৪ ব্যাংক কর্মকর্তার নামে মামলার নির্দেশ, দুদক কর্মকর্তাকে সতর্কতা

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০১:৩১ পিএম, ০১ ডিসেম্বর ২০২১

আরব বাংলাদেশ (এবি) ব্যাংক চৌমুহনী শাখায় প্রায় সোয়া তিন কোটি টাকা আত্মসাতের অভিযোগে ব্যাংকটির চার কর্মকর্তার বিরুদ্ধে মামলা করার নির্দেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট। নোয়াখালীর সিনিয়র স্পেশাল জজ আদালতকে সরাসরি মামলা আমলে নিতে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

একইসঙ্গে তদন্তকাজে গড়িমসির অভিযোগে দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) নোয়াখালী সমন্বতি জেলা কার্যালয়ের সহকারী পরিচালক মো. মশিউর রহমানকে সতর্কতার সঙ্গে কাজ করার নির্দেশ দিয়েছেন আদালত।

বুধবার (১ ডিসেম্বর) হাইকোর্টের বিচারপতি মো. নজরুল ইসলাম তালুকদার ও বিচারপতি এ কে এম জহিরুল হকের সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চ এই আদেশ দেন।

চার ব্যাংক কর্মকর্তা হলেন- ব্যাংকের শাখা ম্যানেজার নাসির উদ্দিন আহমেদ চৌধুরী, ম্যানেজার তপনকান্তি পোদ্দার (চাঁদপুর), সাবেক এসপিও মো. নাজিম উদ্দিন (মিরপুর) ও মো. হানিফ (কিশোরগঞ্জ)।

এদিন দুদকের পক্ষে শুনানিতে ছিলেন মো. খুরশীদ আলম খান। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল একেএম আমিন উদ্দিন মানিক, সহকারী অ্যাটর্নি জেনারেল আন্না খানম কলি ও মো. সাইফুর রহমান সিদ্দিকী সাইফ। রিভিশন আবেদনকারীর পক্ষে ছিলেন আইনজীবী একেএম নুরুল আলম দুলাল। ব্যাংকের পক্ষে ছিলেন ব্যারিস্টার মাহবুব শফিক।

এবি ব্যাংক চৌমুহনী শাখায় প্রায় সোয়া তিন কোটি টাকা আত্মসাতে ব্যাংক কর্মচারীরা জড়িত মর্মে দুর্নীতি দমন কমিশনে (দুদক) অভিযোগ করেন এক ভুক্তভোগী। এ বিষয়ে দুদকের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তা সঠিক তদন্ত না করে গড়িমসি করেন। এছাড়া জড়িতদের বিরুদ্ধে বিভাগীয় ব্যবস্থা না নেওয়ার সুপারিশ করেন।

পরে এ ঘটনায় দায়ের হওয়া মামলায় বিচারিক (নিম্ন) আদালতে নারাজি আবেদন দেন। এসব ঘটনায় ভুক্তভোগী হাইকোর্টে রিভিশন আবেদন করেন।

সেই আবেদনের শুনানি নিয়ে এ বিষয়ে ব্যাখ্যা দিতে দুদক কর্মকর্তা মশিউর রহমানকে তলব করেছিলেন হাইকোর্ট। আজ মশিউর হাইকোর্টে উপস্থিত হলে এ বিষয়ে শুনানি নিয়ে ব্যাংকের চার কর্মকর্তার বিরুদ্ধে মামলা করার নির্দেশ দেন হাইকোর্ট।

একইসঙ্গে মশিউরকে সতর্ক করে মামলার তদন্ত থেকে তাকে বাদ দিয়ে নতুন তদন্ত কর্মকর্তা নিয়োগ দিতে বলেছেন আদালত।

রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল একেএম আমিন উদ্দিন মানিক আদেশের বিষয়টি জাগো নিউজকে নিশ্চিত করেন।

এর আগে এবি ব্যাংক চৌমুহনী শাখায় মো. আব্দুল মমিন নামে এক গ্রাহকের তিন কোটি ১৮ লাখ ২০ হাজার ৪০০ টাকা অ্যাকাউন্ট থেকে স্থানান্তর করে আত্মসাতের অভিযোগ পাওয়া যায়। এ ঘটনায় দুদকের অনুসন্ধানকারী কর্মকর্তা হিসেবে দায়িত্বে ছিলেন মশিউর রহমান। অভিযোগের প্রমাণ পাওয়ার পরও তিনি ব্যাংকের কর্মকর্তা নাসির উদ্দিন আহমেদ, তপনকান্তি পোদ্দার, মো. নাজিম উদ্দিন ও মো. হানিফের বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা না নিতে সুপারিশ করেন।

এ বিষয়ে গ্রাহক আব্দুল মমিন নোয়াখালীর বিশেষ জজ আদালতে মামলা করতে গেলে অনুসন্ধানকারী কর্মকর্তা লিখিতভাবে আপত্তি দাখিল করেন। এ কারণে তিনি হাইকোর্টে রিভিশন আবেদন করেন। ওই আবেদনের শুনানি নিয়ে তদন্ত কর্মকর্তা মশিউর রহমানকে তলব করেন হাইকোর্ট। সে অনুযায়ী তিনি হাইকোর্টে হাজির হন।

আমিন উদ্দিন মানিক জানান, এবি ব্যাংকের ওই শাখার সাবেক ম্যানেজার নাসির উদ্দিনসহ চারজনের বিরুদ্ধে নোয়াখালীর সিনিয়র স্পেশাল জজকে সরাসরি মামলা আমলে নিতে নির্দেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট। এছাড়া তদন্ত কর্মকর্তা মশিউর রহমানকে ভবিষ্যতের জন্য সতর্ক করে এ মামলা থেকে সরিয়ে দেওয়া হয়েছে।

এফএইচ/এমকেআর/এমআরআর/এমএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]