় মর্তুজা রায়হান চৌধুরী ও তাফসিরকে গ্রেফতার করা হয়। নেহার চাচাতো ভাই বিশাল নিম্ন আদালতে আত্মসমর্পণ করেন। এ মামলায় হাইকোর্টে জামিন আবেদন করেন মর্তুজা। আজ শুনানি শেষে হাইকোর্ট তাকে জামিন দেন।

শুনানিতে আসামিপক্ষের আইনজীবী বলেন, ‘বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়পড়ুয়া এসব ছেলে-মেয়ের অধিকাংশেরই বাবা-মা তাদের সন্তানদের ব্যাপারে ছিল উদাসীন। এ সুযোগে তারা এ ধরনের উচ্ছৃঙ্খল জীবনযাপন করত।’

এ সময় আদালত বলেন, শুধুই এ ঘটনা হবে কেন? এটা এখন আমাদের সমাজের চিত্র।

এফএইচ/জেডএইচ/এমএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]