স্বাধীনতার ঘোষণাপত্র অস্বীকারকারীদের বিরুদ্ধে রিটের শুনানি সোমবার

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ১২:৩০ পিএম, ০৫ ডিসেম্বর ২০২১
ফাইল ছবি

ইতিহাস বিকৃতিরোধে প্রাথমিক থেকে উচ্চ মাধ্যমিক স্তর পর্যন্ত পাঠ্যপুস্তকে স্বাধীনতার ঘোষণা ও ঘোষণাপত্র অন্তর্ভুক্ত করার এবং সংবিধান অনুযায়ী স্বাধীনতার ঘোষণা ও ঘোষণাপত্র যারা অস্বীকার করে তাদের বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহিতার অভিযোগ এনে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়ার নির্দেশনা চেয়ে করা রিটের শুনানি সোমবার (৬ ডিসেম্বর)।

রোববার (৫ ডিসেম্বর) হাইকোর্টের বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিম ও বিচারপতি মো. মোস্তাফিজুর রহমানের বেঞ্চে শুনানির জন্য আবেদনটি উপস্থাপন করার পরে সেটি শুনানির জন্যে নির্ধারণ করেন।

গত ২ ডিসেম্বর ইতিহাস বিকৃতিরোধে প্রাথমিক থেকে উচ্চ মাধ্যমিক স্তর পর্যন্ত পাঠ্যপুস্তকে স্বাধীনতার ঘোষণা ও ঘোষণাপত্র অন্তর্ভুক্ত করার এবং সংবিধান অনুযায়ী স্বাধীনতার ঘোষণা ও ঘোষণাপত্র যারা অস্বীকার করে তাদের বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহিতার অভিযোগ এনে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়ার নির্দেশনা চেয়ে হাইকোর্টে রিট আবেদন করা হয়।

বৃহস্পতিবার (২ ডিসেম্বর) হাইকোর্টের সংশ্লিষ্ট শাখায় সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী উত্তম লাহেড়ীর পক্ষে করা এ রিটে আইনজীবী হচ্ছেন নাহিদ সুলতানা যুথী ও এ বি এম শাহজাহান আকন্দ মাসুম। রিটের বিষয়টি জাগো নিউজকে নিশ্চিত করেন অ্যাডভোকেট এ বি এম শাহজাহান আকন্দ মাসুম।

রিট আবেদনে স্বাধীনতার ঘোষণা ও ঘোষণাপত্র যারা অস্বীকার করে তাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়ার নির্দেশনা চাওয়া হয়েছে।

রিটে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় সচিব, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের (জননিরাপত্তা বিভাগের) সচিব, মন্ত্রী পরিষদ বিভাগের সচিব, মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগের সচিব, কারিগরি ও মাদরাসা শিক্ষাবিভাগের সচিব ও আইজিপিসহ সংশ্লিষ্ট ১০ জনকে বিবাদী করা হয়েছে।

এ বি এম শাহজাহান আকন্দ মাসুম বলেন, আমাদের পরবর্তী প্রজন্ম যেন স্বাধীনতার ঘোষণা ও ঘোষণাপত্র সম্পর্কে জানতে পারে, সে কারণেই এ রিট করা হয়েছে।

আবেদনে স্বাধীনতার ঘোষণা ও ঘোষণাপত্র যারা অস্বীকার করে তাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের নির্দেশনা চাওয়া হয়েছে। উদাহরণ স্বরূপ সাবেক রাষ্ট্রপতি জিয়া উর রহমানকে স্বাধীনার ঘোষণার বিষয়টি উল্লেখ করা হয়েছে আবেদনে।

ইতিহাস বিকৃতিরোধে সবধরনের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের পাঠ্যপুস্তকে স্বাধীনতার ঘোষণা ও ঘোষণাপত্রের অন্তর্ভুক্তি চেয়ে হাইকোর্টে রিট করা হয়েছে। রিট আবেদনে স্বাধীনতার ঘোষণা ও ঘোষণাপত্র যারা অস্বীকার করে তাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া নির্দেশনা চাওয়া হয়েছে।

এফএইচ/এএএইচ/জেআইএম

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]