অ্যাডভোকেট সিরাজুল হকের ১৯তম মৃত্যুবার্ষিকী আজ

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৮:৫০ এএম, ২৮ অক্টোবর ২০২১

সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী এবং আইন, বিচার ও সংসদ বিষয়কমন্ত্রী আনিসুল হকের বাবা অ্যাডভোকেট সিরাজুল হকের ১৯তম মৃত্যুবার্ষিকী আজ বৃহস্পতিবার (২৮ অক্টোবর)।

এ উপলক্ষে তার জন্মস্থান ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কসবা এবং আখাউড়ায় স্থানীয় আওয়ামী লীগ ও এর অঙ্গ সংগঠনের পক্ষ থেকে মিলাদ, দোয়া ও আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়েছে।

অ্যাডভোকেট সিরাজুল হক ‘বাচ্চু মিয়া সাহেব’ নামে পরিচিত ছিলেন। তিনি ছিলেন বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের বিশিষ্ট সংগঠক এবং আওয়ামী লীগের অন্যতম প্রেসিডিয়াম সদস্য। বাংলাদেশের অন্যতম সংবিধান প্রণেতা ও বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের বিশ্বস্ত ঘনিষ্ঠ সহচর ছিলেন।

সিরাজুল হক ১৯৭০ সালের ডিসেম্বরে অনুষ্ঠিত সাধারণ নির্বাচনে কসবা-বুড়িচং নিয়ে গঠিত তৎকালীন কুমিল্লা-৪ আসন থেকে পাকিস্তান জাতীয় পরিষদের সদস্য নির্বাচিত হন। এরপর ১৯৭৩ সালের স্বাধীন বাংলাদেশের প্রথম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে কসবা-আখাউড়া নিয়ে গঠিত ব্রাহ্মণবাড়িয়া-৪ আসন থেকে সংসদ সদস্য হন। বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্ট বার অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতির দায়িত্বও পালন করেন তিনি।

সিরাজুল হক ঊনসত্তরের গণঅভ্যুত্থান, ১৯৭০ এর সাধারণ নির্বাচন এবং ১৯৭১ সালের মুক্তিযুদ্ধে সক্রিয়ভাবে অংশগ্রহণ করেন। তিনি ১৯৬৮ সালের আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলায় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের পক্ষের অন্যতম প্রধান কৌশলী ছিলেন। বঙ্গবন্ধু হত্যা মামলা ও জাতীয় চার নেতা হত্যা মামলায় রাষ্ট্রপক্ষের প্রধান কৌশলীও ছিলেন। পাকিস্তানী শাসকগোষ্ঠী কর্তৃক বঙ্গবন্ধুর বিরুদ্ধে দায়েরকৃত বিভিন্ন হয়রানিমূলক মামলায় বঙ্গবন্ধুর পক্ষের আইনজীবী হিসেবেও দায়িত্ব পালন করেন সিরাজুল হক।

ব্যক্তিগত জীবনে বেগম জাহানারা হককে বিয়ে করেন তিনি। তিনি দুই ছেলে ও এক মেয়ের জনক। বাবার মৃত্যুর পর বঙ্গবন্ধু হত্যা মামলার প্রধান কৌশলীর দায়িত্ব পালন করেন আইনমন্ত্রী আনিসুল হক। সিরাজুল হকের অপর ছেলের নাম আরিফুল হক রনি এবং একমাত্র মেয়ে সায়মা ইসলাম।

১৯২৫ সালের ১ আগস্ট ব্রিটিশ ভারতের বেঙ্গল প্রেসিডেন্সির (বর্তমান বাংলাদেশ) তৎকালীন কুমিল্লা জেলার ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কসবার পানিয়ারূপ গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন সিরাজুল হক। ২০০২ সালের ২৮ অক্টোবর পরলোক গমন করেন তিনি। তাকে বনানী কবরস্থানে সমাহিত করা হয়।

এফএইচ/জেডএইচ/এএসএম

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]